ফরিদপুর প্রতিনিধি::

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার কাচাইল গ্রামে প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত ব্যাংক কর্মকর্তা রওশন আলী মিয়া ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র মিরাজুল ইসলাম তুহিনের খুনিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে নিহত ও আহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে।

সোমবার দুপুরে ফরিদপুর প্রেসক্লাব চত্বরে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহত মিরাজুল ইসলাম তুহিনের বড় বোন আসমা বেগম।

তিনি বলেন, গত ১০ আগষ্ট কাচাইল গ্রামের মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে নামাজ শেষ করে আমাদের পরিবারের লোকজন বের হওয়ার সময় অতর্কিতে অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় হানিফ ও হাসানের নেতৃত্বে কিছু সন্ত্রাসী। তাদের ছোড়া গুলিতে ১০/১২জন আহত হয়। এদের মধ্যে সকলকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে আমার ভাই তুহিন ও চাচা রওশন নিহত হয়। বাকি আহতদের এখনও ঢাকা ও ফরিদপুরে চিকিৎসা চলছে। তিনি আরও বলেন, হানিফসহ কয়েকজনকে পুলিশ আটক করেছে। বাকি আসামীদের আটক করে দ্রুত আইনের হাতে নেয়া ও তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানাই প্রশাসনের কাছে।

সংবাদ সম্মলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাচাইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির হোসেন ঠান্ডু, তুহিনের বাবা রায়হান মাতুব্বর, নিহত রওশনের বড় ভাই ওসমান মুতুব্বর, রওশনের স্ত্রী সামিয়া খানম, তার মেয়ে তৃষ্ণা খানমসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিাডয়ার কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ। পরে নিহত ও আহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে খুনিদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে প্রেসক্লাবের সামনে আধাঘন্টা ব্যাপী একটি মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি দেয়া হয়।