শাহজাহান হেলাল,মধুখালী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি॥ ফরিদপুরের মধুখালীতে রেশমা (৯) নামে এক শিশু গৃহকর্মী ধর্ষন ও হত্যার অভিযোগে মধুখালী থানায় একটি ধর্ষন ও হত্যা মামলা হয়েছে।

শিশুটি মধুখালী পৌরসভার পূর্ব গোন্দারদিয়া গ্রামের ব্যবসায়ী মোঃ জাহিদ লস্করের বাড়ীতে দীর্ঘদিন যাবৎ গৃহকর্মীর কাজ করে আসছিল। নিহতের পিতার নাম আসাদ মন্ডল। বাড়ী রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বনগ্রাম গ্রামে।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, গৃহকর্মি রেশমাকে ধর্ষণ ও পরে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। গত ১০ সেপ্টেম্বর রোববার নিহতের বাবা আসাদ মন্ডল বাদী হয়ে মধুখালী থানায় গৃহকর্তা মোঃ জাহিদ লস্কার তার ভাই মোঃ জাকির হোসেন লস্কার এবং দোকানের কর্মচারী রবিন তালুকদারকে আসমী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মধুখালী থানার মামনা নং ১৬।

উল্লেখ্য, ২০ আগস্ট রোববার সন্ধ্যায় মধুখালী থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সোমবার সকালে ময়না তদন্তের জন্য ফদিপুর হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করে। অপর দিকে ওই গৃহকর্মীর পরিবারের পক্ষ থেকে শিশুটিকে পাশবিক নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে।

২১ আগস্ট সোমবার বিকেলে ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে রেশমার লাশ হস্তান্তর করলে নামাযে জানাযা শেষে গ্রামের বাড়ীতে দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। সঠিক তদন্ত পুর্বক দোষীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন পরিবারের সদস্য ও এলাকাবাসী।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, রবিবার বিকেলে রেশমার গৃহ শিক্ষক পড়াতে এসে জাহিদুল ইসলামের বিল্ডিং এর দোতলার একটি রুমের ভিতর আলনার সাথে উড়না গলায় দিয়ে রেশমাকে ঝুলতে দেখে আশপাশের লোকজনকে খবর দিলে তারা এসে মৃত অবস্থায় তাকে নিচে নামিয়ে আনে। এসময় বাড়ীর লোকজন কেউ বাড়ীতে ছিল না। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাড়ীর পাশের অনেকেই বলেন, ৯ বছরের একটি শিশু কিভাবে আলনার সাথে ফাঁস দিয়ে মৃত্যু বরণ করতে পারে, এটা সম্ভব নয়। এটা রহস্যজনক মৃত্যু। গৃহকর্মীর গ্রামের বাড়ী বালিয়াকান্দি সদর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য মোঃ সাখাওয়াত হোসেন জানান, একটা আলনার সাথে ৯ বছরের মেয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে মৃত্যু বরন করল কিভাবে, আমার কাছে আলামত দেখে যা মনে হয়েছে শিশুরটির উপর পাশবিক নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার দাবী করি। সোমবার বিকালে ময়না তদন্ত শেষে লাশ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করে। তার লাশ নামাযে জানাযা শেষে দাফন করা হয়েছে।

মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ রুহুল আমীন জানান, ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পেয়েছি। নিহত শিশুর পিতা ৩ জনকে আসামী করে ধর্ষণ ও হত্যা মামলা করেছেন। ১ জন জেলহাজতে আছেন ২ জন পালাতক আছেন তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা অবহত আছে।