নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি॥

ঢাকার নাবাবগঞ্জ উপজেলায় মাদক ব্যবসায় বাধা দেওয়ায় শোল্লা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আরিফ হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রসীরা।

রবিবার সন্ধ্যায় শোল্লা ইউনিয়নের আটকাহনিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফ হোসেন সন্ধ্যার সময় নিজ বাড়িতে যাওয়ার পথে রতনসহ ৪/৫ জন সন্ত্রনী আরিফ তারা করলে আরিফ দৌড়ে তার চাচাতো ভাইয়ের বাড়িতে ঢুকে পরে। সন্ত্রসীরা সেখানে গিয়ে ঘরে মধ্যে ফেলে রামদা, চাপাতি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার শোল্ল্ ইউনিয়নে উত্তর বালু খন্ড গ্রামের সবদের আলীর ছেলে রতন (৩৫) একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। সে থানা পুলিশ কে ম্যনেজ করে দীর্ঘদিন যাবত এলাকায় ১০-১৫ জনের একটি সিন্ডিকেট করে ইয়াবা ট্যাবলেট, গাঁজা ও ফেন্সিডিলসহ বিভিন্ন মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল। ডিবি পুলিশ বিভিন্ন সময় ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ও মাদক ব্যবসায়ী রতন গ্রেফতার করে।

যুবলীগ নেতা আরিফ হোসেন আটকাহনিয়া গ্রামে রতনকে মাদক বিক্রি করতে দেখে বাধা দেয়। এর জেরে ক্ষিপ্ত হয়ে রতন ও তার সহযোগী ৬/৭ ধারালো অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে যুবলীগ নেতা আরিফ হোসেন ওপর হামলা চালায়।

এ ঘটনায় আরিফের ভাতিজি মৌসুমি (৩২) জানান, আমার চাচা রতনকে মাদক ব্যবসা করতে বাধা দেয় সে কারনে রতন ও তার লোকজন পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

দোহার সার্কেলের এএসপি এস এম জহিরুল ইনলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করে সাংবাদিকদের জানান, অপরাধি যত শক্তিশালী হোক তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।