শনিবার, ২২ Jul ২০১৭ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৪ English Version

সারাদেশ - ঢাকা বিভাগ - মুন্সিগঞ্জ

তিন হাজার ৬শ টন ক্ষমতার সেই ভাসমান ক্রেন এখন মাওয়ায়

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি :> অবশেষে দৃশ্যমান হতে চলেছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। শিগগিরই সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণে বাস্তব রুপ নিতে যাচ্ছে।দেশের সর্ববৃহত এ সেতুর মূল অবকাঠামোগত নির্মাণ প্রস্তুতি এখন চলছে জোরেশোরে। এরই মধ্যে সেতুর মূল অবকাঠামো (সুপারস্ট্রাকচার) নির্মাণের সর্বশ্রেষ্ঠ স্প্যানটি আজ বুধবার দুপুর ২টার দিকে মাওয়া এলাকায় এসে পৌঁছেছে। এ পদ্মা সেতুর সুপার স্ট্রাকচার (স্প্যান) স্থাপনে তিন হাজার ৬শ টন ক্ষমতার। এটি প্রকল্প এলাকায় সর্বশ্রেষ্ঠ। আজ থেকে ৮১ দিন আগে গত ১২ অক্টোবর নেদারল্যান্ডস থেকে বাংলাদেশের কুতুবদিয়া চ্যানেলে হয়ে মাওয়ায় আসা । নতুন হ্যামারটি আসার পর পাইল স্থাপন কাজের গতি বেড়ে যাবে। চীনের জোহাও থেকে মাদার ভেসেলে করে এটি রওনা হয়। গত শুক্রবার রাতে এটি কুতুবদিয়া চ্যানেলে এসে পৌঁছে। ওখান থেকে আনুষ্ঠানিকতা শেষে এটি মাওয়ার পথে রওনা দেয়। গত মঙ্গলবার বিকেল শরীয়তপুরের সুরেশ্বর এলাকায় অবস্থান রত ছিল। রাতে ঘন কুয়াশা করলিত কারণে জাহাজ টি এ গোতেনা পারায় এটি ওই খানেই নোঙর করে ছিল। পদ্মা সেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের জানান, সবচেয়ে বেশি ক্ষমতাসম্পন্ন সর্বশ্রেষ্ঠ বিশাল আকারের এ ক্রেনটিই সেতুর সুপার স্ট্রাকচার স্থাপনে কাজে লাগানো হবে। তিনি আরো বলেন তিন হাজার ৬শ টন ক্ষমতার এই ক্রেন পদ্মা সেতু নির্মাণকাজে ব্যবহৃত। বিশাল আকারের ভাসমান ক্রেনটি চট্টগ্রাম বন্দরের একটি বিশেষ টাগ বোট দিয়ে নদীপথে টেনে এটি মাওয়ায় নিয়ে আসা হয়। বাংলাদেশে ভাসমান ক্রেন হিসেবে কোরিয়া থেকে আমদানি করা বিআইডাব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় ও নির্ভীকের ধারণক্ষমতা এক হাজার ৪শ টন করে। সে তুলনায় চীনা এ ক্রেনের ক্ষমতা আড়াই গুণের বেশি। ভারী ক্রেনটি চলে আসার মধ্য দিয়ে সুপার স্ট্রাকচার স্থাপনের সব আয়োজন প্রায় সম্পন্ন। সুপারস্ট্রাকচার স্থাপনের আগের কাজগুলো। মূল সেতুর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সুপারস্ট্রাকচারে মোট ৪১টি স্প্যান থাকবে। প্রতিটি স্প্যানের দৈর্ঘ্য হবে ১৫০ মিটার এবং আনুমানিক ওজন ২ হাজার ৯০০ টন। (৩৫ মিটার) উঁচু পিলার উঠবে। আর পিলারের ওপরই বসবে স্প্যান। এই পিলার গ্রুপের দৈর্ঘ্য ১২৮ মিটার। এর মধ্যে নদীর তলদেশ থেকে মাটির গভীরেই রয়েছে ১২২ মিটার। বাকি ছয় মিটার পানির মধ্যে। এখানে যাতে পানি ঢুকতে না পারে এমনভাবেই রাখা হয়েছে। এদিকে জাজিরা প্রান্তে ভায়াডাক্টের (ভূমিতে সংযোগ সেতু) পাইলের কাজও শুরু হয়েছে। এটির কাজও এগিয়ে চলছে। পদ্মা সেতুর পাইল গ্রুপ সম্পন্ন হওয়া এটি প্রথম পিলার। এখান থেকেই পিয়ার তৈরির কাজ চলছে। এদিকে ৩৮ নম্বর পিলারের কাজও চলছে । এক পিলার থেকে অন্য পিলারের দূরত্ব ১৫০ মিটার। দুই পিলারের মাঝেই বসিয়ে দেওয়া হবে সুপারস্ট্রাকচারটি। আর এর ফলে দৃশ্যমান হতে শুরু করবে পদ্মা সেতু। জাজিরা প্রান্তে ভায়াডাক্টের (ভূমিতে সংযোগ সেতু) পাইলের কাজও শুরু হয়েছে। এটির কাজও এগিয়ে চলছে বলে তিনি আরো জানান। উল্লেখ্য,পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। চার লেনবিশিষ্ট এই সেতু ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এবং ২২ মিটার চওড়া। এটি ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে বলে সরকারের পক্ষ থেকে আগে থেকেই জানানো হয়েছে। ৩ মিটার ব্যাসের ৪শ’ ফুট দীর্ঘ পাইলটির ৪০ ফুট ভেতরে প্রবেশ করেছে। অন্যদিকে নদীর মাঝে মাঝে চলছে ড্রেজিং-ও পিলার পাইলিং অন্তর অন্তর, চীনের প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন, নতুন বছরের জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারি মাসে দু’টি পিলারের ওপর স্প্যান-গার্ডার বসিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে, এতে পদ্মা নদীর উপরে সেতু আকৃতি স্পষ্ট হবে। অর্থাৎ বছর শেষ হলেই পিলারের ওপর ভর করে দাঁড়াবে স্বপ্নের পদ্মাসেতু। এই সেতুটির মূল অবকাঠামো তৈরি করা হচ্ছে স্টিল দিয়ে। তীব্র বায়ু প্রবাহ ও ভূমিকম্পজনিত ধাক্কা মোকাবেলায় বেছে নেওয়া হয়েছে ওয়ারেন ট্রাস ফর্ম। চীন এবং বাংলাদেশের শ্রমিকরা যৌথভাবে সেতুর জয়েন্ট, সেকশন, গার্ডার, টপকর্ড ও বটমকর্ড অংশের কাজ নিয়ে ব্যস্ত। এগুলোর বেশিরভাগ কাজই স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে হচ্ছে। মাওয়া পয়েন্টে টোল প্লাজা, সংযোগ সড়কে থাকা ব্রিজ, সংযোগ সড়কের পাশের সার্ভিস রোড তৈরি। পদ্মাসেতু প্রকল্পের। দেওয়ান কাদের আরও জানান, যে দু’টি স্প্যানের কাজ চলছে সেগুলো মাওয়া অংশের ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের মাঝামাঝিতে আর আরেকটি স্প্যান ৩৭ ও ৩৮ এর মাঝামাঝি বসবে। সরেজমিনে দেখাগেছে, পদ্মা নদীর মধ্যে কয়েকটি পিলার দৃশ্যমান হয়েছে। নতুন আরও কয়েকটি পিলারের কাজ চলছে। নদীর দুই পাশে সংযোগ সড়কের কাজও প্রায় শেষের দিকে। তবে সংযোগ সেতুর কিছু কাজ উদ্বোধনের ঠিক আগে শেষ করা হবে, যাতে ফিনিশিং সুন্দর হয়। পদ্মা সেতুর মাধ্যমে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে দেশের অন্য জেলাগুলোর যাতায়াত ব্যবস্থা অনেক এগিয়ে যাবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোতে শিল্প-কারখানা গড়ে ওঠার সুযোগ সৃষ্টি হতে যাচ্ছে। ব্যবসা-বানিজ্য প্রসার হবে।

