আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ইসরায়েলের সঙ্গে উপসাগরীয় দেশগুলোর সম্পর্ক যে বেশ বৃদ্ধি পাচ্ছে তার প্রমাণ মিলল সংযুক্ত আরব আমিরাতের দেশটির মন্ত্রীকে সরকারি সফরের আমন্ত্রণ জানানোর মধ্যে দিয়ে। ইসরায়েলের মিলিটারি রেডিও আরবি সার্ভিস গত সোমবার জানায় দেশটির যোগাযোগ মন্ত্রী আয়ুব কারাকে আমিরাত সরকারি সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছে। আরাবিয়া ইউকে বুধবার এ খবর প্রকাশ করে। ইসরায়েলের মিলিটারি রেডিওর খবরে আরো বলা হয় এই প্রথমবারের মত কোনো আরব দেশ ইসরায়েলের কোনো মন্ত্রীকে দেশটিতে সফরের আমন্ত্রণ জানাল। এধরনের আমন্ত্রণ দিনের পর দিন আরব ও উপসাগরীয় দেশগুলোর সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্ক বৃদ্ধির বিষয়টিকে জানান দিচ্ছে। অনেক আরব প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে উপসাগরীয় দেশগুলোর অনেকে ইসরায়েলে ভ্রমণের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে এবং এধরনের সফর শীঘ্রই শুরু হবে বলে জানিয়েছেন ওসব প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিরা। তারা তেলআবিবকে বিভিন্ন ইস্যুতে জোর সমর্থনও জানান।

ইসরায়েলের যোগাযোগমন্ত্রীকে আমিরাতের আমন্ত্রণের খবর এমন এক সময় এল যখন একদিন আগেই জানা যায় প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু গত মার্চে আমিরাত ও বাহরাইনের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে ওয়াশিংটনে এক গোপন বৈঠক করেন। বিশেষ করে সৌদি আরব, আমিরাত ও বাহরাইন ইসরায়েলের সঙ্গে দ্রুত সম্পর্ক বৃদ্ধি করছে মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব রুখতে। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বারবার তার ভাষায় মডারেট আরব দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক বৃদ্ধির কথা বলছেন। আমিরাতে ইমিমধ্যে ইসরায়েলি ব্যবসায়ীরা তাদের বিনিয়োগ আরো বৃদ্ধি করেছে। ওয়াশিংটনে আমিরাতের দূতাবাস আসছে রোজায় ইহুদিদের ধর্মগুরু রাব্বিদের আমন্ত্রণ জানানোর পরিকল্পনা নিয়েছে। গত সপ্তাহে বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালিদ বিন আহমেদ আল খালিফা এক টুইটার বার্তায় ইসরায়েলের আত্মরক্ষার অধিকার আছে বলে দেশটিকে জোর সমর্থন জানান।