বশির আহমেদ, বান্দরবান প্রতিনিধি::

বান্দরবান সদর উপজেলার রাজবিলা ইউনিয়নের জামছড়ি এলাকায় পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে নিহতের ঘটনায় সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে পার্বত্য নাগরিক পরিষদ বান্দরবান জেলা কমিটির উদ্যোগে মুক্ত মঞ্চের সামনে বিশাল মানববন্ধন ও প্রতিবাদ, সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে বান্দরবান সদরে মুক্ত মঞ্চের সামনে এ বিশাল মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন পার্বত্য নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি কাজী মোঃ মজিবুর রহমান, প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জনাব আলমগীর কবির, উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা এডভোকেট কাজী নাসিরুল আলম, উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন তারুমিয়াসহ বান্দরবান জেলা নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কাজী মজিবুর রহমান বলেন, আমাদের পার্বত্য জেলাকে বিচ্ছিন্ন করার ষড়যন্ত্র হচ্ছে সন্তু লারমার নেতৃত্বে এই পার্বত্য জেলা কে জুমল্যান্ড বানাতে চাই তারা জুমল্যান্ডের পতাকা বানিয়েছেন। তারা টাকার নমুনা বানিয়েছেন তারা রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যন্ত ঠিক করে রেখেছেন বলে একটি রেকর্ড ফাইল জনতার উদ্দেশ্যে তিনি দেখান।

কাজী মুজিব বলেন, এক বিন্দু রক্ত থাকতে আমরা অবৈধ দাবি দাওয়া মানিনা, আমরা রাজার প্রথা বাতিল চাই, একদেশে দুই আইন চলতে পারেনা, বাংলাদেশের রাজা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার হস্তক্ষেপ চাই পার্বত্য এলাকায়।

তিনি বলেন, পার্বত্য এলাকার সন্ত্রাসীদের হাতে অত্যাধুনিক অস্ত্র রয়েছে, এই অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করতে হবে, পার্বত্য এলাকায় সেনাবাহিনী, পুলিশ ও বিজিবিকে প্রয়োজনে হেলিকপ্টার দিয়ে পার্বত্য এলাকার সন্ত্রাসীদের হাত থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করার দাবী জানান।

প্রধান বক্তা আলমগীর কবির বলেন, প্রয়োজনে জীবনের রক্ত দিয়ে হলেও পার্বত্য চট্টগ্রামকে বাংলাদেশের অংশ থেকে বিচ্ছিন্ন হতে দেবনা। শান্তিচুক্তির অবৈধ ধারাগুলি বাতিল করতে হবে। আমরা সমান অধিকারের ভিত্তিতে বসবাস করতে চাই।আমরা পার্বত্য এলাকাবাসী সমান অধিকার নিয়ে বসবাস করতে পারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিকট সেই দৃষ্টি কামনা করছি।