শ্রীনগরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গোলাগুলি : অস্ত্র উদ্ধার চলছে

এম.আর রয়েল, শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) থেকে:: শ্রীনগরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। আজ বুধবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার বাঘড়া ইউনিয়নের কাঠালবাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, অস্ত্র উদ্ধারে র‌্যাব-১১ ও শ্রীনগর থানা পুলিশের দুটি টিম কাজ করছে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ওই এলাকার সবুজ আলী মাদবর গ্রুপের লোকজন এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ মামুন মাদবরের লোকজনকে ধাওয়া করে। এসময় সবুজ আলীর লোকজন তাদেরকে লক্ষ্য করে ৮ থেকে ১০ রাউন্ড গুলি করে। এতে কোন হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও মুহুর্তে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে। পরে দুপক্ষই লোকজন নিয়ে এলাকায় মহড়া দিতে থাকে। ঘটনার পরপরই র‌্যাব ও পুলিশের দুটি টিম সবুজ আলীর বাড়ীসহ কয়েকটি বাড়ী ঘিরে ফেলে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত র‌্যাব ও পুলিশ অস্ত্র উদ্ধারের জন্য তল্লাশী চালিয়ে যাচ্ছে। উল্লেখ্য, আধিপত্য বিস্তারের দ্বন্দ্বে স্বাধীনতার পর থেকে ওই এলাকায় শতাধিক খুনের ঘটনা ঘটেছে। বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম ব্যাতীত এই ইউনিয়নের সকল নির্বাচিত চেয়ারম্যানই দ্বন্দ্বের কারণে খুন হয়েছেন। সবুজ আলী বাঘড়ার ২০০১ এর আলোচিত ফাইভ মার্ডার মামলার আসামী আনোয়ার আলীর ছেলে।

