স্পোর্টস ডেস্ক::

জয়ের জন্য শেষ বলে দরকার ছিল ৩ রান। তবে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল নিতে পারল ২। ফলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টাইগার যুবাদের ম্যাচটি হলো রোমাঞ্চকর ‘টাই’।

সোমবার কেন্ট কাউন্টি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ইংলিশ যুবাদের শুরুটা ভালো হয়নি। পরে কক্সের সেঞ্চুরিতে লড়াই করার পুঁজি পায় তারা। তিনি ১৪৩ বলে ৮ চার ও ২ ছক্কায় করেন ১২২ রান। মিডলঅর্ডারের ব্যর্থতার পর শেষ দিকে অধিনায়ক জর্জ ব্যালডার্সনের ৫৬ রানের ইনিংসে ভর করে ২৫৬ রান করেন স্বাগতিকরা।

বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল বোলার ছিলেন রাকিবুল হাসান। ১০ ওভারে ৩৩ রান খরচায় শিকার করেন ৩ উইকেট। ২ উইকেট নেন তানজীম হাসান সাকিব।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের সূচনাটাও শুভ হয়নি। দলীয় ৬১ রানে ৩ উইকেট হারায় তারা। এরপরই শুরু হয় তৌহিদ হৃদয় ও শাহাদত হোসেনের লড়াই। শাহাদত ১০৩ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ৭৬ রান করে আউট হলেও সেঞ্চুরির তুলে নেন হৃদয়।

তিনি ১৩১ বলে অপরাজিত থাকেন ১০৪ রানে। ৯ চারে ইনিংসটি সাজান এ ব্যাটার। তবে চমৎকার ইনিংস খেলেও দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেননি হৃদয়। শেষ বলে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৩ রান। তবে তিনি নিতে পারেন ২ রান। তাতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে বাংলাদেশের স্কোর হয় ইংল্যান্ডের সমান ২৫৬। ফলে ম্যাচটি অমিমাংসিত থেকে যায়।

ত্রিদেশীয় সিরিজে ৭ ম্যাচ শেষে ১০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বাংলাদেশ। ইতিমধ্যে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে তারা। ৬ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে ভারত। আর ৭ ম্যাচে ৩ পয়েন্ট ইংল্যান্ডের।