অর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক রিপোর্ট:: যুক্তরাষ্ট্রের একতরফা বাণিজ্য নীতি ও করারোপের ফলে ইতিমধ্যে শেয়ারবাজারে চীন ও তুরস্কের শেয়ার অন্তত ২০ শতাংশ পতন ঘটেছে। শেয়ারবাজার বিশ্লেষকরা আশঙ্কা করছেন চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে এধরনের বাণিজ্য যুদ্ধ বিশ্ব অর্থনীতিতে ৮ লাখ কোটি ডলারের ক্ষতি নিয়ে আসতে পারে। গত নভেম্বর থেকে এধরনের মুদ্রা অবমূল্যায়ন শুরু হয়েছে যার গতি পরিবর্তনের কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

গত ১০ মাসে এমএসসিআই এমার্জিং বাজার সূচক সর্বনিম্নে অবস্থান করছে। এ বাজারে ২৪ ভিন্ন দেশের মুদ্রার মধ্যে ১৪টির অবমূল্যায়ন ঘটে। সাংহাই কম্পোজিট ইনডেক্স গত জানুয়ারি থেকে পতন ঘটে ২০ শতাংশ। ঝুঁকি বেড়েছে মার্কিন ট্রেজারির সার্বভৌম বন্ডেরও। একের পর এক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে সব বাণিজ্য হুংকার ছাড়ছেন প্রতিপক্ষ চীনের কাছ থেকে অনুরুপ প্রত্যাঘাতের ঘোষণা আসছে। যা বিশ্ব অর্থনীতিতে এক জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি করছে।

বিশ্বের দুটি বড় অর্থনীতির দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের এধরনের বাণিজ্য দর কষাকষির মধ্যে বিশ্লেষকরা ফেডারেল রিজার্ভের আরো কঠোর মনোভাব ও তেলের দর বৃদ্ধির আভাস দিচ্ছেন। মরগ্যান স্ট্যানলির এশিয়া বিষয়ক ও বাজার বিশেষজ্ঞ জনাথান গার্নার এখন শেয়ার বাজার ও অর্থনীতির গতিবিধিকে বিপদজনক বলে অভিহিত করেছেন। তার মতে এমন পরিস্থিতি অনেককে নির্বোধে পরিণত করে ছাড়বে। ব্লুমবার্গ