বশির আহমেদ,বান্দরবান প্রতিনিধি::

সামনেই পবিত্র ঈদুল ফিতর, আর ঈদুল ফিতরের এই বন্ধে ভ্রমন পিপাসু মানুষ ছুটে যায় বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্রে। প্রতিবছরের মত এবার ও তাই পার্বত্য জেলা ও পর্যটন শহর বান্দরবান প্রস্তুত রয়েছে পর্যটক বরণে। ভ্রমন পিপাসু মানুষকে আপন করে নিতে নতুন সাজে সেজেছে বান্দরবানের পর্যটনকেন্দ্র ও হোটেল মোটেল গুলো। পার্বত্য জেলা ও পর্যটন শহর বান্দরবান। আর এই শহরে রয়েছে অসংখ্য পর্যটনকেন্দ্র। পাহাড় আর নদীর সংমিশ্রনে প্রকৃতির এক অপরুপ সুন্দর এই পর্যটন শহরে যে কোন বন্ধে ভ্রমন পিপাসু মানুষ ছুটে যায় বেড়াতে। মেঘলা পর্যটন কেন্দ্রের সুবিশাল লেক, চিড়িয়াখানা, কেবল কার ভ্রমন, শৈল প্রপাতের সুশীতল ঝর্ণায় স্মান, নীলাচলের মনোরম প্রাকৃতিক সৌর্ন্দয্য, প্রান্তিক লেকের নয়নাবিরাম দৃশ্য, চিম্বুক পাহাড়ের বিশালতা আর স¦র্ণ জাদি মন্দিরের সৌর্ন্দয্য সহজেই যে কোন পর্যটকদের আকৃষ্ট করে তোলে।

প্রতিবারের মত তাই এবার ও ঈদুল ফিতরের টানা বন্ধে পর্যটকদের বরণে প্রস্তুত হয়ে পড়েছে জেলার হোটেল-মোটেল গুলো।

বান্দরবান সদরের আবাসিক হোটেল হিলটনের ম্যানেজার আশীষ দাশ বলেন, সামনেই পবিত্র ঈদুল ফিতর, আর ঈদুল ফিতরের এই বন্ধে বান্দরবানে আমরা আশা করি ভালো পর্যটক পাবো। এই পর্যন্ত আমাদের হোটেল হিলটনে আমরা ৫০% বুকিং নিশ্চিত করেছি, আশা করি আর দু একদিনের মধ্যে আরো রুম বুকিং হবে।

বান্দরবান সদরের আবাসিক হোটেল হিলভিউ এর জিএম সুলতান নাফিজ মাহমুদ জানান, ঈদুল ফিতরের বন্ধ উপলক্ষে আমরা আমাদের হোটেলের রুমগুলো নতুন সাজে সাজিয়েছি। আমরা আশা করি এবার আরো বেশি পর্যটক এই বন্ধে সমাগম হবে। ৭ ও ৮ জুন বেশি রুম বুকিং রয়েছে। তিনি আরো জানান, আমাদের হোটেল হিলভিউ এর মোট ৭২ টি রুমের মধ্যে ৩৮ টি রুম সম্পূর্ণ বুকিং হয়ে গেছে। আশা করি এই ঈদে পর্যটকেরা বান্দরবান ভ্রমন করে মজা পাবে এবং আমাদের আথিতেয়তা গ্রহণ করবে। পর্যটন জেলা হিসেবে দিন দিন নতুন নতুন হোটেল আর মোটেলের পাশাপাশি নিত্য নতুন পর্যটন কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে এই জেলায়, তাই ভ্রমন পিপাসুদের জন্য এই জেলা ভ্রমনে অনেকটাই আরামদায়ক ও নিরাপদ। ঈদে পর্যটকদের বান্দরবান ভ্রমন আনন্দদায়ক করতে তাই সব রকম সুযোগ সুবিধার কথা জানান হোটেল মোটেল মালিক সমিতি ও টুরিস্ট গাড়ীর নেতৃবৃন্দরা।

বান্দরবান আবাসিক হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি অমল কান্তি দাশ জানান, আমরা পবিত্র ঈদ উপলক্ষে আমাদের প্রত্যেকটি হোটেল ও মোটেল সুন্দরভাবে সাজানোর জন্য সকল আবাসিক হোটেল মোটেল মালিক ও কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। আমরা নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও জোরদার করেছি আশা করি বান্দরবানে এবার প্রচুর পর্যটক আসবে এবং ভ্রমন করে তৃপ্তি অনুভব করবে। বান্দরবান মাইক্রো-কার জীপ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক বাহাদুর বলেন, এবারের ঈদ উপলক্ষে আমরা বান্দরবান মাইক্রো-কার জীপ মালিক সমিতি প্রত্যেকটা পর্যটকবাহী যানবাহন চালকের সাথে কথা বলেছি এবং পর্যটক গাড়ীগুলো সুন্দরভাবে সাজিয়ে পর্যটকদের বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্রে ভ্রমনের জন্য নির্দেশনা প্রদান করেছি।

এদিকে ঈদের টানা বন্ধে পর্যটক আগমনের বিষয়টি মাথায় রেখে জেলার সকল পর্যটন কেন্দ্রগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরো জোরদার করা হয়েছে এবং পর্যটকরা যাতে নিরাপদে এই ঈদে বান্দরবান ভ্রমন করতে পারে তার জন্য সকল প্রস্তুতির কথা জানালেন পুলিশ সুপার। বান্দরবানের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকির হোসেন মজুমদার বলেন, ঈদের টানা বন্ধে বান্দরবানে প্রচুর পর্যটক আসবে বলে আশা করি এবং পর্যটকদের নিরাপত্তায় আমরা পুলিশ বিভাগ সর্বোচ্চ নিরাপত্তা প্রদানের জন্য কাজ করে যাব। দেশে এসময় হরতাল-অবরোধসহ রাজনৈতিক অস্থিরতা না থাকায় ও দেশের আইনশৃংখলার সামগ্রিক পরিস্থিতি ভালো থাকায় পর্যটকরা বান্দরবান ভ্রমনে তৃপ্তি পাবে এবং ব্যবসায়ীরা কিছুটা বাড়তি আয় করতে পারবে এমনটাই মনে করেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা।