ঝিনাইদহ প্রতিনিধি॥ ঝিনাইদহ শহরের শিশু হাসপাতালের সামনে ওষুধ ফার্মেসীতে মিজানুর রহমান (৪৫) নামের এক ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে হতা করা হয়েছে।

শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে। এদিকে ঘটনার পর থেকে ফার্মেসি মালিক আমিরুল ইসলাম পলাতক রয়েছে। নিহত মিজানুর শৈলকুপা উপজেলার দীঘল গ্রামের মৃত মনোয়ার হোসেনের ছেলে এবং পেশায় একজন ভূষিমাল এবং জমি ব্যবসায়ী।

প্রত্যক্ষদশীরা জানায়, শুক্রবার সন্ধ্যায় শিশু হাসপাতাল গেটে ফিরোজা ফার্মেসীতে বসে গল্প করছিল মিজানুর রহমান ও ফার্মেসি মালিক আমিরুল ইসলাম। পরে রাত ৯ টার দিকে মিজানুর রহমানের চিৎকার শুনে স্থানীয়রা ছুটে আসলে ফার্মেসী মালিক আমিরুল পালিয়ে যায়। এসময় স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে এসে রাত ১১ টার দিকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিলু মিয়া বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ধারনা করা হচ্ছে নিজেদের মধ্যে কোন বিরোধের জের ধরে আমিরুল ইসলাম তাকে হত্যা করেছে। তবে আমিরুলকে ধরতে পুলিশের বিশেষ অভিযান চলছে।

ঝিনাইদহ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলশ সুপার কনক কুমার দাস জানান, ফার্মেসি মালিক আমিরুল ইসলাম জেলা শহরের ভুটিয়ারগাতী উত্তরপাড়া গ্রামের রশিদের ছেলে। তাকে ধরতে বাড়িতে গেলেও কাউকেই পাওয়া যায়নি।
প্রত্যক্ষদর্শী মুরগি ব্যবসায়ী আজিজ জানান, রাস্তার ওপাশ থেকে দেখছি আমিরুল দ্রুত দোকানের শাটার বন্ধ করে ছুরি হাতে নিয়ে দৌড়াচ্ছে। এসময় তাকে দাঁড়াতে বল্লে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়।

নিহতের ভাগ্নে ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল আওয়াল জানান, ব্যবসা সংক্রান্ত কাজে প্রায়ই আমিরুলের দোকানে আড্ডা দিত মামা মিজানুর রহমান। রাতেও সে একই ভাবে দোকানে বসেছিল। কিন্তু মামা ট্রাক কেনার জন্য সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা দিয়েছিল আমিরুলের কাছে। ধারনা করা হচ্ছে এ টাকা নিয়ে কোন ঝামেলার কারনে মামাকে হত্যা করেছে।