জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না, লালমনিরহাট প্রতিনিধি॥ লালমনিরহাটের আদিতমারীতে আহসানুজ্জামান বাবু (৩০) নামের এক শারীরিক প্রতিবন্ধিকে এলোপাতাড়ি মারধর ও তার দোকানে হামলা চালিয়ে লুটপাট করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহসানুজ্জামান বাবু আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ি ইউনিয়নের খাতাপাড়া মাজার এলাকার পুলিশ সদস্য মৃত আনসার আলীর ছেলে। সে গত ৩ দিন ধরে আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় ৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদিতমারী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন প্রতিবন্ধি আহসানুজ্জামান বাবু।

আজ বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকালে শারীরিক প্রতিবন্ধি আহসানুজ্জামান বাবুর সাথে কথা বলে ও অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার সাপ্টিবাড়ি ইউনিয়নের খাতাপাড়া এলাকায় তার বাড়ির পার্শ্বে রাস্তার ধারে দীর্ঘদিন ধরে গালামাল দোকান করে আসছেন তিনি। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সোমবার দুপুরে একই এলাকার লিয়াম মিয়া, লাকী বেগম ও বাবুল মিয়া লাঠি ছোড়া ও লোহার রডসহ তার দোকানের ভিতরে প্রবেশ করে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও মালামাল তছনছ করিয়া ৪০ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করেন। এসময় দোকানের ক্যাশ থেকে ১২ হাজার টাকা বের করে নিয়ে যায় তারা। তিনি বাঁধা দিতে গেলে তাকে এলোপাতাড়ি মারধর করে মারাত্বক ভাবে আহত করা হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তাদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে শারীরিক প্রতিবন্ধি বাবুর ডান হাতের অনেকটা কেটে যায় এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতপ্রাপ্ত হন তিনি। তার চিৎকারে এলাকাবাসীরা এসে তাকে উদ্ধার করে আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি করান। বর্তমানে বাবু উপজেলা হাসপাতালের ২৩ নং বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত বাবলু মিয়ার সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের সাথে কোন কথা বলতে রাজি হননি। বরং কথা বলার এক পর্যায়ে তিনি সাংবাদিকদের সাথে উত্তেজিত হয়ে উঠেন।

আদিতমারী হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ আব্দুস ছালাম শেখ জানান, প্রতিবন্ধি বাবুর ডান হাত মারাতœকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে। তার শরীরের বিভিন্নস্থানে ফোলা জখম রয়েছে বলেও জানান তিনি।

আদিতমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হরেশ্বর রায় অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।