লালমনিরহাট প্রতিনিধি::

লালমনিরহাট সরকারী শিশু পরিবারের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী নূরী খাতুন (১৪) নামে এক কিশোরী হুইল পাউডার খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।

সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানকার জরুরী বিভাগের চিকিৎসকরা আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন।

আহত নূরী খাতুন রাজশাহী বেবী হোম থেকে প্রায় ৯ বছর থেকে লালমনিরহাট শিশু পরিবারে বসবাস করছে। তার রেজিস্ট্রেশন নম্বর ৩৩৫৩।

শিশু পরিবার ও হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে, সমাজসেবা মন্ত্রনালয় পরিচালিত লালমনিরহাট সরকারী শিশু পরিবারে থেকে লেখাপড়া করছে শিশু নূরী আক্তার। সোমবার দুপুরে তার এক বান্ধবীর বাড়িতে দুইদিন থাকার জন্য অনুমতি চায় নুরী আক্তার। পরে তাকে অনুমতি দেয়া না হলে হুইল পাউডারের গুড়া খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে।

খবর পেয়ে দায়িত্বরতরা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আশংকাজনক অবস্থায় নূরীকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন চিকিৎসকরা।

লালমনিরহাট সরকারী শিশু পরিবারের তত্ত্বাধায়ক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মেয়েটি মানসিক ভারসম্যহীন। এর বাহিরে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এর আগেও আরো একবার সে হারপিক পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল বলে জানান তিনি।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, মেয়েটি সাবান গুড়া খেয়ে অসুস্থ হয়েছে বলে শুনেছি। তার চিকিৎসা চলছে।

ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।