স্পোর্টস ডেস্ক::

রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে তাও লড়াই করে হেরেছিল খুলনা টাইটান্স। কিন্তু নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচের ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে লড়াই করতে পারল না মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।

মঙ্গলবার দিনের প্রথম ম্যাচে সাকিব আল হাসানের ঢাকার কাছে ১০৫ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে তারা। এটি ঢাকার টানা দ্বিতীয় জয়।

এদিন প্রথমে ব্যাট করতে নেমে হজরতুল্লাহ জাজাইর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৯২ রানের বড় সংগ্রহ গড়ে ঢাকা। জবাবে ১৩ ওভারে ৮৭ রান করেই গুটিয়ে যায় খুলনা। ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন জাজাই।

ঢাকার বড় রানের জবাবে শুরু থেকেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে খুলনা। ওপেনার জুনাইদ সিদ্দীকি ছাড়া আরে কেউই উল্লেখ করার মতো রান করতে পারেননি। এই ওপেনার ১৬ বলে ৩১ রান করে আউট হয়ে যান।

খুলনার হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান করেছেন আরিফুল হক। তিনি ১৯ রানে অপরাজিত ছিলেন। জুনাইদ ও আরিফুল ছাড়া দুই অংকের ঘরে যেতে পেরেছেন শুধু নাজমুল হাসান শান্ত। তিনি করেছেন ১৩ রান।

খুলনার ব্যাটিং লাইন আপ ধসে বল হাতে নেতৃত্ব দেন ঢাকার অধিনায়ক সাকিব। ব্যাট হাতে এদিন তিনি ব্যর্থ হলেও বল হাতে ছিলেন বেশ সফল। খুলনার মারকুটে ওপেনার পল স্টার্লিংকে (১) শুরুতেই ফিরিয়ে দেন সাকিব। ১৮ রান ব্যয়ে ৩ উইকেট নিয়েছেন তিনি। সুনিল নারিন নিয়েছেন ২ উইকেট। এছাড়া একটি করে উইকেট নিয়েছেন শুভাগত হোম ও মোহর শেখ।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে আগের ম্যাচে রাজশাহী কিংসের ওপর তাণ্ডব চালানো জাজাই এই ম্যাচেও তা অব্যহত রাখেন। তার ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ১০ ওভারেই শতরানের কোটা পার করে ফেলে ঢাকা। তবে ১২তম ওভারে এসে স্টার্লিংয়ের বল তুলে মারতে গিয়ে মিড উইকেটে আরিফুল হকের তালুবন্দী হয়ে যান এই আফগান। তার আগেই অবশ্য ৩৬ বলে ৫৭ রানের দুর্ধর্ষ একটি ইনিংস খেলে ফেলেন তিনি। মেরেছে ৫টি ছয় ও তিনটি চার।

অন্য ওপেনার সুনিল অবশ্য তার আগেই আউট হয়ে যান। ব্যক্তিগত ১৯ রানে ডেভিড উইসের বলে আলী খানকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান নারিন। তার ১৪ বলের ইনিংসটিতে ছিল ২টি ছক্কা ও একটি চারের মার। এরপর রনি তালুকদার এসেও চড়াও হন খুলনার বোলারদের ওপর। আউট হওয়ার আগে ২টি ছক্কা, ৩টি চারে সাজিয়ে ১৮ বলে ২৮ রান করেন তিনি।

এদিকে জাজাই আউট হওয়ার পরের বলেই স্টার্লিংয়ের দ্বিতীয় শিকার হন সাকিব। এদিন রানের খাতাই খুলতে পারেননি ঢাকার অধিনায়ক। শেষ দিকে ঢাকার রানের চাকা সচল রাখেন কিয়েরন পোলার্ড ও আন্দ্রে রাসেল। পোলার্ড ১৬ বলে ২৭ ও রাসেল ২২ বলে ২৫ রান করে আউট হয়েছেন।

এছাড়া শুভাগত হোম ৭ বলে ১১ ও নুরুল হাসান ৬ বলে ৯ রান করে অপরাজিত থাকেন। খুলনার হয়ে দুইটি করে উইকেট নিয়েছেন ডেভিড উইসে ও পল স্টার্লিং।