শনিবার, ২২ Jul ২০১৭ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৪ English Version

সারাদেশ - রাজশাহী বিভাগ - বগুড়া

বগুড়ায় বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৪

ই-কণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:: বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের ঘোগাব্রিজ এলাকায় যাত্রীবাহী বাস ও সিমেন্টবোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৪ জন নিহত হয়েছেন। এঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে আরো ১৫ জন। শুক্রবার দিনগত রাত ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের মো. মিলন (২৫), বগুড়ার শিবগঞ্জের রেজাউল করিম (৩৫), লালমনিরহাটের আতাউর (২০) ও কনক (২৫)। এসময় আহতদের উদ্ধার করে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শজিমেক) পাঠানো হয়েছে। আহতদের মধ্যে ২-৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা লালমনিরহাটগামী দেওয়ান পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো-ব-১১-১১০১) একটি যাত্রীবাহী বাস উক্ত স্থানে পৌঁছালে বিপরীতমুখী ঢাকাগামী সিমেন্টবোঝাই ট্রাকের (ঢাকা মেট্রো-উ-১৪-১৪৯৭) মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে যাত্রীবাহী বাসটি ছিটকে মহাসড়কের উত্তরপাশে খাদে পড়ে উল্টে যায়। এসময় বাসের নিচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই ৪ জন যাত্রী নিহত হন। দুর্ঘটনায় বাসের কমপক্ষে ১৫ জন যাত্রী আহত হন।

বগুড়ার ঐতিহ্যবাহী নওয়াব প্যালেস অবশেষে বিক্রি হয়ে গেলো

অনলাইন ডেস্ক :> পুরাকীর্তি ঘোষণার দাবিতে চলা আন্দোলনের ভেতরেই বিক্রি হয়ে গেলো বগুড়ার ঐতিহ্যবাহী নওয়াব প্যালেস। শত কোটি টাকার সম্পদ গোপনে হাত বদল হয়েছে মাত্র ২৭ কোটি ৪৫ লাখ টাকায়। দেড়শ বছরের এই স্থাপনা রক্ষায় ফুঁসে উঠেছেন সংস্কৃতিকর্মী ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা। প্রায় দেড়শো বছরের প্রাচীন এই নওয়াব প্যালেসে থাকতো বগুড়ার নওয়াব পরিবার। এর সাথে জড়িয়ে আছে জেলার ইতিহাস-ঐতিহ্য। বৃটিশ আমলে নির্মিত এই স্থাপনাটি দেখতে আসেন দেশি-বিদেশি পর্যটকরা। প্রায় তিন দশক আগে এখানে নির্মাণ করা হয় জাদুঘর ও বিনোদন পার্ক। তবে নওয়াবদের উত্তারধিকারী, অবিভক্ত পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ আলীর দুই ছেলে সৈয়দ হাম্মাদ আলী ও সৈয়দ হামদে আলী প্রাসাদটি বিক্রির জন্য তৎপর হয়ে ওঠেন। কয়েক বছর আগে তারা প্যালেসের সামনের একটি অংশ বিক্রিও করে দেন। এরপর তারা এক দশমিক ৫৫ একর জায়গা নিয়ে গড়ে ওঠা পুরো নওয়াব প্যালেসটিই বিক্রির চেষ্টা করতে থাকেন। বিষয়টি জানার পর ক্ষোভে ফুঁসে ওঠেন বগুড়ার সংস্কৃতি কর্মীরা। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষ থেকে গড়ে তোলা হয় আন্দোলন। তাদের আন্দোলনের মুখে প্যালেসটিকে সংরক্ষিত পুরাকীর্তি ঘোষণার জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তরকে অনুরোধ জানিয়ে চিঠিও দেয়া হয়। কিন্তু এতকিছুর পরেও প্যালেসটিকে রক্ষা করা সম্ভব হয়নি। গত ১৫ এপ্রিল ছুটির দিনে অত্যন্ত গোপনে দলিল সম্পদানের পর ১৭ এপ্রিল রোববার স্থানীয় রেজিস্ট্রি অফিসে তা রেজিস্ট্রি করা হয়। দলিলে শত কোটি টাকা মূল্যের ওই প্যালেসের মূল্য দেখানো হয়েছে মাত্র ২৭ কোটি ৪৫ লাখ ৭ হাজার টাকা। এটি কিনেছেন বগুড়ার তিন শীর্ষ ব্যবসায়ী যথাক্রমে বগুড়া চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মাছুদুর রহমান মিলন, চেম্বারের সহ সভাপতি শফিকুল হাসান জুয়েল ও সাবেক সহ সভাপতি আব্দুল গফুর। প্যালেসের কর্মকর্তারা বিষয়টি জানলেও কিছু বলতে রাজি হননি। ক্রেতাদের একজন ক্যামেরার সামনে আসতে রাজি না হলেও ফোনে প্যালেসটি কেনার কথা অকপটেই স্বীকার করেছেন। ঐতিহ্যবাহী নওয়াব প্যালেস বিক্রির খবর জানার পর বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন জেলার সাংস্কৃতিক কর্মী ও সুধীজনরা। প্যালেসটিকে রক্ষার দাবিতে তারা আন্দোলন অব্যাহত রাখবেন। বগুড়া শহরের সুত্রাপুর মৌজায় নওয়াব প্যালেস নির্মিত হয় ১৮৮৪ সালে।

