মোঃ ইসলাম হোসেন, জেলা প্রতিনিধি সিরাজগঞ্জ::
সরকারের নিষেধাজ্ঞা তোয়াক্কা না করে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলা জুড়ে চলছে অবৈধভাবে পুকুর খননের মহোৎসব।
অনুসন্ধানে দেখা গেছে পুলিশ প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই চলছে অবৈধভাবে পুকুর খনন।পুকুর খননে ব্যাবহার হচ্ছে ভেকু, চায়না হ্যারো গাড়ি, ও ট্রাক,অবৈধভাবে পুকুর খনন চলছে তার প্রমাণ খুঁজতে গেলে স্থানীয় জনসাধারণ বিভিন্ন অভিযোগ তুলেধরেন।এলাকাবাসী বলেন

রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ভট্রমাঝুড়িয়া গ্রামের বাহাদুরের ছেলে আলম ভেকু দিয়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে পুকুর খননের ইজারা নিয়েছেন। সড়কের জন্য ক্ষতিকারক কিছু যানবাহন দ্বারা মাটি খনন করে পুকুর তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে একটি প্রভাবশালী মহল।

এলাকার ফসলি কৃষি জমিগুলোতে জলাবদ্ধতায় ব্যহত হচ্ছে ফসল উৎপাদন। এবং বিশ্বরোডসহ বিভিন্ন কাচা-পাকা সড়ক দিয়ে ওই ভারী যানবাহন চলাচল করায় ধুলো ও কাঁদা মাটিতে পরিণত হয়েছে।
প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনারও শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। পুকুর খনন করে
খাদ্য ঘাটতি সহ ফসলি জমি নষ্টের অভিযোগ করেন ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। এর পরও থেমে নেই অবৈধভাবে পুকুর খনন।
এলাকাবাসীরা আরো বলেন পুলিশ আসে ঠিকাদারের সাথে কথা বলে চলে যায়। কিন্তু পুকুর খনন বন্ধ হয়না।
পুলিশ প্রশাসন যেন দেখেও না দেখার ভান করে আছে, সরকারের আইন যেন তাদের কাছে খেলনা। তা না হলে প্রায় ৫০টিরও বেশি পুকুর অবৈধ ভাবে খনন কেমনে হয় আমাদের মাথায় আসেনা।
কৃষি জমির ওপর মাছ চাষের জন্য পুকুর খনন করে জনসাধারণের ফসলি জমিগুলোতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে। ফলে নষ্ট হয়ে যাবে এবারের ইরি বোরো ধানসহ সকল প্রকার ফসলাদী।

এছাড়া ইটভাটা মালিকদের ইন্ধনে অবৈধভাবে পুকুর খননের মাধ্যমে চার ফসলি জমি জলাশয়ে পরিণত করার আলোচিত বিষয়টিও জনমনে গুঞ্জন ছড়িয়েছে ব্যাপক আকারে। কৃষি জমির মাটি এভাবে দিবারাত্রি বিভিন্ন ইটভাটায় বহন করার দৃশ্য সবসময় এ অঞ্চলের সবাই দেখে আসছেন।

আরো দেখা গেছে,উপজেলার চৈত্রহাটি পূর্বপাড়ায় ফসলি জমিতে প্রভাবশালী ইসমাইল ভেকু গাড়ি দিয়ে পুকুর খনন করেছেন। সেখানে শুধু ফসলি জমিই নয় এ ছাড়াও রাস্তা ও একটি ব্রিজ হুমকির মুখে পরে আছে ৷ এলাকাবাসির অভিযোগে অত্র ইউনিয়ের, ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকতা মোঃ আঃ কাউয়ুম ঘটনা স্থলে এসে এ পুকুর খনন বন্ধ করেন।

উপজেলাব্যাপী যে পরিমাণে পুকুর খনন চলছে এর বিরুদ্ধে প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিত বলে মনে করেন এলাকাবসী। তাই স্থানীয় প্রশাসনকে কঠোর নজরদারীর মধ্য দিয়ে অবৈধভাবে পুকুর খনন প্রক্রিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করার আহ্বান জানান স্থানীয় সাধারন মানুষ।