স্পোর্টস ডেস্ক:: ৫ ম্যাচ সিরিজে এটিই ছিল সবচেয়ে প্রতিযোগিতামূলক। আর তাতেই পাকিস্তান জিতেছে ১৩১ রানে। এই দুটি লাইনেই বোঝা যায়, কিভাবে এই সিরিজে স্বাগতিক জিম্বাবুয়েকে গুঁড়িয়ে দিয়েছে পাকিস্তান।

রোববার সিরিজের শেষ ম্যাচে পাকিস্তান প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেটে করে ৩৬৪ রান। জবাবে জিম্বাবুয়ে করে ৪ উইকেটে ২৩৩ রান।

জোড়া সেঞ্চুরিতে শেষ ম্যাচেও রানের পাহাড় পাকিস্তানের
জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে সিরিজের শেষ ও পঞ্চম একদিনের ম্যাচেও আগে ব্যাট করে রানের পাহাড় গড়েছে পাকিস্তান। নির্ধারিত পঞ্চাশ ওভারে তারা তুলেছে চার উইকেটে ৩৬৪ রান। উদ্বোধনী জুটিতে ইমাম উল হক ও ফখর জামানের দুর্দান্ত সূচনার পর ব্যাট হাতে ঝড় তুলেছেন আরেক ইনফর্ম ব্যাটসম্যান বাবর আজম। ফখরের বিদায়ের পর ক্রিজে আাসা বাবার ৭৬ বলে খেলেছেন অপরাজিত ১০৬ রানের ইনিংস।

জিম্বাবুয়েকে হোয়াইট ওয়াশ করার লক্ষ্য নিয়ে এই ম্যাচে মাঠে নেমেছিলো সরফরাজ আহমেদের দল। দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান দলটিকে এনে দেন উড়ন্ত সূচনা। ২৫ ওভারে ১৬৮ রান তোলে এই জুটি। ব্যাক্তিগত ৮৫ রানে আগের ম্যাচের ডাবল সেঞ্চুরিয়ান ফখর জামান ফিরে গেলও ইমাম উল হক পেয়েছেন ব্যাট টু ব্যাক সেঞ্চুরি। আগের ম্যাচে ১১৩ রানের ইনিংস খেলা ইমাম আজ আউট হয়েছে ১০৫ বলে ১১০ রান করে। আর তাকে সঙ্গ দিতে আসা বাবর আজমও যেন আগের ম্যাচগুলোতে ব্যাট করতে না পারার ক্ষোভটা ঝেড়েছেন জিম্বাবুয়ের বোলারদের ওপর।

স্বভাবসুলভ ধীরস্থির ব্যাটিংয়ের খোলস ছেড়ে বাবর এদিন ছিলেন মারমুখী ভঙ্গিতে। ৫৫ বলে হাফ সেঞ্চুরি করা বাবর সেখান থেকে সেঞ্চুরিতে পৌছতে খরচ করেছেন মাত্র ২২টি বল। ইনিংসে ছিলো ৯টি চার ও দুইটি ছক্কা। বাবরের ক্যারিয়ারের অষ্টম ওয়ানডে সেঞ্চুরি এটি। আর এতে ভর করেই পাকিস্তান পৌছে যায় ৩৬৪ রানের পাহাড়ে।

ভিভকে ছাড়িয়ে গেলেন ফখর
গত বছর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে তার চওড়া ব্যাটে ভর করেই প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল পাকিস্তান। ভারত পর্যুদস্থ হয়েছিল তার কাছে। তারপর থেকেই দারুণভাবে নজর কেড়েছেন পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান ফখর জামান। গত সপ্তাহেই প্রথম পাকিস্তানি ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডে-তে ডাবল সেঞ্চুরি করে নজির গড়েন। এবার ব্যাট হাতে ছাপিয়ে গেলেন কিংবদন্তি ভিভ রিচার্ডসকেও।

রোববার জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে পঞ্চম একদিনের ম্যাচে বিশ্বের দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে এক হাজার রানের মাইলস্টোন ছুঁয়ে ফেললেন ফখর। আর সেই সঙ্গে ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি ভিভ রিচার্ডস, ইংলিশ ব্যাটসম্যান কেভিন পিটারসেন ও জোনাথান ট্রট, প্রোটিয়া তারকা কুইন্টন ডি কক এবং সতীর্থ বাবর আজমকে টপকে দ্রুততম হাজার রানপ্রাপকদের তালিকায় শীর্ষস্থান দখল করলেন তিনি। প্রত্যেকেই ব্যক্তিগত ২১ তম ইনিংসে এই মাইলফলক ছুঁয়েছিলেন। তবে ১৮ টি ইনিংস খেলেই এই সাফল্য স্পর্শ করলেন পাক ওপেনার। ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি ২৪ টি ইনিংস খেলে এক হাজার রান করেছিলেন।

মাঠে নামার আগে ইতিহাস গড়া থেকে মাত্র ২০ রান দূরে ছিলেন ফখর। বাউন্ডারি হাঁকিয়েই ইতিহাসে নাম লেখান পাক ওপেনার। এদিন ৮৫ রান করে ফেরেন প্যাভিলিয়নে। তবে শুধু একটা নয়, একই দিনে আরো একটি রেকর্ড ঝুলিতে ভরেন ফখর। প্রথম পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান হিসেবে ওয়ানডে সিরিজে ৫০০-র বেশি রান করার নজিরও গড়লেন এই তরুণ। এর আগে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে সর্বোচ্চ ৪৫১ রান করেছিলেন পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান সালমান বাট।

গত সপ্তাহেই সাবেক পাকিস্তানি তারকা সাইদ আনোয়ারের ১৯৪ রানের রেকর্ডকে পিছনে ফেলে প্রথম পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান হিসেবে ওয়ানডে-তে দ্বিশতরান করেন ফখর। যে তালিকায় তার সঙ্গে রয়েছেন বিশ্বের মাত্র পাঁচজন ব্যাটসম্যান। স্বপ্নের ফর্মে রয়েছেন ২৮ বছরের ব্যাটসম্যান। দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দিয়েই বিশ্ব ক্রিকেট মহলের প্রশংসা কুড়োচ্ছেন। সাবেকরা তাকে উৎসাহ দিয়ে বলছেন, এখন শুধুই এগিয়ে যাওয়ার পালা।