বগুড়ায় দুইজনকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা

ই-কণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:: বগুড়া শহরের মাহবুবনগর এলাকায় এবং শাজাহানপুর উপজেলার আড়িয়াবাজারে দুইজনকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার গভীর রাতে এসব হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- বগুড়া শহরের ঠনঠনিয়া পশ্চিমপাড়ার আনছার আলীর ছেলে শহিদুল ইসলাম (২৮) এবং শাজাহানপুর উপজেলার কাটাবাড়িয়া মধ্যপাড়ার মৃত আজিজুল হকের ছেলে আনোয়ারুল ইসলাম (৪২)। শাজাহানপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সানোয়ার হোসেন জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। কারণ নৈশপ্রহরীকে খুন করা হলেও কোনো দোকানপাট লুটের ঘটনা ঘটেনি। স্থানীয় সূত্র জানায়, সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বগুড়া শহরের মাহবুবনগর এলাকায় শহিদুলকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে এবং গলা কেটে হত্যার পর লাশ ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা। নিহত শহিদুল পেশায় একজন কাঠমিস্ত্রি। কী কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে তা এখনো জানা যায়নি। রাতেই পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাসার জানান, ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে পরিকল্পিতভাবে শহিদুলকে হত্যা করা হয়েছে। অপরদিকে শাজাহানপুর থানা পুলিশ জানায়, সোমবার রাত ৯টা থেকে আড়িয়াবাজার এলাকায় নৈশপ্রহরীর দায়িত্ব পালন করছিলেন আনোয়ারুল ইসলাম। রাত ৩টা পর্যন্ত তাকে বাজার এলাকায় ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে। ভোর ৫টার দিকে বাজারের দক্ষিণপার্শ্বে আবর্জনার স্তুপের পাশে নৈশ-প্রহরী আনোয়ারুলের গলাকাটা লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। নিহতের হাত লুঙ্গি দিয়ে বাঁধা ছিল। আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে।

বগুড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মা-মেয়েসহ নিহত -৬, আহত -২৫

অনলাইন ডেস্ক :> বগুড়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মা-মেয়েসহ ৬ জন নিহত ও ২৫ জন আহত হয়েছেন। সোমবার দুপুরে ও সন্ধ্যায় বগুড়া–রংপুর মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে । জানা গেছে, বগুড়ায় বিআরটিসি বাসের সঙ্গে ট্রাকের মুখোমুখী সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই চারজন নিহত হন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ২৫ জন। সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বগুড়া-রংপুর মহাসড়কের মোকামতলা পাকুরতলা নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। এর আগে দুপুরে বগুড়ায় বাসচাপায় মা-মেয়ে নিহত হয়েছেন। ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে সদর উপজেলার বাঘোপাড়ায় সোমবার দুপুরে এই দুর্ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বগুড়া থেকে রংপুরগামী বিআরটিসির একটি বাস পাকুরতলায় পৌঁছালে বিপরীতমুখী একটি ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই বাসের ৪ যাত্রী নিহত হয়। তাৎক্ষনিকভাবে নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। দূর্ঘটনায় কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফুয়াদ রুহানী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন । এদিকে বগুড়া সদর উপজেলার বাঘোপাড়ায় সোমবার দুপুরে বাসচাপায় মা-মেয়ে নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন- বগুড়া সদর উপজেলার ঠেঙ্গামারা উত্তরপাড়ার জাহাঙ্গীর হোসেনের স্ত্রী রানু খাতুন (২৫) ও তাদের তিন বছর বয়সী মেয়ে জাকিয়া সুলতানা। এর মধ্যে জাকিয়া ঘটনাস্থলেই এবং তার মাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার দুপুরে রানু খাতুন তার মেয়েকে নিয়ে বাঘোপাড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মহাসড়ক পার হচ্ছিলেন। এ সময় রংপুর থেকে ঢাকামুখী সৈকত পরিবহনের একটি বাস তাদের চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই জাকিয়া সুলতানা মারা যায়।তার মাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান।পরে এলাকবাসী ধাওয়া দিয়ে এক কিলোমিটার দূরে বাসটি আটক করে। তবে চালক পালিয়ে যায়। বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আছলাম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বগুড়ায় আ.লীগ কর্মী নিহত, বিএনপি অফিসে আগুন

ই-কণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:: বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় মাহাতাব আলী (৫৫) নামে এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত হয়েছেন। সোমবার রাত ১টার দিকে উপজেলার বুড়িগঞ্জ ইউনিয়নের জামতলা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। মাহাতাব আলী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির স্থানীয় পরিচালক এবং শিবগঞ্জ উপজেলার খাদইল গ্রামের বাসিন্দা। তিনি বুড়িগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আব্দুল গফুর মণ্ডলের ভাগিনা। এ ঘটনার জের ধরে আওয়ামী লীগ কর্মীরা বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে আগুন দিয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে জামতলা বাজারে মাহাতাব আলী তার মামা আব্দুল গফুরের পক্ষে নির্বাচনী কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ওবায়দুর রহমানের সমর্থকেরা তার ওপর হামলা চালায়। এ সময় অস্ত্র দিয়ে কোপ দিলে মাহাতাব আলীর হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করতে গেলে আওয়ামী লীগের আরো দুই কর্মী আহত হন। স্থানীয়রা মাহাতাব আলীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এদিকে, মাহাতাব আলীর মৃত্যুর খবর পেয়ে খাদইল ও জামতলা গ্রামে ছড়িয়ে পরলে আওয়ামী লীগ কর্মীরা বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে আগুন ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে রাতেই পঞ্চদাস গ্রামের গোলাম রহমান (৩৫) নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আহসান হাবিব জানান, সহিংসতার পর এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

বগুড়ায় ট্রাকের ধাক্কায় বাস খাদে, নিহত-৩

ই-কণ্ঠ ডেস্ক:: বগুড়ার মহাস্থান এলাকার মাঝিপাড়ায় ট্রাকের ধাক্কায় যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে তিনজন নিহত হয়েছে। এঘটনায় কমপক্ষে আরো ৪০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের শিবগঞ্জ উপজেলার মাঝিপাড়া মোড়ে দুর্ঘটনাটি ঘটে। দুর্ঘটনায় নিহতদের নাম-পরিচয় এখনো জানা যায়নি। দুর্ঘটনার কারণে মহাসড়কে পৌনে এক ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রংপুর থেকে ঢাকাগামী শাওন এন্টারপ্রাইজ নামের একটি বাস মাঝিপাড়া মোড়ে দাঁড়িয়ে ছিল। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক বাসটিকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে বাসটি মহাসড়কের পাশে খাদে পড়ে উল্টে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলেই তিন যাত্রী নিহত হন। আহত হন কমপক্ষে ৪০ জন। স্থানীয় লোকজন ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহতদের উদ্ধার করে টিএমএসএস রফাত উল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতাল ও বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। দুর্ঘটনার পরপরই বগুড়া-১ আসনের সাংসদ আবদুল মান্নান মহাসড়ক দিয়ে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ছাড়া বগুড়া-২ আসনের সাংসদ শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধারকারীদের সহযোগিতা করেন। শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব জানান, দুর্ঘটনাস্থলেই তিনজন মারা গেছেন। উল্টে যাওয়া বাসের নিচে আর কেউ আটকা পড়ে আছেন কি না, সে জন্য ফায়ার সার্ভিস বাসটি রাস্তায় ওঠানোর কাজ করছে।

