অনলাইন প্রতিবেদক::

বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা পূর্ব নির্ধারিত সময়েই অনুষ্ঠিত হবে। শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের জন্য ভর্তি পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠিত হবে কিনা এ বিষয়ে উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হলেও শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শিথিল করার ঘোষণা দেয়ায় সেই উৎকণ্ঠা দূর হয়েছে। অর্থ্যাৎ ভর্তি পরীক্ষার কারণে আন্দোলন শিথিল করার ঘোষণা দেয়ায় নির্ধারিত সময়েই বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এই ঘোষণা দেন।

শনিবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। তবে ভর্তি পরীক্ষার জন্য আগামী ১৩ ও ১৪ অক্টোবর আন্দোলন শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন তারা ভর্তিচ্ছুদের সহযোগিতা করবেন বলেও জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে শিক্ষকদের প্রতিও তাদের আস্থার কথা জানিয়েছেন।

আবরার হত্যাকাণ্ডের পর এই ঘটনার দ্রুত বিচারসহ ১০ দফা দাবিতে আন্দোলন করছিলেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা। একপর্যায়ে শুক্রবার (১১ অক্টোবর) শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংলাপে ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম এসব দাবি মেনে নিতে সম্মত হন। তবে দাবিগুলো বাস্তবায়নের জন্য সময় চান তিনি। পরে স্বল্প সময়ে বাস্তবায়ন করা যায়— এমন পাঁচ দফা দাবি তুলে ধরেন শিক্ষার্থীরা। তারা বলেন, এসব দাবি পূরণ হলেই কেবল তারা মনে করবেন যে ক্যাম্পাসে ১৪ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার উপযোগী পরিবেশ আছে।

এই দাবিতে শনিবার সকালে টানা পঞ্চম দিনের মতো আন্দোলনে নামেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা। তবে ভর্তি পরীক্ষার পরীক্ষার্থীদের সম্মান জানিয়ে ভর্তি পরীক্ষা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছেন তারা। আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকা শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা পরীক্ষার্থীদের সম্মান জানিয়ে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে দেবো। আগামী দুই দিন রোববার (১৩ অক্টোবর) ও সোমবার (১৪ অক্টোবর) আমাদের আন্দোলন স্থগিত থাকবে। এরপর আমরা আবার পাঁচ দফা দাবি বাস্তবায়নে আন্দোলন শুরু করব। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।