আইন-আদালত ডেস্ক:: বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা ও শহীদ বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় এই পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

আজ বুধবার ঢাকার মহানগর হাকিম আবু সাঈদ এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে আদালত এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিলের প্রতিবেদন আগামী ৭ আগস্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নাল আবেদিন প্রথম আলোকে বলেন, মানহানির এ মামলায় আজ বুধবার খালেদা জিয়া ও দলের নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

এর আগে ১ জুলাই মানহানির এ মামলার ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে আদালতে প্রতিবেদন দেয় শাহবাগ থানার পুলিশ।

২০১৬ সালের ৫ জানুয়ারি ঢাকার আদালতে এই নালিশি মামলা করেন জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ বি সিদ্দিক।

নালিশি মামলায় বলা হয়, ২০১৫ সালের ২১ ডিসেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে খালেদা জিয়া এবং একই বছরের ২৫ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের দেওয়া বক্তব্যে তিনি (মামলার বাদী) ব্যথিত হয়েছেন। মামলার বাদী বলেন, একজন দেশপ্রেমিক হিসেবে তিনি মানহানি মামলাটি করেছেন।