নিজস্ব প্রতিবেদক::

সহযোগী সংগঠনের নেতাদের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে বিব্রত আওয়ামী লীগ। এ বিষয়ে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর মনোভাবকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন দলটির নীতিনির্ধারকরা। একই সঙ্গে ছাত্রলীগ-যুবলীগের মতো আওয়ামী লীগেও শুদ্ধি অভিযানের পক্ষে তারা।

ক্ষমতাসীন দলের এসব নীতিনির্ধারক প্রায় একই সুরে বৃহস্পতিবার বলেন, জাতীয় সম্মেলনের আগে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলোয় গুণগত পরিবর্তন আনতে কঠোর অবস্থানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজ, দুর্নীতিবাজ-টেন্ডারবাজসহ অপকর্মের সঙ্গে যুক্তদের দলে জায়গা হবে না বলে হুশিয়ারিও উচ্চারণ করেছেন তিনি। তার ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির অংশ হিসেবে ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদ থেকে শোভন-রাব্বানীকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।

আইনি ব্যবস্থা নেয়া শুরু হয়েছে যুবলীগের ‘বিতর্কিত’ নেতাদের বিরুদ্ধেও। দলের আসন্ন সম্মেলনে কমিটির সব স্তরে স্বচ্ছ ভাবমূর্তি এবং জনপ্রিয় নেতাদের দিয়ে একটি শক্তিশালী ও গ্রহণযোগ্য দল গড়তেই এই সিদ্ধান্ত। এই অবস্থান থেকে পিছু হটার কোনো সুযোগ নেই।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান বৃহস্পতিবার বিকালে বলেন, এটা নতুন কিছু নয়। অতীতেও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বর, ক্যাবিনেট সদস্য, দলীয় সংসদ সদস্যসহ অনেকের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আমরা গণতন্ত্র ও সুশাসনের কথা বলেছি এবং তা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এছাড়া কোনো নেতা যখনই সংগঠনবিরোধী কাজ করেছে, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

এই ধারাবাহিকতায় ছাত্রলীগ-যুবলীগসহ যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এটিকে হঠাৎ করে ‘যুদ্ধ অভিযান’ বলা যাবে না। তিনি আরও বলেন, দলে শৃঙ্খলা ফেরাতে এবং দলকে শক্তিশালী করার পক্রিয়ার অংশ হিসেবেই এটা হচ্ছে।

একই বিষয়ে দলের আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, আমি খুবই বিব্রতবোধ করি। এটা কোনো দিনই আমরা আশা করি না- দলের নেতাকর্মীরা এই ধরনের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হবে।

তিনি আরও বলেন, কার্পেট দিয়ে ঢেকে রাখলেই তো আর ধুলা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে না। তাই নেত্রী (শেখ হাসিনা) যে সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছেন, এটা সবার জন্য ভালো।

সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতারা কোথায় কী করছেন, তা দলের বিভিন্ন সূত্র এবং একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে নিয়মিত মনিটরিং করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তাদের অনেকের আমলনামা নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করছেন তিনি। এ ব্যাপারে বিতর্কিতদের একাধিকবার সতর্ক করেছিলেন, অনেকেই নিজেদের শুধরে নিচ্ছেন। তবে অনেকেই বেপরোয়া জীবনযাপনই করছেন। সে কারণেই তিনি এখন ‘অ্যাকশন’ শুরু করেছেন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, এখানে কে কোন দল করে বা না করে, তার ওপর ভিত্তি করে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

দলের নাম ভাঙ্গিয়ে বা পরিচয়ে এটা হয়তো বিস্তার করছে। কিন্তু সরকার বা আওয়ামী লীগ এটিকে কখনোই প্রশ্রয় দেয় না। তিনি আরও বলেন, এখান থেকে পিছু হটার কোনো সুযোগ নেই।

কারণ এখান থেকে পিছু হটলে সরকারের আন্তরিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। সরকারের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। আর নিজের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন উঠবে, সেরকম কোনো কাজ তো সরকার করবে না।

এদিকে এ বিষয়ে বুধবার আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগে অপকর্ম হয়নি, কেউ করেনি এটা বলি না। অপকর্ম হলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিই। এটা অন্তত আওয়ামী লীগে হয়, অন্য কোনো দল ব্যবস্থা নেয় না। বিএনপিও ব্যবস্থা নেয় না।