স্পোর্টস রিপোর্টার:: ব্রাজিল ও বেলজিয়ামের অদ্ভুত এক লড়াই আজ। কেমন সেটা? রাশিয়া টুর্নামেন্টে ব্রাজিল এখন পর্যন্ত মাত্র এক গোল খেয়েছে। সবচেয়ে কম। আর বেলজিয়াম টুর্নামেন্টে সবথেকে বেশি গোল দিয়েছে। ১২টি। টুর্নামেন্টের সবথেকে কম গোল খাওয়া দল ও সবথেকে বেশি গোল দেওয়া দলের লড়াই। একটু অদ্ভুত লড়াই তো অবশ্যই।

এগুলো পরিসংখ্যান, যেগুলো শুধু আত্মবিশ্বাস বাড়ায়, দেয় অনুপ্রেরণা। আসল ফুটবল তো মাঠেই। সেই মাঠের ফুটবলে বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় মাঠে নামছে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। প্রতিপক্ষ বেলজিয়াম। ভেন্যু ওই কাজান এরিনা।

হাঁটি হাঁটি পা পা করে বিশ্বকাপের শুরু থেকে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে সেলেসাওরা। আর বেলজিয়াম উড়ছে শুরু থেকে। গ্রুপ পর্বের প্রথম তিন জয়ের পর প্রি-কোয়ার্টারেও তাদের দাপট। এখন পর্যন্ত কোনো ম্যাচ হারেনি, ড্র করেনি। ব্রাজিল একটা ড্র করলেও তারা গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যতটুকু স্বস্তি মিলেছিল আজ সেই স্বস্তি দ্বিগুন করার ম্যাচ। আজ জিতলেই সেমিফাইনাল।

নক আউটের মঞ্চে কেউ কাউকে ছাড় দিবে না সেটা প্রত্যাশিত। আক্রমণভাগ, রক্ষণ সবকিছুতেই থাকবে উত্তেজনা। সেই উত্তেজনা দুই দলের বিশেষ দুই খেলোয়াড়কে নিয়ে। ব্রাজিলের নেইমার আর বেলজিয়ামের হ্যাজার্ড। দুজন দুই দলের বড় তারকা। ম্যাচের ব্যবধান এই দুইজন একাই গড়ে দিতে পারেন। হ্যাজার্ড দুর্দান্ত ফর্মে থাকলেও নেইমার নিজেকে ফিরে পেয়েছেন সবেমাত্র। প্রি-কোয়ার্টার নেইমার ছিলেন দুরন্ত। চিনচেনা রূপে ফিরে বিশ্বের দামী এ খেলোয়াড় নিজের জাত চিনিয়েছেন। কোয়ার্টারে এমন পারফরম্যান্স ধরে রাখবে বলে বিশ্বাস ব্রাজিলের কোচ তিতের।

টানা সপ্তমবারের মতো বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলছে ব্রাজিল। কিন্তু শেষ তিন আসরে দুবারই কোয়ার্টার থেকৈ বাদ পড়ে ইউরোপের দুই দলের কাছে হেরে। ২০০৬ সালে তাদেরকে হারিয়েছিল ফ্রান্স। ২০১০ সালে নেদারল্যান্ডস হারিয়েছিল সেলেসাওদের। আর নিজেদের মাঠে সেমিফাইনালে গেলেও জার্মানি তাদেরকে বিধ্বস্ত করেছে। ইউরোপের দলগুলোর বিপক্ষে বিশ্বমঞ্চে একাধিক সাফল্য থাকলেও তাদের বিপক্ষেই রেকর্ড খারাপ পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নদের।

চার মুখোমুখিতে বেলজিয়ামের বিপক্ষে তিন জয় ব্রাজিলের। বেলজিয়ামের জয় অপর একটিতে। কাগজে কলমে দুই দলই শক্তিশালী। তাই পরিসংখ্যান নিয়ে মাথা ব্যথা নেই কারো।

বেলজিয়ামের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে সুখবর পেয়েছে ব্রাজিল। ইনজুরির কারণে শেষ ম্যাচে না থাকা মার্সেলো এখন পুরোপুরি সুস্থ। তবে তাকে শুরু থেকে দেখা যাবে কিনা তা নিশ্চিত করেননি তিতে। বলেছেন,‘শেষ দুই ম্যাচে ফিলিপে লুইস ভালো খেলেছে। আমরা তার পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট। একই সাথে মার্সেলো ফিরে এসেছে।’ এদিকে কার্ড জটিলতা বাঁচামরার ম্যাচে খেলতে পারছেন না কাসেমিরো। তার পরিবর্তে খেলতে পারেন ফার্নানদিনহো।

বেলজিয়াম টানা ২২ ম্যাচ হারেনি। জাপানের বিপক্ষে ২-০ গোলে পিছিয়ে থেকেও জয় নিয়ে শেষ আটের টিকিট কাটে দলটি। হ্যাজার্ড, লুকাকু, ফেলানিরা রয়েছে দুর্দান্ত ফর্মে। তাদের হাল্কাভাবে নিচ্ছেন না তিতে। তা স্পষ্ট করেই জানিয়েছেন গতকাল।

কাজান এরিনা ফুটবল পরাশক্তিদের জন্য ‘অভিশপ্ত’ স্টেডিয়াম। এ মাঠেই কোরিয়ার কাছে হেরে বিদায় নিয়েছে জার্মানি। ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ গোলে হেরে আর্জেন্টিনা এ মাঠ থেকেই বিদায় নিয়েছে। এবার কি নেইমারদের পালা? উত্তর জানতে অপেক্ষা করতে হবে শুক্রবার রাত পর্যন্ত।