স্পোর্টস ডেস্ক:: রাশিয়া বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়লো ইউরোপের পরাশক্তি ও ৪ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইতালি। ব্রাজিলের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বিশ্বকাপজয়ী এই দলটি প্রায় ৬০ বছর পর বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের সবচেয়ে জমজমাট আসরে খেলার সুযোগ হারাল।

এ যেনো বিশ্বকাপ শুরুর আগেই বড়সড় একটি অঘটন। বাংলাদেশ সময় সোমবার মধ্যরাতে দ্বিতীয় রাউন্ডে প্লে-অফ ম্যাচে সুইডেনের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করে ইতালি।

এর আগে সুইডেনের বিপক্ষে প্রথম লেগের লড়াইয়ে ১-০ গোলে হেরেছিল ইতালি। এর ফলে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে জায়গা করে নিয়েছে সুইডেন। এর আগে ২০০৬ সালের বিশ্বকাপে তারা শেষবারের মতো অংশ নিয়েছিল ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসরে।

দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে খেলতে নামার আগে সমীকরণ ছিল বিশ্বকাপের মূলপর্বে জায়গা করে নেয়ার জন্য ইতালিকে জিততে হতো ২-০ গোলের ব্যবধানে। কিন্তু অনেকগুলো সুযোগ পেয়েও কোনো গোল না করতে পেরে ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়।

খেলায় দুই তৃতীয়াংশ সময়ই ইতালির নিয়ন্ত্রণে ছিল। প্রথম থেকেই অতিমাত্রায় আক্রমণাত্মক ফুটবল খেললেও ডি বক্সে এসে যেন খেই হারিয়ে ফেলেন স্ট্রাইকাররা। অন্তত দশটি সুযোগ পেয়েছিলেন। যেগুলোর মধ্যে অন্তত দুটি সুযোগ কাজে লাগিয়ে তারা বিশ্বকাপের মূলপর্ব নিশ্চিত করার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু কোনো সুযোগই তারা কাজে লাগাতে পারেনি। এক্ষেত্রে সুইডেনের রক্ষণভাগকেও প্রশংসা করতেই হবে। বিশেষ করে গোলকিপার আজ অসাধারণ খেলেছেন।

এর আগে প্রথম লেগে সুইডেনের মাঠে প্রথমার্ধের খেলায় ছিল গোলশূণ্য সমতা। দ্বিতীয়ার্ধে, ৬১ মিনিটের মাথায় দলকে এগিয়ে দেন সুইডেনের মিডফিল্ডার জ্যাকব জোহানসন। এই গোলটাই পরে আর শোধ করতে পারেনি ইতালি। মাঠ ছাড়তে হয়েছে ১-০ গোলের হতাশাজনক হার নিয়ে।

প্রসঙ্গত, ১৯৩৪ ও ১৯৩৮ সালে টানা দুইবার বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইতালি। ১৯৮২ সালে তারা জিতেছিল তৃতীয় শিরোপা। আর ২০০৬ সালে শেষবারের মতো বিশ্বকাপ জিতেছিল ইতালি। ১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপে দেখা যায়নি ইতালিকে। ১৯৩০ সালের প্রথম বিশ্বকাপে তারা নিজেরাই অংশ নেয়নি।