তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:: বিশ্বজুড়ে স্মার্টফোনে ছড়াচ্ছে ভয়ংকর সব ভাইরাস। এটি ফোন হ্যাকিং নয়। ভাইরাস হানা দিচ্ছে ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, ভাইবার ও হোয়াটস অ্যাপের মতো অ্যাপগুলোতে এর মাধ্যমে ব্যক্তিগত কথাবার্তা চলে যাচ্ছে হ্যাকারদের কাছে। তাই স্মার্টফোনে ব্যবহারে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা।

ভয়েস কল, ভিডিও কল বা ছোটখাট সব সেবা মিলছে স্মার্টফোনে। ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, হোয়াটস অ্যাপ, ভাইবার, ইমোর মতো আরো অনেক অ্যাপসে মিলছে সে সুবিধা। আর নিরাপদ সেসব মাধ্যমে ব্যক্তিগত কথোপকথন যদি তৃতীয় কোন পক্ষের কাছে এসে যায় কেমন হবে ব্যাপারটি?

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, আমাদের অসচেতনমূলক ব্যবহারের ফলে ভাইরাস আক্রমণ করতে পারে। ভাইরাস আক্রমণের বিষয়টি খারাপ লাগার মত বিষয় হবে।

বিখ্যাত অনলাইন পোর্টাল হ্যাকার নিউজের তথ্য, ডলফিন অ্যাটাক, গোস্টকন্ট্রোল, লোআপে, টিজি ভাইরাসসহ নাম না জানা অনেক ভাইরাস ছড়াচ্ছে স্মার্টফোনে। স্মার্টফোনে ব্যক্তিগত কথোপকথন হ্যাকিংয়ে বেশি ঝোঁক এ ভাইরাসগুলোতে। এমনকি ব্যবহারকারী অফলাইনে বা ইন্টারনেটে না থাকলে স্মার্টফোনকে নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ব্যবহার করতে পারে হ্যাকাররা।

আবার গুগলের ভয়েস এসিসটেন্ট বা এ্যাপেলের সিরি সেবার তথ্য জানছে হ্যাকাররা। পরিসংখ্যান বলছে সম্প্রতি ইউরোপ আমেরিকায় ঘোস্ট কন্ট্রোল ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে অন্ততঃ ২৫ লাখ স্মার্টফোন। টিজি নামের ভাইরাস সনাক্ত করে সতর্ক করে দিয়েছে বিশেষজ্ঞরা।

বিটলসের প্রযুক্তি নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ নাহিদুল কিবরিয়া বলেন, যারা স্মার্টফোনকে টার্গেট করছে তারা চাইলে তাদের মতো মডিফাই করে ফেলতে পারবে। গুগল স্টোর থেকে আমরা অনেক কিছু ডাউনলোড করি সেটা অনেক বড় সমস্যা। আমরা যে মোবাইলগুলো ইমপোর্ট করছি সেগুলোতে ডাউনলোড করার সময় বিশ্বাসযোগ্য কোম্পানি কোনটি সেটা লক্ষ্য রাখতে হবে।

এছাড়া যেখানে সেখানে ওয়াইফাই যুক্ত না হওয়া বা ল্যাপটপে নিয়মিত এন্টি ভাইরাস আপডেট দিতে পরামর্শ দিচ্ছে প্রযুক্তিবিদরা। সূত্র– যমুনা নিউজ