আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি করতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি বলেন, দেশভাগের পর এবং পরবর্তী সময়ে যেসব উদ্বাস্তু এই রাজ্যে এসে বসবাস করছেন, তাদের আর রাজ্য ছাড়তে হবে না। তারা এই রাজ্যেই থাকবেন। কারণ, তারা এই রাজ্যের বাসিন্দা। তাদের আর এই রাজ্য ছাড়তে হবে না।

সোমবার কোচবিহারে গিয়ে মমতা এ কথা বলেন। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

তিনি বলেন, রাজ্যে এনআরসি হবে না। এই রাজ্যে এনআরসি করতে দেওয়াও হবে না।

বিভিন্ন সময়ে বিজেপির নেতারা বলছেন, এনআরসি হলেও কোনো উদ্বাস্তু বা শরণার্থীকে পশ্চিমবঙ্গ থেকে তাড়ানো হবে না। রাজ্য ছাড়তে হবে না। তারা এই রাজ্যেই থাকবেন। কোনো প্রমাণপত্র দিতে হবে না। এনআরসি হলে কেবল একটি ফরমে তারা এই রাজ্যে এসেছেন, তা জানালেই পেয়ে যাবেন নাগরিকত্ব। তবে এই রাজ্যে বেআইনিভাবে আসা অনুপ্রবেশকারীদের ঠাঁই দেওয়া হবে না।

বিজেপির উদ্দেশে মমতা বলেন, বিজেপি বলছে, হিন্দুরা বিতাড়িত হবে না। তা হলে আসামে ১৯ লাখের মধ্যে যে ১৪ লাখ হিন্দু বাঙালি আছেন, তারা বিতাড়িত হলেন কী করে? অনেকেই ডিটেনশন ক্যাম্পে আছেন।

তিনি বলেন, এনআরসির বিরুদ্ধে (প্রস্তাবিত) নাগরিকত্ব বিলের কথা বলা হচ্ছে। ওটা কী? ওটা হচ্ছে একটা ‘খুড়োর কল’। যারা এখানকার নাগরিক, ছয় বছরের জন্য তাদের বিদেশি বানিয়ে দেবে। তারপর ছয়বছর বাদে যখন ওরা থাকবেও না। তখন নাকি ঠিক করবে, কে নাগরিক হবে আর কে হবে না।