আন্তর্জাতিক ডেস্ক রিপোর্ট:: শতাব্দীর সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে ভারতের কেরালা। গত ৮ আগস্ট থেকে শুরু হওয়া এই ধ্বংসযজ্ঞে মৃত্যের সংখ্যা ৪ শতাধিক ছাড়িয়েছে, বাস্তুহারা হয়েছে ৮ লাখেরও বেশি মানুষ, অবকাঠামোগত ক্ষতির পরিমাণ ৩ হাজার কোটি ডলারেরও বেশি। হাজার হাজার মানুষ এখনও আটকা পড়ে রয়েছে।

কেরালার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্দেশ্যে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বান জানিয়েছেন ক্যাথলিক খ্রিস্টান সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস। এছাড়া, তিনি বন্যায় মৃতদের আত্মার শান্তি কামনা ও বন্যাদুর্গতদের সুরক্ষার জন্য প্রার্থনা করেন।

কেরালার অর্থমন্ত্রী থমাস ইসাক আল জাজিরাকে বলেন, ‘৪ থেকে ৫ দিনে আমরা প্রায় ৮ লাখ ৫০ হাজার মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে আসতে পেরেছি উদ্ধারকার্যে জাতীয় দুর্যোগ সহায়তা দলসহ সেনাবাহিনী, বিমানবাহিনী ও নৌ-বাহিনী নিযুক্ত রয়েছে।’

বন্যাকবলিত হওয়ার পর প্রথমবারের মত কোচি থেকে সোমবার কয়েকটি যাত্রীবাহী বিমান যাতায়াত করবে। এয়ার ইন্ডিয়া জানিয়েছে, কোচির নাভাল বিমানবন্দর থেকে সোমবার বেঙ্গালুরু আর কোয়েম্বাতুরের উদ্দেশে বিমান উড়বে।

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি’র খবরে বলা হয়, ১০দিন ধরে টানা বৃষ্টিপাত হলেও গত ৫ দিন কোন ভারী বৃষ্টিপাত হয়নি। আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, আগামী ৪ দিন কোন ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা নেই। ত্রাণ শিবিরে মহামারি আটকানোর জন্য সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

এছাড়া, কেরালাজুড়ে ৩ হাজার ৭০০টি চিকিৎসা শিবির তৈরি করা হয়েছে। আল-জাজিরা, এনডিটিভি