ই-কণ্ঠ ডেস্ক রিপোর্ট:: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট এবং চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির দুই মামলায় আজ মঙ্গলবার বকশিবাজারের বিশেষ আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইবেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দুই মামলায় আজ আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইবেন খালেদা জিয়া। তিনি বেলা ১১টার দিকে আদালতে পৌঁছাবেন। আমরা চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা সাফাই সাক্ষ্য থেকে এবং অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা যুক্তিতর্ক থেকে উত্তোলনপূর্বক অবশিষ্ট আত্মপক্ষ শুনানি গ্রহণের আবেদন করব। আমরা আশা করছি আদালত তা মঞ্জুর করবেন।

এর আগে দুই মামলায় গত ৩০ নভেম্বর খালেদা জিয়া আদালতে হাজির না হওয়ায় জামিন বাতিল করে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন পুরান ঢাকার বকশিবাজারস্থ কারা অধিদফতরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ ড. মো. আকতারুজ্জামান। একই সঙ্গে মামলা দুইটি আত্মপক্ষ শুনানি থেকে অরফানেজ মামলাটি যুক্তিতর্ক শুনানির জন্য আর চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি সাফাই জন্য দিন ধার্য করে দেন আদালত।

এরও আগে গত ১৯ ও ২৬ অক্টোবর এবং ২, ৯, ১৬ ও ২৩ নভেম্বর অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় এবং চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় ২০১৬ সালের ১ ডিসেম্বর খালেদা জিয়া আত্মপক্ষ সমর্থনে আদালতে বক্তব্য দেন। তবে তার বক্তব্য শেষ হয়নি।

উল্লেখ থাকে, মামলা দুইটিতে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে তৃতীয় দফায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়।

উল্লেখ্য, এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে জিয়া অরফানেজ মামলাটি দায়ের করে দুদক। ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় এই মামলাটি দায়ের করা হয়। ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট দুদক আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়।

চার্জশিটে খালেদা জিয়া, তার বড় ছেলে তারেক রহমান, সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে আসামি করা হয়।

২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করে দুদক। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে চার্জশিট দাখিল করে দুদক।

মামলাটিতে বিএনপি নেতা সচিব হারিছ চৌধুরী এবং তার তৎকালীন একান্ত সচিব জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান আসামি।

মামলাটিতে খালেদা জিয়াসহ অপর আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ চার্জগঠন করেন আদালত।