দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি॥ বর্ষার ভরা মৌসুমেও টানা অনাবৃষ্টি ও খরার কারনে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার কয়েক হাজার হেক্টর জমি অনাবাদী হওয়ার আশংকায় বিপাকে পড়েছে আমন চাষীরা।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর উপজেলার ১২ ইউনিয়নে উফসী জাতের ২২ হাজার ২৭৫, স্থানীয় জাতের ৫৮০ ও হাইব্রিড জাতের ২০০ হেক্টর মোট ২৩ হাজার ২৭৫ হেক্টর জমি আমন চাষের জন্য নির্ধারন করা হলেও বৃষ্টির অভাবে জমিতে পানি না থাকায় এখন পর্যন্ত ২০ হাজার হেক্টর জমিতে রোপা আমন লাগাতে পারেনি প্রায় ২৫ হাজার কৃষক। ফলে আমন উৎপাদন অনেকটাই ব্যাহত হওয়ার আশংকা রয়েছে। ইতিমধ্যে কিছু কিছু নীচু জমিতে সামান্য পরিমান পানি থাকায় ওইসব জমিতে রোপা আমন লাগা শেষ করেছে। কিন্তু বাকী জমিতে এখন পর্যন্ত রোপা লাগাতে না পেরে কৃষকরা হতাশায় দিনাতিপাত করছেন বৃষ্টির প্রতিক্ষায়। অনেকে বৃষ্টির অপেক্ষায় না থেকে শ্যালো মেশিন বা বৈদ্যুতিক সেচ পাম্পের সাহায্যে সেচ দিয়েও চারা রোপন করছেন।

ভুক্তভোগী অনেক চাষীর সাথে কথা বলে জানা যায়, অনাবৃষ্টির কারনে এখন পর্যন্ত এক চতুর্থাংশ জমিতে রোপা লাগানো সম্ভব হয়নি। সময়মতো চারা রোপন করতে না পারায় চারার বয়স বেশী হচ্ছে। আর বেশী বয়সী চারায় ধান উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক কম হওয়ার আশংকা থাকে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ মাহমুদুল হাসান জানান, আপাতত সম্পুরক সেচের মাধ্যমে আমন চারা লাগানোর জন্য কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে এবং সেইসাথে আগামী আগষ্ট মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত চারা রোপন করা যাবে বলেও কৃষকদের আশ্বস্ত করা হচ্ছে।