স্পোর্টস ডেস্ক::

ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচটি শুরু হচ্ছে আজ রবিবার। অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হবে প্রতিবেশী দু’দেশের ক্রিকেট লড়াই। নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব আল হাসান না থাকায় মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বে মাঠে নামতে যাচ্ছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। ম্যাচটি সরাসরি দেখাবে বিটিভি, গাজী টিভি ও স্টার স্পোর্টস ১।

এই ম্যাচে বাংলাদেশের প্রধান প্রতিপক্ষ কেবল ভারতই নয়, দিল্লির বায়ুদূষণও এখন বড় প্রতিপক্ষ। গত কয়েকটা দিন মাহমুদউল্লাহ-মুশফিকদের মাস্ক পড়ে অনুশীলন করতে হয়েছে। সফরকারী দলের এমন অবস্থা দেখে বোঝাই যাচ্ছে বায়ুদূষণ নিয়ে কতটা চিন্তিত বাংলাদেশ! যদিও দুই দলের জন্যই বিষয়টি একই হওয়ার কথা। তবুও স্বাগতিক দল বলেই ভারতীয়রা এই কন্ডিশনের সঙ্গে অভ্যস্ত।

এই মুহূর্তে অবশ্য সব কিছুকে উপেক্ষা করে দুই দলের মূল ফোকাস পুরোপুরি ক্রিকেটে। বিশ্রামের কারণে ভারতীয় দলে নেই বিরাট কোহলি। অপরদিকে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান নিষেধাজ্ঞার কারণে খেলতে পারছেন না। নিয়মিত ওপেনার তামিম ইকবালও ব্যক্তিগত কারণে আছেন ছুটিতে। গত কিছুদিন ধরে দলের নিয়মিত সদস্য সাইফউদ্দিন পিঠের ইনজুরিতে মাঠের বাইরে। সবমিলিয়ে তাই কিছুটা ছন্নছাড়া বাংলাদেশ।

অপরদিকে বিরাট কোহলির অবর্তমানে দলের দায়িত্ব এখন রোহিতের কাঁধে। তার কাছে ফের সুযোগ অধিনায়ক হিসাবে নিজেকে প্রমাণ করার। এছাড়া ভারতের স্কোয়াডে থাকছেন না মোহাম্মাদ সামি ও রবীন্দ্র জাদেজার মতো ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে বিশ্রামে থাকলেও টেস্ট স্কোয়াডে থাকছেন এই তিন ক্রিকেটার।

এই দলের বিপক্ষেও অনেক বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে বাংলাদেশের। রঙিন পোশাকে ভারতের বিপক্ষে গত চার-পাঁচ বছরে বাংলাদেশের তীরে এসে তরী ডোবার ঘটনা অহরহ ঘটেছে। এবার সেইসব দুঃসহ স্মৃতি ভুলে যাওয়ার সুযোগ মাহমুদউল্লাহ বাহিনীর সামনে। কিন্তু কাজটা মোটেও সহজ নয়। বড় দুই তারকাকে ছাড়া এই মিশনতো আরও কঠিন হয়ে গেছে।

যদিও মাহমুদউল্লাহ ইতিবাচক থাকতে চাইছেন, ‘আমরা অনেক ইতিবাচক। আমরা আমাদের ফলাফল ইতিবাচকভাবেই ভাবছি। আমরা সবাই জানি ভারত তাদের নিজেদের কন্ডিশনে খুব শক্তিশালী। ওদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স তাই বলে। আমাদের হারানোর কিছু নেই। আমরা যা পেতে পারি সেদিকে বেশি ফোকাস করব। আমরা ভালো ক্রিকেট খেলতে চাই।’

সাকিবের মতো অলরাউন্ডার কিংবা তামিমের মতো অটোমেটিক চয়েজ ওপেনার না থাকায় টিম ম্যানেজমেন্টকে একাদশ সাজাতে জটিল হিসাবের সম্মুখীন হতে হচ্ছে! গত মাসে শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে ওয়ানডে সিরিজে টানা দুটি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন মোহাম্মদ নাঈম। তামিমের বদলে নাঈমের অভিষেক হওয়ার সম্ভাবনা প্রকট।

এছাড়া দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রত্যাবর্তন হতে পারে পেসার আল আমিন হোসেন ও বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানির।

এ অবস্থায় ভারতের বিপক্ষে ভালো করতে হলে ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করতে হবে বলে মনে করেন মাহমুদউল্লাহ, ‘আমাদের ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করতে হবে। যেন ভালো একটা রান আমরা বোলারদের দিতে পারি। এমন রান যেটা তারা ডিফেন্ড করতে পারবে। অবশ্যই ভারত দেশের মাটিতে অনেক শক্তিশালী। আমাদের হারানোর কিছু নাই, পাওয়ার আছে অনেক কিছু। এভাবেই চিন্তা করে আমরা অনুপ্রাণিত হয়ে নিজেদের সেরা পারফরম্যান্স দিতে হবে।’

নানা সমস্যায় জর্জরিত বাংলাদেশ সবচেয়ে খারাপ সময় কাটাচ্ছে। তবে এই দলটিকেই ভারতের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক রোহিত শর্মার খুব সমীহ, ‘বাংলাদেশ ভীষণ ভালো দল। তারা অনেক বছর ধরেই ভালো খেলছে। সেটা কেবল দেশেই নয়, দেশের বাইরেও। বিশেষ করে আমাদের সঙ্গে (ভালো খেলে)। সব সময় আমাদের চাপে ফেলে। তাদের অন্যভাবে (হালকা) দেখার সুযোগই নেই।’

বাংলাদেশ একাদশ (সম্ভাব্য): লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ নাঈম, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), মোসাদ্দেক হোসেন, আফিফ হোসেন, আরাফাত সানি, মোস্তাফিজুর রহমান, আল-আমিন হোসেন ও শফিউল ইসলাম।