স্পোর্টস রিপোর্টার:: শুধু লড়াই নয়, বড় পরীক্ষা! বৃহস্পতিবার রাতে জ্যামাইকার স্যাবাইনা পার্কে শুরু হচ্ছে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও বাংলাদেশের মধ্যকার সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। অ্যান্টিগা টেস্টে বিধ্বস্ত হওয়া টাইগারদের জন্য যে লড়াই পরীক্ষার চেয়েও বেশি কিছু। ১-০ তে পিছিয়ে থাকা টাইগারদের জন্য যা সিরিজ বাঁচানোর টেস্ট। কিন্তু সিরিজ বাঁচানো শব্দটা যে উধাও এবার। বরং বাংলাদেশ নতজানু চেহারা থেকে লড়াকু দল হিসেবে ফিরুক এটিই চায় সবাই। বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হবে টেস্ট। খেলা দেখাবে চ্যানেল নাইন ও গাজী টিভি।

অ্যান্টিগা টেস্টে যা হয়েছে তা মনে রাখলে হিতে বিপরীতই হতে পারে। যদিও ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হলে সেই টেস্টে ফিরতেই হবে। বাংলাদেশ মাত্র আড়াই দিনে হেরে যায় সে ম্যাচে। ব্যাবধান- ইনিংস ও ২১৯ রান। এতো টুকুতেই শেষ নয়। প্রথম ইনংসে ৪৩ রানে অলআউট হয়ে নিজেদের ইতিহাসে সবচেয়ে কম রানে গুটিয়ে যাওয়ার লজ্জায় পুড়েছে সাকিব আল হাসানের দল। ক্যারিবিয়রা তাদের প্রথম ইনংসে ৪০৬ রান করার পর দ্বিতীয় ইনিংসে টাইগারদের ব্যাটিংয়ে ছিল একই পুনরাবৃত্তি। শেষ পর্যন্ত অবশ্য ১৪৪ রান করতে পেরেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু পরাজয়টা সেই বিশাল ব্যবধানেই।

অ্যান্টিগা টেস্টে আসলে ক্যারিবিয় গতি আর বাউন্সে পরাস্ত ছিল টাইগাররা। প্রথম ইনংসে ক্রেমার রোচ তাণ্ডব চালান। সঙ্গে জেসন হোল্ডার ও মিগুয়েল কামিন্স। দ্বিতীয় ইনিংসে রোচ অবশ্য বোলিংই করেননি। ৫ উইকেট নেওয়ার পরই প্রথম ইনিংসে ইনজুরিতে পড়েছিলেন। কিন্তু তার অভাব বুঝতে দেননি স্যানন গ্যাব্রিয়েল, হোল্ডার, কামিন্সরা। যে উইকেটে ক্যারিবিয় পেসাররা আগুনের গোলা ছুঁড়েছেন, সেই উইকেটেই আবার নির্লিপ্ত ছিলেন বাংলাদেশের পেসাররা। এ ম্যাচে তাই এই দিকগুলো মাথায় রাখলেই হলো। ব্যর্থতা থেকে বেরিয়ে আসার পথ যদি তবে মিলে।

ইনজুরিতে পড়া ক্রেমার রোচ খেলতে পারছেন না এই টেস্টে। তাতে বাংলাদেশ দল খানিক স্বস্তি পেতেই পারে। রোচের বদলি হিসেবে এ ম্যাচে খেলবেন আলজারি জোসেফ। তবে প্রতিপক্ষের চেয়ে তো ভাবতে হবে বাংলাদেশকে নিজেদের নিয়েই। জ্যামাইকাতে বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান অবশ্য ট্রু উইকেট প্রত্যাশা করছেন। অ্যান্টিগার চেয়ে গতি এবং বাউন্সের দিক থেকে সামঞ্জস্যপূণ্য উইকেট হতে পারে বলে তার মত।

বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ- কিংবদন্তি কোর্টনি ওয়ালশের স্বদেশ আবার এই জ্যামাইকা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সোনালী দিনের এই সারথী আবার ভিন্ন কিছুই চাইছেন। সাবেক এই গতি দানব ক্যারিবিয় উইকেটে গতি, বাউন্স ও ঘাস ফিরেছে বলে খুশি। জ্যামাইকাতেও অ্যান্টিগার মতো উইকেট চান তিনি। তবে সেখানে নিজেদের পরিকল্পনা কাজে লাগিয়ে রুবেল হোসেন, কামরুল ইসলাম রাব্বি ও আবু জায়েদ রাহিরা ভালো করবেন বলেই বিশ্বাস তার।

অধিনায়ক সাকিব আল হাসান টেস্ট নিয়ে বলেন, ‘এটি অবশ্যই আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি টেস্ট। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিভাবে আমরা খেলাটা শুরু করব। সেটা প্রথমে বল বা ব্যাটিং যেটাই হোক না কেন। আমাদের প্রত্যেক সেশনে জিততে হবে এবং সেটি করতে পারলেই আমাদের ম্যাচে জয় সম্ভব।’

এ ম্যাচে মাঠে নামলে দেশের পক্ষে সর্বোচ্চ টেস্ট খেলার মালিক হবেন মুশফিকুর রহিম। মোহাম্মদ আশরাফুলের ৬১ টেস্ট খেলার কীর্তি ছাপিয়ে মাইলফলকটা শুধু নিজের করে নিবেন। সব ঠিক থাকলে অপরিবর্তিত একাদশ নিয়েই হয়তো মাঠে নামতে পারে টিম বাংলাদেশ।