নবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:
দোহার নবাবগঞ্জ ঢাকা আঞ্চলিক মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাস ও সিএনজি চালিত অটোরিক্সা মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত: ৩৫ জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় টায় মুন্সিগঞ্জ জেলার খারসুর তালতলা সংলগ্ন এলাকায় এ দূর্ঘটনা ঘটে।

যাত্রীবাহী বাসে থাকা আহত যাত্রীদের মধ্যে নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও প্যারাগণ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ১৪ জন।

আহতরা হলেন, নবাবগঞ্জ উপজেলার কাশিমপুর গ্রামের ফারুক আহমেদের মেয়ে সাথী আক্তার (১৮) শোল্লা গ্রামের আশরাফের স্ত্রী আয়শা বেগম (৩০) বাহ্রা গ্রামের আনিসুর রহমানের স্ত্রী সালমা রহমান (৪০), সমসাবাদ গ্রামের মৃত আবেদ আলীর ছেলে আমির হোসেন (৫৯), ঐ গ্রামের মোয়াজ্জেমের ছেলে মনির হোসেন ( ৪০), বলমন্তচর গ্রামের নুরুদ্দীনের ছেলে মো. টিপু (৫৫)।

দোহার থানার কুসুম হাটির বাস্তা গ্রামের আব্দুস সোবহানের স্ত্রী মিরা আক্তার (৬২) তার মেয়ে ফাতেমাতুছ জহুরা (২৫), একই উপজেলার ঐ গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে মিজানুর রহমান মুন্না (২৫) লক্ষিপ্রাসাদ গ্রামের দুলাল মুন্সির ছেলে বেল্লাল মুন্সি (৬৫)। কেরাণীগঞ্জ থানার চুনকুটিয়া এলাকার হাবীবুর রহমানের ছেলে ফেরদৌস আলী (৩৫),

দোহার ফরিদপুর সংলগ্ন চরভদ্রাসন এলাকার মোশারফ হোসেনের মেয়ে তাশফিরা (২২), ফরিদপুর ভাঙ্গা থানার লাল মিয়ার স্ত্রী অজিফা বেগম (৫৫), জামালপুর জেলার সাবাজ উদ্দিনের ছেলে শাহজামাল (৩৫),ঢাকার

এছাড়া অন্যরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সকালে ঢাকার দোহার উপজেলার মৈনট ঘাট থেকে দ্রুত পরিবহন ঢাকা মেট্রো-১১-৬৪৮৩ নামে একটি যাত্রীবাহী বাস ৪০/৪৫ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। বাসটি নবাবগঞ্জ হয়ে মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখানের খারসুরের দিকে আসলে ঢাকা থেকে আসা সিএনজি চালিত একটি অটোরিক্সা-ঢাকা-থ-১১-১৬০৪ এর সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এসময় সিএনজিটি বাসের ধাক্কায় চেপ্টা হয়ে যায় এবং বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। স্থানীরা আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে।
সিরাজদি খান থানার সেখর নগর তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ পরিদর্শক হাফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।