শ্রীনগরে ৫০০ কেজি জাটকাসহ র‌্যাবের হাতে আটক ২

এম.আর রয়েল, শ্রীনগর(মুন্সীগঞ্জ)থেকে:: শ্রীনগরে ১২ মণ জাটকা ইলিশসহ দুই মাছ ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-১১। র‌্যাব-১১ মুন্সীগঞ্জ ভাগ্যকুল ক্যাম্প কমান্ডার এএসপি মোঃ মাসুদ আনোয়ার জানান, আজ মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা-দোহার সড়কের বালাশুর এলাকা থেকে তাদের টহল টিম একটি পিকাপের ভিতর থেকে ৫০০ কেজি জাটকাসহ সাদ্দাম হোসেন (২৮) ও আবুল কালাম হাওলাদার (৫২) নামক দুই মাছ ব্যবসায়ীকে আটক করে। পরে বেলা ১১টার দিকে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যতন মার্মা মোবাইল কোর্ট বসিয়ে ঐ দুই ব্যবসায়ীকে মৎস্য আইনে প্রত্যেকে ৫ হাজার করে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ও জব্দকৃত মাছ এতিমখানা এবং ল্লিলাহ বোডিংয়ে বিলিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন।

শ্রীনগরে প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় ২ ডাক্তারসহ ৮ জন গ্রেপ্তার

এম.আর রয়েল:: শ্রীনগরে রানী জেনারেল হাসপাতালে সিজারিয়ানের সময় এক প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় ২ ডাক্তারসহ ৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ রোববার সকালে তাদেরকে মুন্সীগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এর আগে ডাক্তার ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের গাফলতির অভিযোগে শনিবার রাতে প্রসূতির স্বামী শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে শ্রীনগর থানায় ৯ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। শনিবার সন্ধ্যায় রোজিনা বেগম (২২) নামে ওই প্রসূতির মৃত্যু হয়। এতে প্রসূতির স্বজনরা বিক্ষোভ শুরু করে। পুলিশ ও র‌্যাব দুই ঘন্টা চেষ্টা করে বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রনে আনে। রোগীর স্বজনরা ও প্রতক্ষদর্শীরা জানায়, লৌহজং উপজেলার চন্দ্রের বাড়ী এলাকার শহিদুল ইসলামের স্ত্রী রোজিনা বেগম (২২) এর প্রসব ব্যাথা উঠলে তাকে শনিবার সকাল ১১ টার দিকে রানী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ঢাকা থেকে ডাক্তার আসার কথা বলে কাল ক্ষেপন করতে থাকে। বিকাল চারটার দিকে ডাঃ তানবীর নাহার শামীমা সিজারিয়ান করে রোজীনার পুত্র সন্তান প্রসব করান। কিন্তু অনেক সময় পেরিয়ে গেলেও রোগীর কোন স্বজনদের ওটি রুমে ঢুকতে না দেওয়ায় তাদের সন্দেহ হয়। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে মৃত রোজীনাকে ঢাকায় নেওয়ার জন্য এম্বুল্যান্সে তোলা হয়। এসময় রোজিনার স্বামী তার স্ত্রীর শরীর স্পর্শ করে দেখতে পান রোজিনা মৃত্যু বরণ করেছে। তিনি অভিযোগ করেন, আনাড়ী ডাক্তার দ্বারা সিজার করায় রোগীর মৃত্যু হয়েছে। রোজিনার আত্মীয় স্বজনরা চিকিৎসায় গাফলতি হয়েছে বলে প্রতিবাদ করলে হাসপাতালের পার্শ্ববর্তী বাড়ীর শাহ নেওয়াজ রোগীর আত্মীয় স্বজনদেরকে দ্রুত হাসপাতাল ছেড়ে যাওয়ার জন্য হুমকি দেন। পরে রোজিনার আত্মীয় স্বজনরা বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়ার আগেই হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুন অর রশিদ, ম্যানেজার শ্যাম বাবুসহ কর্মকর্তারা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ হাসপাতালের মালিকানার অংশীদার ও শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্যাথলজি বিভাগের টেকনিশিয়ান আবুল কালাম আজাদ, নার্স লাকি আক্তার, হামিদা আক্তার, আকলিমা আক্তার, নুপুর খানম ও এক্সরে টেকনিশিয়ান আব্দুল্লাহিল মাসুমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। কিন্তু রোগীর আত্মীয় স্বজনরা ডাক্তারদের গ্রেপ্তারের দাবী জানাতে থাকলে রাত দশটার দিকে অর্ধশতাধিক কক্ষের তালা ভেঙ্গে চার তলার ৪১১ নম্বর কক্ষ থেকে গাইনী সার্জন ডাঃ তানবীর নাহার শামীমা ও এনেসথেসিয়ার ডাক্তার বাশার মোঃ আব্দুস সালামকে আটক করে। তাদেরকে আটক করার পর ঢাকা থেকে একাধিক ডাক্তার নেতা থানায় ছুটে আসেন। রাতভর ডাক্তার নেতারা ও স্থানীয় দালাল চক্র তাদের ছাড়িয়ে নিতে তদবির চালায়। কিন্তু পুলিশ তাদের অবস্থানে অনড় থেকে আজ রোববার সকালে আসামীদেরকে মুন্সীগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করে।

পদ্মাসেতুর কাজের গতি বাড়িয়েছে চিনা শক্তিশালী হ্যামার

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:: প্রথম শুরু হওয়া মূল পাইলিংয়ের কাজ এগিয়ে চলছে। ৩ মিটার ব্যাসের ৪শ’ ফুট দীর্ঘ পাইলটির ৪০ ফুট ভেতরে প্রবেশ করেছে। অন্যদিকে নদীর মাঝে মাঝে চলছে ড্রেজিং-ও পিলার পাইলিং অন্তর অন্তর, চীনের প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন, ২ সপ্তাহর মধ্যে দু’টি পিলারের ওপর স্প্যান-গার্ডার বসিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে, এতে পদ্মা নদীর উপরে সেতু আকৃতি স্পষ্ট হবে। অর্থাৎ পিলারের ওপর ভর করে দাঁড়াবে স্বপ্নের পদ্মাসেতু। এভাবে একটির পর একটি করে মোট ৪২টি পিলারের ওপর ১৫০ মিটার দীর্ঘ ৪১টি স্প্যান (মাওয়া থেকে জাজিরা পর্যন্ত) দিয়ে গড়ে উঠবে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা বহুমুখী সেতু। বর্তমানে মাওয়ায় পদ্মাতীরের অদূরে ট্রাস ফেব্রিকেশন ইয়ার্ডে সেতুর উপরিভাগের (স্প্যান) জয়েন্টের কাজ চলছে। কংক্রিট দিয়ে তৈরি না করে ওজন কমাতে এই সেতুটির মূল অবকাঠামো তৈরি করা হচ্ছে স্টিল দিয়ে। তীব্র বায়ু প্রবাহ ও ভূমিকম্পজনিত ধাক্কা মোকাবেলায় বেছে নেওয়া হয়েছে ওয়ারেন ট্রাস ফর্ম। চীন এবং বাংলাদেশের শ্রমিকরা যৌথভাবে সেতুর জয়েন্ট, সেকশন, গার্ডার, টপকর্ড ও বটমকর্ড অংশের কাজ নিয়ে ব্যস্ত। পদ্মাসেতু প্রকল্পের (মূল সেতু) নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মোঃ আবদুল কাদের প্রতিবেদককে জানান, এ পর্যন্ত ৩টি স্প্যান চীন থেকে এসেছে। যেগুলো মাওয়া অংশে ওয়ার্কশপে জয়েন্ট দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে একটির কাজ শেষ হয়ে মাত্র। অন্যটির কাজ চলছে। সেতুর নকশা পরিকল্পনা অনুযায়ী, উপরের অংশের সোনালি রঙের দু’টি স্প্যানের মধ্যে ৩৪টি জয়েন্ট হবে। ওয়ার্কশপে এখন পর্যন্ত ৪টি জয়েন্টের কাজ শেষ হয়েছে। একেকটি জয়েন্টের ওজন ৪৮ থেকে ৬০ টন। পদ্মাসেতুর প্রতিটি পিলারে ছয়টি করে মোট ২৪০টি পাইল থাকবে। আর দুই প্রান্তে আরও ১২টি করে ২৪টি পাইল থাকবে। দেওয়ান কাদের আরও জানান, যে দু’টি স্প্যানের কাজ চলছে সেগুলো মাওয়া অংশের ৬ ও ৭ নম্বর পিলারের মাঝামাঝিতে আর আরেকটি স্প্যান ৩৭ ও ৩৮ এর মাঝামাঝি বসবে। সরেজমিনে দেখাগেছে, পদ্মা নদীর মাঝে কয়েকটি পিলার দৃশ্যমান হয়েছে। নতুন আরও কয়েকটি পিলারের কাজ চলছে। তবে সংযোগ সেতুর কিছু কাজ উদ্বোধনের ঠিক আগে শেষ করা হবে, যাতে ফিনিশিং সুন্দর হয়। পদ্মা সেতুর মাধ্যমে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে দেশের অন্য জেলাগুলোর যাতায়াত ব্যবস্থা অনেক এগিয়ে যাবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোতে শিল্প-কারখানা গড়ে ওঠার সুযোগ সৃষ্টি হতে যাচ্ছে। ব্যবসা-ব্যানিজ্য প্রসার হবে।

আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণ এখন প্রাণের দাবী!

আরিফ হোসেন/এম.আর রয়েল, শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) থেকে:: ফের আড়িয়ল বিলেই বিমানবন্দর নির্মাণের উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার! এমন গুঞ্জন এখন আড়িয়ল বিল এলাকাসহ আশপাশের চারটি উপজেলার সকল শ্রেনী পেশার মানুষের মধ্যে। গুঞ্জন নয় আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণ এখন বিল এলাকাসহ আশপাশের শ্রীনগর-সিরাজদিখান-দোহার-নবাবগঞ্জ এলাকার মানুষের প্রানের দাবীতে পরিনত হয়েছে। পদ্মা সেতুর সাথে সাথে এ অঞ্চলে বিমানবন্দর নির্মাণ হলে পাল্টে যাবে অর্থনৈতিক চিত্র। ঢাকার পাশে প্রাকৃতিক পরিবেশে গড়ে উঠবে পরিকল্পিত নগরী এই প্রত্যাশা সবার। গত কয়েকদিনে বিল এলাকায় ঘন ঘন হেলিকপ্টারের চক্কর বিলবাসীর মধ্যে এরকম ধারণার জন্ম দিয়েছে। সম্প্রতি কয়েকদিনের ব্যবধানে আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মানের পক্ষে জনমত গঠনের জন্য সরকার দলীয় লোকজন উপজেলার বাড়ৈখালী ও দয়হাটা টেক্কা মার্কেট এলাকায় দুটি সমাবেশ করায় এবং বড় সমাবেশের প্রস্তুতি নেওয়ায় এ ধারনা বিল এলাকায় জোড়ালো হচ্ছে। বিল রক্ষা আন্দোলন কমিটির নেতাদের কথায়ও এমন ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। তবে আন্দোলনকারীদের অনেকেই মনে করছেন সরকারী দলের লোকজন আন্দোলনে সম্পৃক্ত থেকে সরকারের সিদ্ধান্ত প্রতিহত করেছিল। এখন স্থানীয়ভাবে দলীয় ইমেজ ফিরিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষনের জন্যই এমন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। শ্রীনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) দিলরুবা শারমিন জানান, সরকার ২০১১ সালে আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার পর ফের আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্তের বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোন রকম নির্দেশনা তাদের কাছে আসেনি। তবে স্থানীয় অনেক লোকজন তার কাছে বিমানবন্দর নির্মানের বিষয়ে জানতে চায়। এতে মনে হচ্ছে বিমানবন্দর নির্মাণের পক্ষে লোকজন উৎসাহী হয়ে উঠছে। গত কয়েকদিনে বিল এলাকায় সরজমিনে ঘুরে এবং বিল আন্দোলন রক্ষা কমিটির নেতাদের সাথে আলাপ করে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। অনেকেই তাদের পূর্বের অবস্থান থেকে সরে এসেছেন। আড়িয়ল বিল রক্ষা আন্দোলন কমিটির সদস্য সচিব জিয়াউর রহমান জিয়ন জানান, এর আগে সরকার বিমানবন্দর নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় বিলবাসীর সাথে কোন রকম আলোচনা করেনি। বেশীর ভাগ মানুষ আন্দোলন করেছে তাদের ভিটেবাড়ী রক্ষার জন্য, জমি রক্ষার জন্য নয়। ওই আন্দোলনের পর ২২ হাজার লোককে আসামী করে মামলা করে সরকার। এখন যদি সরকার তাদের মামলা উঠিয়ে নেয় এবং জমির ন্যায্য মূল্য দেয় তাহলে বিলবাসীরা তাদের সিদ্ধান্ত পুনরায় বিবেচনা করে দেখতে পারি। তবে তা একক সিদ্ধান্তের বিষয় নয়, সবাইকে নিয়ে বসেই সিদ্ধন্ত নিতে হবে। সরকার ২০১১ সালে আড়িয়ল বিলে বিমান বন্দর নির্মানের সিদ্ধান্ত নিয়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু করলে খোদ সরকার দলীয় লোকজন এর বিরোধীতা শুরু করে এবং আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটি গঠন করে। এ কমিটির আহবায়ক হন বাড়ৈখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তৎকালীন সহ-সভাপতি শাহজাহান বাদল। আন্দোলন কারীদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ইকবাল হোসেন মাষ্টার। তাদের নেতৃত্বে আন্দোলনের একপর্যায়ে ২০১১ সালের ৩১ জানুয়ারী ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের হাসাড়া এলাকায় বিলবাসী ও পুলিশের সংঘর্ষে এক পুলিশ সদস্য নিহত হন। পরে প্রধানমন্ত্রী ঘোষনা দেন জনগন না চাইলে আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর হবেনা। সরকারের উদ্যোগটি ভেস্তে যাওয়ার ৬ মাস পর স্থানীয় সাংসদ জানান, সরকার তার প্রকল্পটি বাতিল করেনি, স্থগিত করেছে। আন্দোলনের চার বছরের মাথায় ২০১৫ সালের ২৮ অক্টোবর এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ ভিডিও কনফারেন্সে নিজেদের ভুল স্বীকার করে প্রধানমন্ত্রীকে ফের আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহনের আহবান জানান। উপজেলা আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানায়, এর পর থেকে এমপির নির্দেশনায় দলীয় নেতাকর্মীরা ভেতরে ভেতরে জনমত গঠনের কাজ শুরু করে। ওই সূত্রটি আরো দাবী করে, তাড়াহুড়ো করে বিমানবন্দর নির্মাণ প্রকল্প হাতে নেয়া, সেখানে জমি অধিগ্রহণের লক্ষ্যে স্থানীয় প্রশাসনের বাড়াবাড়ির কারণে আওয়ামী লীগের জনপ্রতিনিধি ও নেতাদের সঙ্গে বিলবাসীর যে দূরত্ব তৈরি হয়েছিল তা ইতিমধ্যে কেটে গেছে। সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, আন্দোলনের চার বছরের মধ্যে পাল্টে গেছে বিল এলাকার চিত্র। বিল এলাকার ছয় কিলোমিটারের মধ্যে শুরু হয়েছে পদ্মা সেতু নির্মানের মহাযজ্ঞ। ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীত করনের কাজও শুরু হয়েছে। রেল লাইন স্থাপনের কাজও অচিরেই শুরু হওয়ার কথা। এসব কাজকে সামনে রেখে আড়িয়ল বিলে শুরু হয়েছে ভূমি দস্যুদের থাবা। দক্ষিনাচল, পুষ্পধারা, ওলামা সিটি, স্বপ্নচুড়া সহ কয়েকটি হাউজিং কোম্পানী উমপাড়া, কেয়ট খালী, হাসাড়া ও পাকিরা পাড়া এলাকায় মহাসড়ক থেকে পশ্চিম দিকে প্রায় দেড় কিলোমিটার এলাকায় জমি কিনে সাইবোর্ড গেড়ে জানান দিচ্ছে নগরায়নের। দ্রুত দৃশ্যপট পাল্টানোর কারণে সাধারণ কৃষকদের ভাষায় বিল আর বিল থাকছেনা। একারণে বিমানবন্দর নির্মাণের বিরোধীতাকারীদের অনেকেই তাদের অবস্থান থেকে সরে এসে এখন আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য ন্যায্য মূল্যে সরকারকে জমি দিতে চাচ্ছেন। এর উল্টো চিত্রও রয়েছে। বিলটিতে অনেক খাস জমি রয়েছে। যারা এর ভোগদখলে আছেন তারা কোন ভাবেই চাননা আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর হোক। অপরদিকে, গত পাচ বছরেও সরকার বিমানবন্দর নির্মানের জন্য স্থান নির্বাচন করতে পারেনি। সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য সরকার ইতিমধ্যে জাপান সরকারের সাথে চুক্তি করেছে। কয়েক দিনের হেলিকপ্টারের ঘুরাঘুরিতে বিলবাসীরা ধারণা করছে এটা সম্ভাব্যতা যাচাইয়েরই অংশ। এ ব্যাপারে আড়িয়ল বিল রক্ষা কমিটির আহবায়ক শাহজাহান বাদল জানান, বিল আন্দোলন মামলায় ২২ হাজার লোককে আসামী করে যে মামলা হয়েছে। তাতে প্রায় ২০০ জনকে চার্জশীট ভূক্ত করেছে পুলিশ। আড়িয়ল বিলে হেলিকপ্টারের ঘুরাঘুরি ও সরকার দলীয় লোকদের সভা-সমাবেশ থেকে ধারণা করছি কিছু একটা হয়েছে। তাছাড়া ফের বিমান বন্দর নির্মাণ করার উদ্যোগ নেওয়ার বিষয়টি আমরা লোক মুখে শুনেছি। বিষয়টি নিয়ে তারা বিল রক্ষা আন্দোলন কমিটির লোকজন নিয়ে মিটিংয়ে বসবেন বলে জানান।

মুন্সীগঞ্জে কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধার

মোঃ রুবেল ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:: মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের জোড়ারদেউল এলাকায় একটি কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত মূর্তিটির ওজন প্রায় ২০ কেজি। আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জোড়ারদেউল পঞ্চায়েত কবরস্থানের একটি কবর খুঁড়তে গেলে মূর্তিটি বেড়িয়ে আসে। পরে স্থানীয়রা প্রশাসনকে বিষয়টি জানালে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া জাহান সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে এসে মূর্তিটি উদ্ধার করে উপজেলা কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। উদ্ধারকৃত মূর্তিটির সুন্দর কারুকার্জ খচিত বেদিটি পাওয়া গেছে। উপরের মূল মূর্তিটি পাওয়া যায়নি। হাতিমারা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক হাফিজুর রহমান জানান, পুলিশের উপস্থিতিতে উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী কর্মকর্তা মূর্তিটি উদ্ধার করেন।

মুন্সীগঞ্জে বাসর রাতে নববধূর আত্মহত্যা

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:: মুন্সীগঞ্জে বাসর রাতে রিংকু আক্তার (১৯) নামে এক নববধূ আত্মহত্যা করেছেন। আজ শনিবার ভোরে মুন্সীগঞ্জ শহরের উপজেলার দক্ষিণ ইসলামপুর গ্রামের স্বামীর বাড়িতে এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। রিংকু গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার এসআই মোরশেদ আহম্মেদ জানান, গত ৭ মাস আগে দক্ষিণ ইসলামপুর গ্রামের আমির হোসেন বেপারীর ছেলে নাহিদ বেপারী (২২)-কে একই গ্রামের আলাউদ্দিন শেখের মেয়ে রিংকু প্রেম করে পালিয়ে বিয়ে করেন। গতকাল শুক্রবার দুই পক্ষের আনুষ্ঠানিকতা হয়। এরপর রিংকু স্বামীর বাড়িতে উঠে। গভীর রাত পর্যন্ত স্বামী-স্ত্রী আলাপ-আলোচনা করেন। শনিবার ভোর রাত ৫ টার দিকে আকস্মিক রিংকু আত্মহত্যা করে। সকালে রিংকুর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহত রিংকুর বাবা আলাউদ্দিন শেখ বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করছেন বলে ওই পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তা মোরশেদ আহমেদ আরও জানান, স্বামী এবং স্ত্রী ও তাদের পরিবারের কারও সঙ্গে কোন ঘটনা ঘটেনি। আত্মহত্যার সঠিক কারণ জানা যায়নি। নিহত রিংকুর বাবা আলাউদ্দিন শেখ জানান, মেয়েকে আনুষ্ঠানিকতা করে স্বামীর হাতে তুলে দিলাম। মেয়েকে হাসি মুখে স্বামীর ঘরে পাঠালাম। কিন্তু কেন আত্মহত্যা করলো জানি না।