অপহরণের অভিযোগে যুবলীগ নেতাসহ ৫ জন গ্রেপ্তার

সুন্দরী নারী দিয়ে গণপূর্ত বিভাগের এক কর্মচারীকে অপহরণ করে চাঁদা দাবির ঘটনায় জড়িত সাবেক যুবলীগ নেতাসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় সেখান থেকে অপহৃত ওই কর্মচারীকে উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার রাতে শহরের মালগ্রাম থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। বুধবার দুপুরে বগুড়ার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়। গ্রেপ্তার যুবলীগনেতা সোহেল মালগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক। গ্রেপ্তারকৃত অন্যরা হলো-একই এলাকার লাল মিয়ার ছেলে রকি (২৬), খলিলুর রহমানের ছেলে আব্দুল মোমিন (২৭), মৃত ইউনুছের ছেলে জুয়েল (৩২) এবং জুয়েলের বোন সুইটি (৩৫)। গ্রেপ্তারকৃতরা সবাই যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। পুলিশ জানায়, একটি অপহরণকারী চক্র মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বগুড়া গণপূর্ত বিভাগের কার্য সহকারী আব্দুল মান্নানকে কৌশলে শহরের মালগ্রামে ডেকে নেয়। এরপর তার মোবাইল নম্বর থেকে মেয়ের মোবাইল নম্বরে ফোন করে জানায় আব্দুল মান্নানকে অপহরণ করা হয়েছে। মুক্তির বিনিময়ে ৮ লাখ টাকা দাবি করে অপহরণকারীরা। এ ঘটনায় অপহৃত আব্দুল মান্নানের ভাই আবু সাঈদ খান সদর থানায় অভিযোগ করেন। এরপর অপহৃত ব্যক্তিকে উদ্ধারে গোয়েন্দা পুলিশের ওসি আমিরুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি টিম মাঠে নামে। এ গোয়েন্দা টিম মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে অপহরণকারী চক্রের গ্যাং লিডার মালগ্রাম দক্ষিণপাড়ার আব্দুল বাসেতের ছেলে ও সাবেক যুবলীগ নেতা সোহেল আহম্মেদসহ (৩৭) চক্রের ৫ সদস্যকে শহরের মালগ্রাম দক্ষিণপাড়া থেকে গ্রেপ্তার করে। শহরের ১৪নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সোহেল এক সময় যুবলীগের মালগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির নেতা ছিল। তবে, বর্তমানে সে দলের কোনো পদে নেই। বগুড়ার পুলিশ সুপার মোজাম্মেল হক পিপিএম জানান, এ চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরী নারী দিয়ে প্রেমের ফাঁদ পেতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারি ও ব্যবসায়ীদের কৌশল ডেকে নেয়। এরপর তাদের জিম্মি করে মোটা অংকের টাকা দাবি করে আসছিল। এর আগে এক পুলিশ কনস্টেবলও এই চক্রের ফাঁদে ধরা পড়েছিল।

জিয়াউর রহমান একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক ছিলেন: উপদেষ্টা লালু

