ই-কণ্ঠ ডেস্ক রিপোর্ট:: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, আমরা আন্দোলন না করে চুপ করে থাকলেও ২০১৪ সালের মতো একতরফা নির্বাচন করার ক্ষমতা আওয়ামী লীগের নেই। সুপ্রিমকোর্টের এক রায়েই তাদের চিকুনগুনিয়া হয়ে গেছে। এরপরও আরেকটা আদালত আছে, জনগণের আদালত। সে আদালতেই তাদের বিচার হবে।

আজ মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দশম ‘কারামুক্তি দিবস’ উপলক্ষে মহিলা দল আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

দেশের ৯০ শতাংশ মানুষ আওয়ামী লীগকে পছন্দ করে না মন্তব্য করে বিএনপির এই নেতা বলেন, আওয়ামী লীগ থেকে এখন পচা-দুর্গন্ধ বেরুচ্ছে। এখন আওয়ামী লীগ দেখলে মানুষ মুখে রুমাল দিয়ে হাঁটে।

তিনি বলেন, এ অবস্থায় যদি সাধারণ জনগণের মতো সিনিয়র নেতাসহ আমরা সবাই বেগম জিয়ার নেতৃত্বে আস্থাশীল থাকি, তাহলে দেশে গণতন্ত্র ফিরবেই। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো দেশে আরেকটি নির্বাচন করতে পারবে না এই সরকার।

এ সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদককে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, কত কথা বলে রে… আসলে আপনি (ওবায়দুল কাদের) কোথাও আটকে গেছেন। যে কারণে সকালে এক কথা বলেন, আর বিকেলে বলেন আরেক কথা।

তিনি বলেন, রাতে পথচারীরা ভয় কাটাতে যেমন জোরে জোরে গান করে, ওবায়দুল কাদেরও এমন করে কথা বলছেন। আসলে তাদের মধ্যে মসনদ হারানোর ভয় ঢুকে গেছে। তাদের নৌকা চরে আটকে গেছে। ইচ্ছা করলেও আর পারাপার হবে না।

খালেদা জিয়াকে বড় সংস্কারক উল্লেখ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, ভিশন-২০৩০ এর আলোকে খালেদা জিয়ার সংস্কার প্রস্তাবই হচ্ছে আসল সংস্কার। মান্নান ভূঁইয়ারা যে সংস্কার কাজ করতে চেয়েছিলেন তা ছিল কুসংস্কার।

মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের পরিচালনায় আলোচনা সভায় সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।