কালিয়াকৈর প্রতিনিধি::

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সাদ্যুল্লাপুর এলাকায় কয়েকটি পরিবার কয়েক যুগ ধরে দুধ থেকে বানানো হচ্ছে ছানা ও ঘি। ওই পরিবার জীবিকার তাগিদে গড়ে উঠেছে ক্ষুদ্র এ ব্যবসা। ব্যবসা করে গ্রামের যুবকদের বেকারত্ব দূর হচ্ছে ওই পরিবারে লোকজন।

ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা জানান, গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার সাদ্যুল্লাপুর এলাকায় কয়েকটি পরিবার কয়েক যুগ ধরে তৈরি করছে গ্রামের খাটি দুধ থেকে মিষ্টান্ন দ্রব্যের ছানা ও ঘি। পূর্ব পুরুষেরা জাতি ব্যবসা হিসেবে তারা এই ব্যবসা চালিয়ে আসছে। তারা বলিয়াদী বাজার, বেনুপুর, দেওয়ার বাজার, ধানতারা বাজার, আড়াইগঞ্জ বাজারসহ উপজেলার বিভিন্ন বাজার থেকে দুধ সংগ্রহ করে থাকে। এরপর ওই দুধ ক্রিম সেফারেট মেসিনের মাধ্যমে দুই ভাগে ভাগ করা হয় যার একটা দিয়ে তৈরি হয় ছানা ও অপরটি দিয়ে তৈরি হয় ঘি। তারা তাদের হাতের কলা-কৌশল, পরিশ্রমের ম্যাধমে দুধ থেকে তৈরি করছে ছানা ও ঘি। চাহিদা অনুযায়ী ও মানুষের শরীরের চর্বির কথা মাথায় রেখে এখানে তৈরি করা হয় নন ফ্র্যাক্ট ফুলফ্র্যাক্ট, হাফ-ফ্র্যাক্ট ছানা। এই ছানা দিয়ে চমচম, রসগোল্লা, কাটারি ভোগ, লেংচা, বালুসাই, কিংজাম, মালাইকারী সন্দেশ, সরমালাই সহ বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি তৈরি করা হয়। যা গ্রামের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করা হয়।এতে বেকারত্ব দূরিকরনের পাশা-পাশি দেশের পুষ্টি চাহিদা পূরনে ভূমিকা রাখছে এ ক্ষুদ্র ব্যাবসাটি।

ব্যবসায়ী বিপ্লব ঘোষ জানান, বিভিন্ন বাজার থেকে দুধ সংগ্রহ করে ঘি ও ছানা তৈরি করা হয়। সেই ছানা ও ঘি বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করা হয়। এতে আমাদের যে মুনাফা অর্জিত হয় তা দিয়ে আমরা সংসার চালাতে পারি। আর্থিক সুবিধা পেলে বড় আকারে ব্যবসা করিতে পারতাম। ঢালজোড়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আক্তারুজ্জামান বলেন, আমার ইউনিয়নে সাদ্যুল্লাপুর গ্রামে গরুর দুধ থেকে ছানা ও ঘি উৎপাদন করা হয় যার গুনগত মান ভাল।যা ভাল মানের মিষ্টি তৈরিতে সহযোগিতা করে থাকে।কালিয়াকৈর সহ বিভিন্ন অঞ্চলে এ সকল ছানা সরবরাহ করে থাকে।ঘি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলেসহ বিদেশে রপ্তনী করে অর্থনীতিতে যোগান দেয়।

উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান জানান, তাদেরকে যুব উন্নয়নের মাধ্যমে প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর বা কর্মসংস্থান ব্যাংকের মাধ্যমে অল্প সুদে ঋনের ব্যবস্থা করা হবে।