আন্তর্জাতিক ডেস্ক::

দাতব্য কাজে বেশি সময় দিতে বহুজাতিক কোম্পানি মাইক্রোসফটের পরিচালনা পর্ষদ থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস।

শুক্রবার ৬৫ বছর বয়সী এ মানবহিতৈষী জানান, তিনি এখন থেকে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য ও উন্নয়ন, শিক্ষা এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলার বিষয়ে অধিক মনোযোগ দিতে চান।

বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ এ ধনী মাইক্রোসফটের পাশাপাশি ওয়ারেন বাফেটের হোল্ডিং কোম্পানি বার্কশায়ার হাথাওয়ের পরিচালনা পর্ষদ থেকেও সরে দাঁড়িয়েছেন, জানিয়েছে বিবিসি।

এর আগে ২০০৮ সালেই গেটস মাইক্রোসফটের দৈনন্দিন কার্যক্রমভিত্তিক দায়িত্ব থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছিলেন।

শুক্রবারের ঘোষণায় তিনি বলেছেন, মাইক্রোসফট সবসময়ই তার জীবনের একটি অংশ হিসেবেই থাকবে। পরিচালনা পর্ষদ ছাড়লেও কোম্পানির মূল নেতৃত্বের সঙ্গে ধারাবাহিক সংযোগ রাখবেন বলেও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

শৈশবের বন্ধু পল অ্যালেনকে সঙ্গে নিয়ে ১৯৭৫ সালে নিউ মেক্সিকোর আলবুকারকিউতে গেটস মাইক্রোসফটের কার্যক্রম শুরু করেন। কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেম বানাতে ১৯৮০ সালে আইবিএমের সঙ্গে হওয়া চুক্তি তাদের কপাল খুলে দেয়। ওই অপারেটিং সিস্টেমই পরে এমএস-ডস নামে পরিচিতি পায়। অ্যালেন ২০১৮ সালে মারা যান।

১৯৮৬ সালে মাইক্রোসফট শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হলে বছরখানেকের মধ্যেই ৩১ বছর বয়সী গেটস হয়ে যান যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে তরুণ বিলিয়নেয়ার।

গেটস ২০০৪ সাল থেকেই বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী ওয়ারেন বাফেটের কোম্পানি বার্কশায়ারের পরিচালনা পর্ষদেরও সদস্য ছিলেন। তবে দীর্ঘদিন ধরেই তিনি ও তার স্ত্রী নিজেদের প্রতিষ্ঠিত দাতব্য প্রতিষ্ঠান বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনেই বেশি সময় দিচ্ছিলেন। ফোর্বসের হিসাবে এই মুহুর্তে গেটস বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ধনী, তার সম্পদের পরিমাণ ১০৩ দশমিক ৬০ বিলিয়ন ডলার। গেটসের আগে আছেন আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস।