রাজবাড়ী প্রতিনিধি॥ আনন্দ টিভি পাবনা প্রতিনিধি সুবর্না নদীকে কুপিয়ে হত্যা করার প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে সাংবাদিকসহ সুশীল সমাজ ও রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ।

আজ শনিবার বেলা ১১ টায় রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সামনে ঘন্টাব্যাপি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন চলাকালিন সময়ে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা সুবর্না নদীর হত্যাকারিদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানান। তা না হলে সাংবাদিক সমাজ কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দেন। অন্যান্য সংগঠন সাংবাদিক হত্যাকান্ডে সব ধরনের সহযোগিতা এবং আন্দোলনে পাশে থাকার কথা বলেন।

আনন্দ টিভি রাজবাড়ী প্রতিনিধি খন্দকার রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, রাজবাড়ী প্রেস ক্লাবের সভাপতি খান মোঃ জহুরুল হক, রাস এর নির্বাহী পরিচালক লুৎফর রহমান লাবু, যুগান্তর পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি হেলাল মাহমুদ, ডিবিসি টেলিভিশনের প্রতিনিধি দেবাশিস বিশ্বাস, জিটির প্রতিনিধি মোঃ আশিকুর রহমান, বিজয় টিভির প্রতিনিধি শেখ মামুন, জেলা ছাত্রলীগের বিজ্ঞান ও প্রযোক্তি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ রাফি প্রমুখ।

এসময় আর টিভির প্রতিনিধি ও রাজবাড়ী প্রেস ক্লাবের সহসভাপতি এম মুনিরুজ্ঝামান মনির, মাছরাঙ্গা টিরি প্রতিনিধি ইমরান হোসেন মনিম, দিপ্ত টিভির প্রতিনিধ মোঃ রুবেলুর রহমান, রাজবাড়ী কণ্ঠ পত্রিকার প্রতিনিধি মোঃ আতিয়ার রহমান, যুব লীগ নেতা মোঃ মমিন হোসেনসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ মানববন্ধনে অংশগ্রহন করেন।

উলেখ্য যে, সত্যের পথে অবিচল ছিলেন বলেই আজ এই নিমম হত্যা কান্ড হয়। অতি দুত দোষিদের আইনের আওতায় আনা হওক। এই ঘটনার নিন্দা জানাই। আনন্দ টিভির পাবনা প্রতিনিধি সুবর্ণা আক্তার নদীকে (৩২) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

মঙ্গলবার রাত সোয়া ১০টার দিকে পাবনা শহরের রাধানগরে নিজবাসার সামনে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুল হক হত্যাকান্ডের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, রাতে কয়েকজন সন্ত্রাসী নিজবাসার সামনে সুবর্ণা নদীর ওপর হামলা চালায়। তারা সুবর্ণাকে হাতে ও মাথায় এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। পরে তার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এসে উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুবর্ণাকে মৃত ঘোষণা করেন। সুবর্ণা নদী জেলার আটঘরিয়া উপজেলার বাসিন্দা। তিনি স্থানীয় অনলাইন পোর্টাল ‘দৈনিক জাগ্রত বাংলা’র সম্পাদক ও প্রকাশক।