স্টাফ রিপোর্টার ॥
ঢাকার নবাবগঞ্জে আগামী উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য আওয়ামীলীগ প্রার্থীরা দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন।
ইতিমধ্যে ঢাকায় দোহার ও নবাবগঞ্জের তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিয়ে ঢাকা-১ আসনের সংসদ সদস্য সালমান.এফ রহমান ঢাকায় তার নিজস্ব কার্যালয়ে মত বিনিময় সভা করেন। সভায় দোহার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন একক প্রার্থী হিসেবে মনোনিত হন।

অন্যদিকে নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আব্দুল বাতেন মিয়া, নাসির উদ্দিন আহমেদ ঝিলু, মো. জালাল উদ্দিনসহ একাধীক নেতাকর্মী নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের উপর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। বিএনপিসহ অন্য কোন রাজনৈতিক দলের প্রার্থীর প্রচারনা নেই এই উপজেলায়।

নবাবগঞ্জের আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বিগত দুটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের কোন্দল ও গ্রুপিং এর কারনে আওয়ামীগের একাধীক প্রার্থী নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন। ফলে কাংক্ষিত চেয়ারম্যান পদটি বিএনপির ঘরে চলে যায়। বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য খন্দকার আবু আশফাক দুইবার বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়ে উপজেলার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন। এবার মাঠ পর্যায়ে কিছুটা ভিন্নচিত্র দেখা যাচ্ছে, তৃণমূল নেতাকর্মীরা জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই উপজেলা চেয়ারম্যান কে হবেন এই বিষয় নিয়ে আলোচনা শুর করেন।

বিগত দুটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগ জাতীয় কমিটির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল বাতেন মিয়া এবং বর্তমান উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ ঝিলু অংশ গ্রহন করেন। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হতে এবারও তারা দুজন চেষ্টা চালাচ্ছেন। অন্যদিকে সাবেক ছাত্রনেতা উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান সাধারন সম্পাদক মো. জালাল উদ্দিন তরুন সমাজের মধ্যে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। তিনি দলীয় মনোনয়ন পেলে দলমত নির্বিশেষে সকলকে সাথে নিয়ে নবাবগঞ্জের উন্নয়নে কাজ করবেন বলে জানান তিনি। আরো বলেন, বিগত সময়ে দলের একজন কর্মী হিসেবে প্রতিটি মিছিল, মিটিং ও আন্দোলনে অংশ নিয়েছি। তৎকালিন জামাত ও বিএনপি জোট সরকারের রোষানলে পড়ে একাধিক মামলা ও হামলা শিকার হয়েছি যার ক্ষত আজও বয়ে বেড়াচ্ছি। আমি মনে করি দল আমাকে উপজেলা পরিষদ চেয়াম্যান পদে মনোনয়ন দিলে আমি নির্বাচিত হয়ে সংগঠন দল ও এলাকার উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা পালন করতে পারবো ইশাল্লাহ।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী নবাবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ ঝিলু বলেন, দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি দোহার নবাবগঞ্জের বর্তমান সংসদ সদস্য সালমান.এফ রহমানের নির্বাচন কালীন নবাবগঞ্জের উন্নয়নে যে প্রতিশ্রতি দিয়েছেন আমি মাননীয় এমপি মহাদয়ের সেই উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে তার পাশে থেকে কাজ করবো। অপরদিকে আওয়ামীলীগ জাতীয় কমিটির সদস্য ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল বাতেন মিয়া বলেন, ৭৫ পরবর্তি দলের দূর্দিনে সংগঠনকে ধরে রেখেছি দলের জন্য কাজ করেছি। অনেক অত্যাচার, হামলা, মামলা শিকার হয়েও বঙ্গবন্ধুর আর্দশ থেকে বিচ্যুত হয়নি। নেত্রী সুযোগ দিলে নবাবগঞ্জ উপজেলাকে একটি আধুনিক উপজেলায় রুপান্তর করাই আমার রাজনীতির মূল লক্ষ্য।