শ্রীনগরে এক ব্যবসায়ীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ

এম.আর রয়েল,শ্রীনগর :> শ্রীনগরে সালিশদারদের দাবী পূরণ না করায় এক মুরগী ব্যবসায়ীকে ষড়যন্ত্র করে ইয়াবা দিয়ে পুলিশে সোপর্দের অভিযোগ উঠেছে। তবে সালিশদাররা বলছেন সালিশ মিমাংসায় ওই ব্যবসায়ীর কাছে কোন ইয়াবা পাওয়া যায়নি। পুলিশ কিভাবে কি করেছে তা তাদের অজানা। এঘটনায় এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। গত রবিবার রাতে উপজেলার উত্তর কামারগাও পাকা ব্রিজ এলাকায় এঘটনা ঘটে। ভূক্তভোগী সোহেলের পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, ওই দিন সন্ধ্যা রাতে উত্তর কামারগাও গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী ফিরোজ মিয়ার বাড়ী থেকে অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগে স্থানীয় কয়েক যুবক সোহেলকে আটক করে এবং পাকা ব্রিজ এলাকার একটি ক্লাবে নিয়ে আসে। এ সময় সোহেলকে বেধম মারপিট করে তার কাছ থেকে নগদ প্রায় ষাট হাজার টাকা ও দুটি মোবাইল ফোনসেট কেড়ে নেয়। রাত প্রায় আটটার দিকে ওই ক্লাবের প্রভাবশালী কর্মকর্তা ও ভাগ্যকূল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে সালিশটি বসে। সালিশদাররা ফিরোজ মিয়ার শ্যালিকার সাথে সোহেলের অনৈতিক সম্পর্কের কথা বলে তার কাছে মোটা অংকের টাকা দাবী করে। সোহেল সালিশদারদের দাবীকৃত টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করে। এ সময় সালিশদাররা পুলিশে খবর দেয়। শ্রীনগর থানার এসআই রহমত সালিশ মিমাংসা থেকে সোহেলকে গ্রেপ্তার করেন। তিনি জানান সোহেলকে ২০ পিছ ইয়াবা সহ ক্লাবে আটকে রাখা হয়েছিল। তবে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও সালিশদার সামাদ মেম্বার জানান, সোহেল ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত নয়। তার কাছে কোন ইয়াবা পাওয়া যায়নি। অনৈতিক সম্পর্কের কারনেই তাকে আটক করা হয়েছিল। পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। সোহেলের এ পরকিয়া সম্পর্কের কারনে এর আগেও একবার সালিশ হয়েছিল। অপর সালিশদার ভাগ্যকুল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আঃ গফুর জানান, ক্লাবে সোহেলের সাথে কোন ইয়াবা পাওয়া যায়নি। তাকে অনৈতিক সম্পর্কের কারণেই আটক করা হয়। সোহেলের মোবাইল সেট দুটি কেড়ে নেওয়ার কথা তিনি শুনেছেন বলে জানান। কিন্তু সালিশের নেতৃত্ব দানকারী রফিকুল ইসলাম জানান, সোহেলকে অনৈতিক সম্পর্কের কারনে আটক করা হলেও পরে তার কাছে ইয়াবা পায় পুলিশ। স্থানীয়রা জানান, রফিকুল ও পুলিশের যোগসাজশেই এ কাজ হয়েছে। শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাহিদুর রহমান জানান, সোহেলর কাছ থেকে ইয়াবা উদ্ধারের পর মামলা দিয়ে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে স্থানীয়রা তাকে ইয়াবা দিয়ে ফাসিঁয়েছে কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

প্রধান সংবাদ


সর্বশেষ সংবাদ

মাওয়ায় আসছে পদ্মা সেতুর সবচেয়ে ভাড়ি চার হাজার টন ক্ষমতার ক্রেন

মুন্সিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী পাটালি গুড়, কালের বিবর্তনে আজ সে ঐতিহ্য হারাতে বসেছে

সেতু চালুর প্রথম দিনই চলবে রেল : প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা

ধলেশ্বরী নদী থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার

সিরাজদিখানে পানিতে ডুবে নাতনি’র মৃত্যু

বহুল আলোচিত মাওয়া মৎস্য আড়ৎ ২ ঘন্টায় কোটি টাকা বিকি-কিনি

মুন্সীগঞ্জে দেশি রিভারবলসহ আটক ১

শ্রীনগরে অজ্ঞাত পরিচয় এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

১৬ কোটি মানুষের পদ্মা সেতু চলতি মাসে শেষ হবে সার্ভিস এরিয়া নির্মাণের কাজ


আজকের সব সংবাদ

সম্পাদক : মো. আলম হোসেন
প্রকাশনায় : এ. লতিফ চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়:
সরদার নিকেতন
হাসনাবাদ, দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, ঢাকা-১৩১১।

ফোন: ০২-৭৪৫১৯৬১
মুঠোফোন: ০১৭৭১৯৬২৩৯৬, ০১৭১৭০৩৪০৯৯
ইমেইল: ekantho24@gmail.com