অর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক:: বেসরকারি টেলিভিশন যমুনা টিভির বরাত দিয়ে প্রাণ গ্রুপের কয়েকটি পণ্যের লাইসেন্স বাতিল নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। তবে বিএসটিআই থেকে কখনোই এসব পণ্যের লাইসেন্স বাতিলের ঘটনা ঘটেনি।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের বিপণন পরিচালক কামরুজ্জামান কামাল বলেন, গত ২৫ সেপ্টেম্বর যমুনা টিভির অনুসন্ধানীমূলক অনুষ্ঠান ‘৩৬০ ডিগ্রি’তে দেখানো হয়, প্রাণের ৮টি পণ্যের লাইসেন্স বাতিল করে দিয়েছে বিএসটিআই। পণ্যগুলো হলো- প্রাণ টোস্ট বিস্কুট, চানাচুর, ম্যাঙ্গো বার, চাল, ঝাল মুড়ি, চিড়া ভাজা, চিড়ার লাড্ডু, পটেটো ক্র্যাকার্স ও মাস্টার্ড অয়েল। পরে আবার লাইসেন্স নিয়ে প্রাণ পণ্যগুলো বাজারে ছাড়ে বলে অনুষ্ঠানে দাবি করা হয়। বিষয়টি পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

তিনি বলেন, যমুনা টিভিতে লাইসেন্স বাতিলের বিষয়টি আনা হয়েছে সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এবং জনসাধারণকে বিভ্রান্ত করার জন্য। প্রাণ-এর যেসব পণ্যের লাইসেন্স বাতিলের কথা বলা হয়েছে বাস্তবে এমন কোনো ঘটনা কখনোই ঘটেনি। যেহেতু লাইসেন্স বাতিলের কোনো ঘটনাই ঘটেনি, সেখানে প্রাণ গ্রুপের পুনরায় লাইসেন্স নেয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ অবান্তর।

উল্লেখিত পণ্যসমূহের মধ্যে যেসব পণ্যের বিএসটিআই কর্তৃক মান সনদ নেয়া বাধ্যতামূলক ওই সব পণ্যের প্রতিটিরই বৈধ লাইসেন্স প্রাণ-এর কাছে রয়েছে। তাই এ বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্ত হওয়ার সুযোগ নেই বলেও জানান তিনি।

একই সঙ্গে এ ধরনের মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সংবাদে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য ডিলার, ক্রেতা, ভোক্তা ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের অনুরোধ জানান তিনি।