স্পোর্টস ডেস্ক:: বাংলাদেশ ক্রিকেটে ১০ জানুয়ারি এক ঐতিহাসিক দিন। দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে এদিন প্রথম টেস্ট জয়ের স্বাদ পেয়েছিল বাংলাদেশ। ২০০৫ সালের ১০ জানুয়ারি জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ২২৬ রানের বড় ব্যবধানে প্রথম টেস্ট জিতেছিল টাইগাররা।

বাংলাদেশের টেস্ট অভিষেক হয়েছিল ২০০০ সালের ১৩ নভেম্বর ভারতের বিরুদ্ধে। ওই টেস্টের প্রথম ইনিংসে আমিনুল ইসলাম বুলবুলের ১৪৫ রানের ভর করে জয়ের স্বপ্ন দেখলেও দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং ব্যর্থতায় ভারতের কাছে ৯ উইকেটে হারতে হয়েছিল টাইগারদের। পরের ৫ বছরেও কোন জয় না পাওয়ায় বাংলাদেশের টেস্ট মর্যাদা নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়।

অবশেষে সুদিনের দেখা মিলে বাংলাদেশের। ২০০৫ সালের ১০ জানুয়ারি। চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টে প্রথম ইনিংসে তখনকার সময়ে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহটা পেয়েছিল হাবিবুল বাশারের দল। জিম্বাবুয়ের বোলিং আক্রমণ সামলে ৪৮৮ রানের পাহাড় সমান পুঁজি দাঁড় করায় টাইগাররা। অধিনায়ক হাবিবুল বাশার করেন ৯৪ রান, রাজিন সালেহ ৮৯।

জবাব দিতে নেমে মোহাম্মদ রফিকের ঘুর্ণি আর মাশরাফি বিন মর্তুজার গতিতে ৩১২ রানেই গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ের প্রথম ইনিংস। রফিক ৬৫ রানে ৫টি, মাশরাফি ৫৯ রানে নেন ৩ উইকেট।

১৭৬ রানের বড় ব্যবধানে এগিয়ে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংসে তাড়াহুড়ো করে ৯ উইকেটে ২০৪ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে দেয়। এবারও হাবিবুল বাশার খেলেন ৫৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ এক ইনিংস। জিম্বাবুয়ের সামনে জয়ের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৮১ রানের।

এত বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে এবার এনামুল হক জুনিয়রের বোলিং তোপে পড়ে জিম্বাবুয়ে। বাঁহাতি এই পেসার একাই ৬ উইকেট নিয়ে সফরকারিদের গুটিয়ে দেন ১৫৪ রানে। মাশরাফি আর তাপস বৈশ্য নেন ২টি করে উইকেট।

প্রথম টেস্ট জয়ের পর উজ্জীবিত বাংলাদেশ টেস্ট ইতিহাসে নিজেদের প্রথম সিরিজ জয়ও পায় ওই সিরিজে। দ্বিতীয় টেস্টে ড্র করে ১-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নেয় হাবিবুল বাশারের দল।