ই-কণ্ঠ ডেস্ক রিপোর্ট:: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে সাজা দেওয়ার পর এখন আইনের ন্যূনতম যে সুযোগ-সুবিধা আছে, সেগুলোও প্রদান করছে না। ১৯ ফেব্রুয়ারী সোমবার ঢাকার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে মির্জা ফখরুল এ কথা বলেন। খালেদা জিয়ার কারামুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল এ মানববন্ধনের আয়োজন করে। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন আইনের ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধাও পাচ্ছেন না।’ তিনি বলেন, পাঁচ দিনের মধ্যে বিচারের রায়ের কপি দেওয়ার কথা, সেটা এখন পর্যন্ত তারা দেয়নি। তাকে একটি নির্জন কারাগারের অন্ধ প্রকোষ্ঠে রাখা হয়েছে, যা কোনোমতেই এই স্বাধীন দেশের আইনের মধ্যে পড়ে না।

ফখরুল ইসলাম বলেন, দেশ এবং খালেদা জিয়া, গণতন্ত্র এবং খালেদা জিয়া—এই দুটি আজ একাকার হয়ে গেছে। তাই খালেদা জিয়াকে সমস্ত শক্তি দিয়ে, জনগণের শক্তি দিয়ে মুক্ত করে আনতে হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সবাইকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে ভয় পায় বলেই সরকার আগামী নির্বাচনে নীলনকশা বাস্তবায়ন করতে তাঁকে ‌‘মিথ্যা মামলায়’ সাজা দিয়ে কারাবন্দী করেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজ ব্যাংকব্যবস্থা ধ্বংস হয়ে পড়ছে। শেয়ারবাজার ধ্বংস হয়ে গেছে। কোথাও কোনো বিচার নেই, সেগুলোর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা হয় না। আজকে দেশে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে নিয়ে যাচ্ছে, তাদের কোনো বিচার হয় না। কারণ, এর সঙ্গে সরকার জড়িত রয়েছে। তিনি বলেন, এ থেকে উত্তরণে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সবাইকে সক্রিয় হতে হবে।

জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন রাশেদা বেগম, হেলেন জেরিন খান, নিলোফার চৌধুরী, শাম্মী আখতার, হালিমা নেওয়াজ, ইয়াসমিন আরা হক প্রমুখ। সঞ্চালনা করেন মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ।