বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক রিপোর্ট:: স্মার্টফোনের অ্যাপভিত্তিক ট্যাক্সিসেবা ‘উবার’ বাংলাদেশে যাত্রীদের জন্য চালু করেছে নিরাপত্তা (সেফটি টুলকিট) ফিচার। মঙ্গলবার এই ফিচার চালু করা হয় বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এই ফিচারের মাধ্যমে যাত্রীরা উবারের সব সেফটি ফিচার সহজেই খুঁজে পাবেন অ্যাপের একটি নির্দিষ্ট স্থানে। যুক্তরাষ্ট্রে চালু হবার মাত্র কয়েক মাসের মধ্যেই বাংলাদেশে চালু হলো উবারের এই ফিচারটি।

অভিনব প্রযুক্তির সাহায্যে তৈরি নতুন সেফটি টুলকিটটি এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যেন বাংলাদেশের যাত্রীরা সহজেই উবারের সেফটি ফিচারগুলো ব্যবহার করতে পারেন। পাশাপাশি পুরাতন এবং নতুন উভয় ফিচারগুলোর ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধিতেও সহায়ক হবে এই টুলকিটটি। চালক ট্রিপ গ্রহণ করার সাথে সাথে অ্যাপের হোম স্ক্রিনে ভেসে উঠবে সেফটি টুলকিট অপশনটি, যা ট্রিপ শেষ হওয়া পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে।

বাংলাদেশে সেফটি টুলকিট চালু করার বিষয়ে উবারের প্রোডাক্ট ম্যানেজমেন্ট ডিরেক্টর শচীন কানসাল বলেন, উবারে যাত্রী ও চালকদের নিরাপত্তার বিষয়কে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়। সে লক্ষ্যে আমরা প্রযুক্তির ব্যবহার করে তাদের নিরাপত্তাজনিত বিষয়গুলো সমাধানে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশের হাজার হাজার যাত্রীদের জন্য সেফটি টুলকিট চালু করা আমাদের এই প্রচেষ্টারই একটি অংশ।

যাত্রীদের মতামতের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে সেফটি টুলকিটটি। চলতি বছরের মে মাসে ফিচারটি সর্বপ্রথম যুক্তরাষ্ট্রে চালু করা হয়।

সেফটি ফিচার সম্পর্কে:

এই ফিচারের মাধ্যমে যাত্রীরা আইন প্রয়োগকারীদের সহায়তায় তৈরি সেফটি টিপসগুলো দেখতে পারবেন এবং ইনস্যুরেন্স সুবিধা ও কমিউনিটি গাইডলাইন্স সম্পর্কে জানতে পারবেন। একটি নির্দিষ্ট স্থানে প্রধান নিরাপত্তা ফিচারসহ অন্যান্য সকল ফিচার পাওয়া যাবে, যা যাত্রীদের জন্য খুবই সহায়ক।

ট্রাস্টেড কন্ট্যাক্টস: ফিচারটি একজন যাত্রীকে তার ঘনিষ্ঠ পাঁচজন ব্যক্তির সাথে নিয়মিতভাবে ট্রিপ শেয়ার করার অপশন প্রদান করবে। যাত্রীরা তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী ট্রিপ শেয়ার সেটিংস ঠিক করতে পারবেন। ট্রিপ শেয়ারিং সেটিংসের মধ্যে থাকছে সকল ট্রিপ শেয়ার, শুধুমাত্র রাতের ট্রিপ শেয়ার এবং কোনো ট্রিপ শেয়ার না করার অপশন।

ইমারজেন্সি বাটন: ইমারজেন্সি বাটন যাত্রীকে সরাসরি পুলিশ কন্ট্রোল রুম নম্বর ৯৯৯-এ কল করার সুযোগ প্রদান করবে। এর ফলে জরুরি সময়ে এবং অনাকাঙ্ক্ষিত প্রয়োজনে দ্রুততম সময়ে নিরাপত্তা পাওয়া সহজ হবে।