স্পোর্টস ডেস্ক::

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরের ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। আগামীকাল শুক্রবার দুই দলের সামনেই শিরোপা পুনরুদ্ধারের সুযোগ। সেই মিশনে উপভোগের মন্ত্রে ট্রফি জিততে চায় কুমিল্লা।

বিপিএলের প্রথম দুই আসরের পর চতুর্থ আসরে সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে তৃতীয় শিরোপা জিতেছিল ঢাকা। অন্যদিকে তৃতীয় আসরে মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বে নিজেদের প্রথম শিরোপা ঘরে তোলে কুমিল্লা। এবার ঢাকাকে হারিয়ে অধিনায়ক ইমরুল কায়েসের সুযোগ আরও একটি শিরোপা যোগ করার।

বৃহস্পতিবার কঠোর অনুশীলন করেছেন কুমিল্লার ক্রিকেটাররা। অনুশীলন শুরুর আগে নিজেদের স্নায়ু ধরে রেখে উপভোগের মন্ত্রে শিরোপা জেতার কথা জানিয়েছেন অধিনায়ক ইমরুল। তার কথায়, ‘মাঠে স্নায়ু ধরে রাখতে হবে। বাইরের পরিকল্পনাগুলো মাঠে বাস্তবায়ন করতে পারলে সফল হওয়া যাবে। বেশি রোমাঞ্চিত হলে সুযোগ কমে যাবে। দলের মিটিংয়েও আমরা এই আলোচনা করেছি। মাঠে খেলাটা উপভোগ করতে পারলে সাফল্য পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকবে।’

ঢাকার বিপক্ষে জিততে হলে টুর্নামেন্টের সেরা ক্রিকেটটাই খেলতে হবে কুমিল্লাকে। মিরপুরের ফাইনালে ভালো খেলতে আত্মবিশ্বাসী ইমরুল, ‘আমি বেশ খুশি, কারণ আমরা প্রথম থেকে ফাইনাল পর্যন্ত বেশ ভালো ক্রিকেট খেলেছি। প্রত্যেক ক্রিকেটার মন থেকে চেয়েছে আমরা ফাইনাল খেলব। তবে শিরোপা জিততে ভাগ্যও লাগে। আমাদের চেষ্টা করতে হবে সেরা ক্রিকেট খেলার। ওদের (ঢাকা) বিপক্ষে জিততে হলে সেরা ক্রিকেট খেলতে হবে।’

২০১৫ সালে মাশরাফির নেতৃত্বে কুমিল্লা প্রথমবারের মতো বিপিএলের শিরোপা জিতেছিল। ওই দলের সদস্য ইমরুল এবার কুমিল্লায় অধিনায়কের ভূমিকায়। এবারের প্রাপ্তিটা তার জন্য হবে অন্যরকম, ‘কেবল আমিই না, প্রতিটি খেলোয়াড়ই চায় শিরোপা জিততে। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অনুভূতি আমি একবার পেয়েছি। আশা করি সবাই পরিকল্পনা মতো ক্রিকেট খেললে শিরোপা জিততে পারব।’

ঢাকার মতো কুমিল্লাতেও অলরাউন্ডারের ছড়াছড়ি। অলরাউন্ডার প্রসঙ্গে ইমরুলের বক্তব্য, ‘অলরাউন্ডার দলে বেশি থাকলে শক্তিও অনেক বেড়ে যায়। কারণ ব্যাটিং কিংবা বোলিংয়ে তাদের ব্যবহার করার সুযোগ বেশি থাকে। সাইফউদ্দিন, শহীদ আফ্রিদি, থিসারা পেরেরা- তিনজন অলরাউন্ডার আমাদের আছে। ফাইনালে তাদের পারফরম্যান্স অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি তারা তাদের কাজটা ঠিকমতো করতে পারবে।’