বশির আহমেদ, বান্দরবান প্রতিনিধি ॥

বান্দরবানে থানচিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের আত্বীয়করন, বৈষম্য, দুর্নিতি, স্থানীয়দের বাদ দিয়ে বহিরাতগদের নিয়োগ করা হয়েছে।

অভিলম্বে স্থানীয়দের নিয়োগ এবং তালিকা বাতিলের দাবীতে ইউএনডিপি-সিএইচটিডিএফ পরিচালিত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিয়োগ বঞ্চিত শিক্ষক অভিভাবকরা মানববন্ধন করেছে।

রবিবার ১৫ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় স্থানীয় যুব সমাজের ব্যানারে বিভিন্ন ফেস্টুন ব্যানার নিয়ে থানচি বাজার প্রাঙ্গনে এই মানববন্ধন করেন এবং প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর বরাবরে স্বারকলিপি থানচি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রদান করেন।

জানা যায়, মানববন্ধনে স্বতস্ফুর্তভাবে অংশ গ্রহন করেন নিয়োগ বঞ্চিত ১৫জন শিক্ষক শিক্ষিকা এবং ২৫জন অভিভাবক। তাদের দাবী ২০১৩ সালে দাতা সংস্থা ইউএনডিপি-সিএইচটিডিএফ কর্তৃপক্ষ থানচি উপজেলা ২২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপিত হয় এবং ৬২ জন শিক্ষক নিয়োগ করেন।

নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক/শিক্ষিকাদের নিরলস শ্রম দিয়েছে ২০১৫ সাল পর্যন্ত শিক্ষকতা করে আসছিল। ২০১৫ সালে ইউএনডিপি-সিএইচটিডিএফ বিদ্যালয় গুলি প্রকল্প কাজের আর্থিক সহযোগীতা না পাওয়ার বন্দ করে দেন। ২০১৫ সাল হতে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক/শিক্ষিকারা ২০১৯ সাল পর্যন্ত দির্ঘ ৫টি বছর বিনা বেতনে শিক্ষকতা করে আসছিল। ২০১৭ সালে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী তিন পার্বত্য জেলার ২১০টি বিদ্যালয় সরকারি করনে ঘোষনা করেন তৎ মধ্যে থানচি উপজেলা ২০টি স্কুল অন্তভূক্ত ছিল। ২০ টি বিদ্যালয়ের ৬২জন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকরা আরো উৎসাহ উদ্দীপনা দিয়ে বিদ্যালয় গুলিতে পাঠদান করে আসছে।

ইউএনডিপি-সিএইচটিডিএফ পরিচালিত ও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা অন্তভূক্ত বিদ্যালয় গুলিতে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে যাচাই বাছাই, মনিটরি পরিদর্শণসহ সকল কার্যক্রম কমিটিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে প্রধান করে ইউএনডিপি-সিএইচটিডিএফ এর উপজেলা দায়িত্ব প্রাপ্ত একজনকে সদস্য সচিব করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করেন।

শিক্ষা সম্পর্কীত সংশ্লিষ্ট গন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপজেলা কমিটি সুপারিশ অনুসারের শিক্ষক নিয়োগের একটি তালিকা প্রেরন করেন সংশ্লিষ্টরা। ঐ তালিকায় বাদ পড়েছেন অনেকে এবং অনেকে নতুন করে বহিরাগতভাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে স্বারকলিপিতে বলা হয়েছে।

মানববন্ধনের স্বারক লিপি পাঠ করেন শিক্ষক অভিভাবক ইউস আজিম, স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিক্ষক অভিভাবক জ্ঞান সুন্দর চাকমা, টিমং পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক নসরাং ত্রিপুরা সহ প্রমূখ।