আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের রুশ সংযোগ নিয়ে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন সাবেক এফবিআই পরিচালক ও ঘটনার তদন্তকারী বিশেষ কৌঁসুলি রবার্ট মুলার।

তদন্তে নিযুক্ত হওয়ার ২২ মাস পর শুক্রবার এ প্রতিবেদন জমা দেন তিনি। খবর বিবিসি ও দ্য গার্ডিয়ানের।

এখন এই প্রতিবেদনের সারসংক্ষেপ তৈরি এবং এর কতো অংশ কংগ্রেসকে জানানো হবে তা ঠিক করবেন অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার। মুলারের প্রতিবেদনে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নতুন করে আর কোনও অভিযোগ তোলার সুপারিশ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের একজন কর্মকর্তা।

মার্কিন কংগ্রেসের নেতাদের পাঠানো এক চিঠিতে অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার বলেছেন, এ সপ্তাহের শেষদিকে রবার্ট মুলারের দেয়া প্রতিবেদনের মূল বিষয়বস্তু তাদের জানাতে পারবেন তিনি। তবে শুরু থেকেই ট্রাম্প প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই তদন্তের সমালোচনা করা হলেও সম্প্রতি ট্রাম্প দাবি করেন, মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপ এবং তাতে ট্রাম্প শিবিরের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে পরিচালিত তদন্তের তথ্য প্রকাশে তার কোনও আপত্তি নেই।

আপত্তি না থাকার কথা বললেও তদন্তকারী মুলারকে অনির্বাচিত একজন ব্যক্তি আখ্যা দিয়ে তদন্তের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে দফায় দফায় প্রশ্ন তুলেছেন ট্রাম্প।

তদন্তের জেরে ৩৭ ব্যক্তি ও সংস্থার বিরুদ্ধে দোষারোপ আনা হয়েছে, যাদের অধিকাংশই রাশিয়ায় এখনো তৎপরI প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ৫ সাবেক সহযোগীসহ সাতজন দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন এবং যাদের কারাদণ্ড ও দেয়া হয়েছে। তবে এটাই এখন দেখার বিষয় যে, হোয়াইট হাউজ ও ট্রাম্পের আইনজীবীরা তার কতটুকু প্রকাশ করতে রাজি হনI

২০১৬ সালের নভেম্বরে মার্কিন নির্বাচনে রুশ সংযোগের বিষয়টি অনেকদিন ধরেই আলোচনার কেন্দ্রে। নির্বাচনকে প্রভাবিত করে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে জেতাতে মস্কো প্রপাগান্ডা ছড়িয়েছিল এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্ষেত্রে বড় ভূমিকা পালন করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।