আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার জন্যেই সিঙ্গাপুর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের বৈঠকের ২০ মিলিয়ন ডলার খরচ দিচ্ছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুং বলেছেন, এ বৈঠকের খরচ কমবেশি ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার হচ্ছে। আন্তর্জাতিক এ প্রচেষ্টায় গভীর আগ্রহের কারণেই তার দেশ এ খরচ করছে বলে জানান লুং। স্ট্রেইট টাইমস

এক সাংবাদিক সম্মেলনে সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী জানান, এ খরচের অর্ধেকই হচ্ছে নিরাপত্তার জন্যে। আমরা খুশি মনে এ খরচ করছি। কারণ আমরা মনে করি ট্রাম্প-কিম’ এর বৈঠক এ অঞ্চলের উন্নয়ন, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার জন্যে নতুন দিগন্ত উম্মোচন করবে। এ বৈঠককে সামনে রেখে সিঙ্গাপুরের সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। অনেক সাংবাদিক এ বৈঠক সম্পর্কিত খবর সংগ্রহের জন্যে সিঙ্গাপুর এসেছে এবং বৈঠককে ঘিরে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ। মাত্র দুই সপ্তাহ আগে সিঙ্গাপুরকে এ বৈঠকের কথা জানানোর পর আয়োজন করতে পেরে সিঙ্গাপুরের সবাই খুশি বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী লুং।

তবে এধরনের বৈঠক আয়োজনের ক্ষেত্রে দুপক্ষের রাজি হওয়া এবং বৈঠকের স্থান সম্পর্কে একমত হওয়া রাজনৈতিক ও কূটনৈতিকভাবে খুব সহজ নয় বলেও সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিক সম্মেলনে জানান। তাই উভয়পক্ষ যখন সিঙ্গাপুরকে বেছে নেন তখন আমরা না বলতে পারিনি, একটা ভাল উদ্যোগ নেওয়া সম্ভব হয়েছে। এ বৈঠক সিঙ্গাপুরের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবে এমন আশা করেন লুং। যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে এমন অল্প দেশগুলোর মধ্যে সিঙ্গাপুর অন্যতম। আর খরচের চেয়ে এ বৈঠকের গুরুত্বকে প্রাধান্য দিয়েছে সিঙ্গাপুর। আড়াই হাজার বিদেশি সাংবাদিককে মিডিয়া সেন্টারের সেবা দিতেই খরচ হচ্ছে ৫ মিলিয়ন ডলার।