নিজস্ব প্রতিবেদক::

তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণে এবার আগ্রহ প্রকাশ করেছে কাতার। কাতারের এই আগ্রহের কথা জানিয়েছেন বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

দেশটির জ্বালানি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী সাদ সারিদা আল কাফি বুধবার সকালে প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করে এ আগ্রহের কথা অবহিত করেন।

সাক্ষাতের পর বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, কাতার সরকার বিশেষ করে এনার্জি সেক্টরে বিনিয়োগ করতে চায়। তারা পায়ারাতে বিনিয়োগ নিয়ে আসতে চাচ্ছে, সেখানে তারা ল্যান্ডবেইজ এলএনজি টার্মিনাল করতে আগ্রহী।

নসরুল হামিদ জানান, ইতিমধ্যে মাতারবাড়িতে যে এলএনজি টার্মিনাল হতে যাচ্ছে, যার জন্য টেন্ডার করা হয়েছে, সেখানেও কাতার দরপত্র জমা দিয়েছে। সে বিষয়েও তারা আলোকপাত করেছেন। এলএনজি বেইজ পাওয়ার প্ল্যান্ট এবং এলএনজি সাপ্লাইসহ তারা পুরো প্যাকেজে বিনিয়োগ করতে চায়।

প্রতিমন্ত্রী এক প্রশ্নে জবাবে বলেন, মাতারবাড়ি এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণে মোট ১২টি দরপত্র পড়েছে। এক্ষেত্রে কাতার এলএনজি পাওয়ার প্ল্যান্টে ইনভেস্টমেন্ট করবে, কেবল তাই নয়। তার সাথে গ্যাসও দিতে চায় এবং তাছাড়া তারা টার্মিনাল তৈরি করতে চায়। তিনি বলেন, এটি হবে একটা বড় ইনভেস্টমেন্ট ফর এ লং টাইম। সফররত কাতারের প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে নসরুল হামিদ আরও বলেন, আমি তাদেরকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের সুযোগগুলো বলেছি। তাদেরকে বলেছি যে ইকোনোমিক জোন থেকে শুরু করে অনেক ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে। কাতারের প্রতিমন্ত্রী কথা দিয়েছেন উনি দেশে যাওয়ার পরে সবার সঙ্গে বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করে আমাদের জানাবেন।

বাংলাদেশকে বিনিয়োগের জন্য তারা এখন সবচেয়ে সম্ভাবনাময় দেশ হিসেবে ভাবছে বলেও তিনি জানান। শিল্প কারখানায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এখন অফ সিজন.. আমি মনে করি ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল কমারশিয়াল গ্রোথটা আরেকটু দ্রুত ও বড় হওয়া উচিত..আমাদের মস্টারপ্ল্যান সেই বিবেচনায়ই করা হয়েছে।

এ বিষয়ে শিল্প মালিক ও প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তারাও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ চাচ্ছেন। তারা বলছেন, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পেলে গ্রোথ হবে। সেদিকেও চেষ্টা করা হচ্ছে এবং এজন্যই নতুন কমিটি বানিয়েছি। আগামি বছর হয়তো আরও ভালো হবে বলে প্রতিমন্ত্রী মন্তব্য করেন।