আল আমিন মন্ডল (বগুড়া) থেকে॥ বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও সাবেক এমপি মোঃ হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু বলেছেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক ছিলেন। তিনি আমাদের সবার হৃদয়ের মাঝে চিরকাল-চিরদিন বেঁচে থাকবেন। তিনি স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠাতা ও জাতীয় উন্নয়ন অগ্রগতির উজ্জ্বল ব্যক্তিত্ব ছিলেন। মঙ্গলবার বাদ আসর বগুড়া গাবতলীর নশিপুর ইউনিয়ন বিএনপি ও অঙ্গদলের উদ্যোগে বাগবাড়ীতে শহীদ জিয়া কলেজ মাঠে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৬তম শাহাদৎ বার্ষিকী পালন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মোনাজাত এবং ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। নশিপুর ইউনিয়ন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহফুজার রহমান ফারুকের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন গাবতলী থানা বিএনপির সাধারন সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান মোরশেদ মিল্টন, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক নতুন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ড্যাব বগুড়া জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ শাহ শাহজাহান আলী, ড্যাব নেতা ডাঃ জয়নাল আবেদীন, ডাঃ বদিউজ্জামান, বিএনপির নেতা রোকন তালুকদার, আবুল হোসেন মোল্লা, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া জেরিন রনি, আতিকুর রহমান, মফিদুল ইসলাম, আব্দুল মাজেদ, জুলফিকার হায়দার গামা, আগানিহাল বিন জলিল তপন, মকবুল হোসেন, জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, আব্দুল মোমিন, মতিয়ার রহমান, আতিকুর রহমান, নজরুল ইসলাম, আব্দুল লতিফ, জোবাইদুর রহমান গামা, মিজানুর রহমান, তাহের আকন্দ, আবু জাফর, মনিরুজ্জামান ফারুক, অধ্যক্ষ ফজলার রহমান, আমিনুল ইসলাম রাঙ্গা, শাহীন সরকার, মামুনুর রশিদ, জিয়া পরিষদ নেতা অধ্যাপক নজমল হোসেন, নূরে আলম সিদ্দীকি, যুবদল নেতা এমআর ইসলাম রিপন, হারুনুর রশিদ হারুন, একেএম আক্তারুজ্জামান লিটন, আরিফুর রহমান মজনু, নজরুল ইসলাম বজলু, রফিকুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর আলম পোটল, আনজু মন্ডল, লুৎফর রহমান, রেজাউল করিম, আব্দুল মতিন, ঈমান আলী, ছাত্রদল নেতা রুহুল হাসান রুহিন, মোরশেদ আল আমিন লেমন, আশরাফুল ইসলাম, মহব্বত আলী, কামরুল ইসলাম, এসএম মুন্না, আরভিল ইসলাম, রিবন মিয়া, সুজা উদ্দিন, মহিলাদল নেত্রী রোকেয়া তালুকদার, শ্রমিকদল নেতা আজাহার আলী, আব্দুল জলিল মন্ডল, রফিকুল ইসলাম, মিজু আহম্মেদ প্রমূখ। শেষে দেশ-জাতি ও জিয়া পরিবারের কল্যাণ কামনা করে দোয়া মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওঃ হামিদুল ইসলাম।

