স্পোর্টস ডেস্ক:: আবারও স্বমহিমায় উজ্জ্বল কিলিয়ান এমবাপ্পে। পায়ে ফোটালেন ফুটবলের শৈল্পিক ফুল। দুর্দান্ত ফুটবল উপহার দিলেন তিনি। করলেন অনন্য হ্যাটট্রিক। এতেই ক্ষ্যান্ত হননি ১৯-এর বিস্ময়। লিওঁর জালে দিলেন এক হালি গোল। এতে ফরাসি লিগ ওয়ানে প্রতিপক্ষকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে পিএসজি। বাকি গোলটি করেন আরেক ত্রাস নেইমার।

প্যারিসে দাপুটে শুরু করে পিএসজি। ৯ মিনিটে সফল স্পট কিকে দলকে লিড এনে দেন নেইমার। লিওঁর ডি-বক্সে এমবাপ্পে গুরুতর ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। সেটি থেকে নিশানাভেদ করতে মোটেই ভুল করেননি ব্রাজিলীয় ফরোয়ার্ড। এ নিয়ে লিগে ৮ গোল করলেন তিনি। সব মিলিয়ে চলতি মৌসুমে ১১। পিএসজির গোলোৎসবের শুরুটা সেখান থেকেই।

এগিয়ে গিয়ে আত্মবিশ্বাসী ফুটবল খেলার কথা ছিল পিএসজির। কিন্তু ঘটেছে ঠিক উল্টোটি। বাজে ফুটবলের প্রদর্শনী দেখান দ্য পারিসিয়ানরা। সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি লিওঁও। দুদলই ফাউল আর কার্ডের খেলায় মেতে ওঠে।

এর প্রথম ধাক্কাটা খায় পিএসজি। ৩৩ মিনিটে লিওঁর এনদোম্বেলেকে ফাউল করে লালকার্ড দেখেন প্রেসনেল কিম্পেম্বে। ৫ মিনিট পর হলুদকার্ড দেখেন নেইমার। খানিক পর মার্কো ভেরাত্তিকে হলুদকার্ড দেখান রেফারি। বিরতির বাঁশি বাজার ঠিক আগে দ্বিতীয় হলুদকার্ড দেখেন লিওঁর লুকাঁ। এতে দুদলই ১০ জনে নেমে আসে।

এর পর দৃশ্যপটে এমবাপ্পের অবতারণা। তার জাদুতে তাল হারিয়ে ফেলে লিওঁ। ৮ মিনিটের ব্যবধানে হ্যাটট্রিক করে জয় অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলেন তিনি। ৬১ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন এমবাপ্পে। তাতে ছিল নেইমারের ছোঁয়া।

৬৬ মিনিটে মার্কিনি হোসের পাস ধরে বল জালে জড়ান রাশিয়া বিশ্বকাপের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়। আর ৬৯ মিনিটে পাল্টা আক্রমণ থেকে ঠিকানায় বল পাঠিয়ে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন তিনি। এতেই ক্ষ্যান্ত হননি এমবাপ্পে। ৭৪ মিনিটে সফল লক্ষ্যভেদে অতিথিদের কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকেন তিনিই। এ নিয়ে এবারের লিগে তার গোলও হল আটটি। শেষ পর্যন্ত ৫-০ গোলের বিশাল জয়ে পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষস্থান ধরে রাখার আনন্দ নিয়ে মাঠ ছাড়েন থমাট টুখেলের শিষ্যরা।