প্রতিবন্ধী সুলতানের সংগ্রামী জীবন

আল আমিন মন্ডল (বগুড়া) থেকে॥ ডাক নাম প্রতিবন্ধী সুলতান। বযস ৪৫ বছর। সবাই তাঁকে সুলতান আহমেদ নামে ডাকেন। সুলতানের জন্ম বগুড়ার গাবতলী দক্ষিনপাড়া ইউনিয়নের লাংলু দক্ষিনপাড়া গ্রামে। সে ঐ গ্রামের মতলুব আহম্মেদের পুত্র। ৭ ভাই-বোনের মধ্যে সে ৩য় সন্তান। সে হঠাৎ লাংলুহাটে সাংবাদিক দেখে ছুটে আসেন। সেখানে সে বর্ণনা করেন তাঁর প্রতিবন্ধী জীবনের সংগ্রামী কিছু কথা। সুলতান জানান, ১৯৯৭ সালে গাবতলীতে সড়ক দূর্ঘটনায় সে দু’পা হারিয়েছে। হাত ও মাথা’সহ শারীরিকভাবে সে এখন অচল। এরপর তাঁর জীবনে নেমে আসে চরম দূর্ভোগ। প্রায় ৫ বছরে ৮ লক্ষ টাকা চিকিৎসা করার পর আজ সে বড় অসহায়। দু-মুটো ভাত জোটাতে পারছে না। অর্থের অভাবে চিকিৎসা অনেক আগেই বন্ধ। ফলে সে এখন দুর্বিসহ ভাবে জীবনযাপন করছে। আজও সে পায়নি কোন সরকারী-বেসরকারী সুযোগ-সুবিধা ও ভাতা কার্ড। ফলে সে জীবনটাকে বাঁচাতে অন্যের ২০শতক জমিতে রোপন করে নানা প্রজাতির বৃক্ষের চারা গাছ। নিজের চলাফেরার জন্য ভ্যানগাড়ীতে ড্রাইভার হিসাবে রেখেছে রুবেল নামের এক দিনমজুর শ্রমিককে। সে তাঁর ডালিয়া নার্সারী থেকে যে টাকার চারা বিক্রি হয় সে টাকায় শ্রমিকের দিন মজুরী ও দু-মুটো ভাত যোগাতে হচ্ছে। এরপরে অর্থিক অনটনের মধ্যেও সে সংগ্রামী জীবনে বেঁচে থাকার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। অর্থের অভাবে চিকিৎসা নেই। নেই কোন ঔষধ। ফলে সে দিন দিন মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিবন্ধী সার্টিফিকেট থাকলে সে প্রতিবন্ধী ভাতা পায়নি। ফলে সে নিরুপায় হয়ে কাঁদতে কাঁদতে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র সু-দৃষ্টি’সহ সহযোগিতা ও হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সাংবাদিকের হাত ধরে অনুরোধ করেন, তাঁর কষ্টের কথাগুলো পত্রিকায় প্রকাশ করার জন্য। সুলতান প্রতিবন্ধী হওয়ায় তাঁকে বা তাঁর নার্সারীতে কেউ সহযোগিতা করেনি। সুলতান জানান, গাবতলীতে আওয়ামী লীগের কর্মসূচী পালন শেষে বাড়ী ফেরার পথে সে সড়ক দূর্ঘটনা কবলে পড়ে আজ সে অসহায় প্রতিবন্ধী হয়েছে। সুলতান আরো জানান, ১৯৮৭ সালে সোনাতলা নাজির আকতার কলেজে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সে জড়িত ছিলেন। ১৯৯১ সালে সে দক্ষিনপাড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এরপরও সে দূীর্ঘদিন যাবত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িত রয়েছেন। যে কোন আ’লীগের কর্মসূচীতে সে ঘরে বসে থাকতে পারে না। ভ্যানে বসে ছুটে আসেন আওয়ামী লীগের কর্মসূচী পালন করতে। এরপরেও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে আজও তাঁকে কেউ সহানুভূতির দৃষ্টিতে দেখেনি। পাইনি একটি প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড। গাবতলী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিল্টন হোসাইন জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। অবশ্যই সুলতানকে সহযোগিতা করা হবে। গাবতলী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম বিটুল জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। তবে ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গাবতলী উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম মুক্তা জানান, শুনে খুব খারাব লাগলো। যুবলীগ সবসময় তাঁর পাশে থেকে সহযোগিতা করবে। গাবতলী উপজেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের দক্ষিনপাড়া ইউনিয়নে দায়িত্বপ্রাপ্ত সমাজকর্মী নজরুল ইসলাম জানান, প্রতিবন্ধী সুলতানের বিষয়টি জানা ছিল না। বিষয়টি অবশ্যই বিবেচনা করে দেখা হবে। দক্ষিনপাড়া ইউপির চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম সাইফুল জানান, সুলতানের জীবন পরিবর্তনের জন্য প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড অবশ্যই দেয়া হবে।

প্রধান সংবাদ


সর্বশেষ সংবাদ

বগুড়ায় ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলা অনুষ্ঠিত

বগুড়া’য় শীতকালীন টমেটোর বাম্পার ফলন

গাবতলী’র সরধনকুটি প্রাঃ বিঃ নানা সমস্যায় জর্জরিত

বগুড়ার গাবতলীতে তারেক রহমানের ৫২তম জন্মদিন সভা ও দোয়া মোনাজাত

গাবতলীতে শহীদ জিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

বগুড়ায় বিএনপির বিক্ষোভ ও সমাবেশ

গাবতলীতে উন্নয়ন কার্যক্রম প্রচারে ভিডিও কনফারেন্স প্রধানমন্ত্রী

বগুড়া’য় যুবদল ও ছাত্রদল নেতা জামিনে মুক্তিলাভ

ঐতিহাসিক মহাস্থান হাটের বেহাল দশা


আজকের সব সংবাদ

সম্পাদক : মো. আলম হোসেন
প্রকাশনায় : এ. লতিফ চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়:
সরদার নিকেতন
হাসনাবাদ, দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, ঢাকা-১৩১১।

ফোন: ০২-৭৪৫১৯৬১
মুঠোফোন: ০১৭৭১৯৬২৩৯৬, ০১৭১৭০৩৪০৯৯
ইমেইল: ekantho24@gmail.com