রবিবার, ২৩ Jul ২০১৭ | ৮ শ্রাবণ ১৪২৪ English Version

সারাদেশ - রাজশাহী বিভাগ - নওগাঁ

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের এক মাত্র সন্তান জঙ্গি আহসান হাবিব শোভন

রওশন আরা পারভীন শিলা,নওগাঁ :> গত শনিবার টাঙ্গাইলের কাগমারা মির্জার মাঠ এলাকায় আইনশৃংখলা বাহিনীর অভিযানে নিহত জঙ্গি আহসান হাবিব শোভনের বাড়ি নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার দক্ষিন রাজাপুর গ্রামে। তার বাবা আলতাফ হোসেন একজন মুক্তিযোদ্ধা। তার বাড়ীতে একদিকে যেমন চলছে দাফন-কাফনের প্রস্তুুতি অন্য দিকে জঙ্গী হিসেবে নিহতের ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক তোলপার শুরু হয়েছে । পারিবারিক সুত্র জানায়,রাজশাহী বিশ্বাবিদ্যালয়ে ইংরেজী বিভাগের ছাত্র আহসান হাবিব শোভন (২৩) । নওগাঁ কেডি স্কুল থেকে এস,এস,সি এবং সরকারী কলেজ থেকে এইচ,এস, সি পাশের পর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজী বিভাগে ভর্তি হয় শোভন। সান্ত শিষ্ঠ,মেধা আর বুদ্ধিমত্তায় ভরপুর শোভন ছোট বেলা থেকেই খুব নিরিবিলি ছিল। তাকে নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের অনেক স্বপ্নও ছিল। বাবা আলতাব হোসেন নওগাঁ আদালতে মহরির কাজ করে সংসার আর ছেলের লেখা পড়ার খরচ যোগাতেন । মুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেনের দু’সন্তান। মেয়ে সম্পা বড় এবং একমাত্র আদরের সন্তান ছিলো ছেলে শোভন। কিন্তু রাজশাহীতে ভর্তি হবার পর থেকে ধীরে ধীরে মানসিক পরির্বতন হতে থাকে শোভনের । গত দেড় বছর আগে রহস্যজনক ভাবে নিখোজ হয় শোভন । সেই থেকেই তার সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয় পরিবারের । অবশ্য স্থানীয় অনেকে বলছেন, শেষবার বাড়ীতে এসে স্থানীয় মসজিদে একবার নামাজে ইমামতিও করেছে শোভন। নিকটতম সুত্র বলছেন তার চলন-বলন ,মুখে দাড়ি সবকিছু মিলে তাকে অন্যরকম দেখাচ্ছিল। অবশ্য পরিবারের স্বজনরা বলছেন, হঠাৎ করেই দাড়ি রাখাসহ নানা পরিবর্তন দেখতে পান শোভনের মাঝে। তবে অনেকবার বুঝিয়েও কোন লাভ হয়নি। শেষ পর্যন্ত দেড় বছর পর খোঁজ পাওয়া গেলেও জীবন্ত নয়, খোঁজ মিলল লাশের। প্রতিবেশি জরিনা বিবি (৫৫) জানান,শোভনকে খুবই শান্ত-শিষ্ঠ ঠান্ডা ছেলে হিসেবে আমরা জানি,কোন দিন তাকে কারো সাথে দন্দ-কলহ করতে দেখিনি। কিন্তু হঠাৎ করে তার এভাবে মৃত্যুর কথা শুনে অবাক হয়ে গেছি। আমরা ভাবতেই পারিনি শোভন এমন পথে পা বাড়াবে। শোভনের চাচা মাহাতাব হোসেন জানান,আমরা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে শোভনের পরিচয় জানতে পেরেছি,গতকাল মঙ্গলবার শোভনের বাবা আলতাব হোসেন তার মরদেহ সনাক্ত করার জন্য টাঙ্গাইল গিয়ে তাকে সনাক্ত করেন । শোভন রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয়ে ইংরেজী বিভাগের ৩য় বর্ষের ছাত্র ছিলো । শোভনের ছোট চাচা শরিফ উদ্দীন জানান,গতকাল বুধবার দুপুর পর টাঙ্গাইল থেকে সংশ্লিষ্টরা শোভনের বাবা আলতাব হোসেনের নিকট মরদে হস্তান্তর করেন। আজ (বুধবার) বাদ মাগরীব পারিবারিক কবরস্থানে শোভনকে দাফন করা হয়। রাণীনগর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালে গত ২০১৪ সালের শেষের দিকে রাজাশাহীর গোদাগাড়ি থানায় অস্ত্র আইনে গ্রেফতার হয় শোভন। কিছু দিন পর জামিনে মুক্ত হয়ে নিখোঁজ হয় সে। পরে পরিবারের পক্ষ থেকে রাজশাহী বোয়ালিয়া থানায় জিডি করা ।

নওগাঁর জঙ্গী আহসান টাঙ্গাইলে নিহত

নাজমুল হক নাহিদ, নওগাঁ প্রতিনিধি:: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা সদরের দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের আহসান হাবীব (২৫) র‌্যাবের অভিযানে টাঙ্গাইলের কাগমারা শহরের মির্জামাঠ এলাকায় নিহত হয়েছে। আহসান হাবীবের বাবা বীরমুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেন জানান, আমার দুই সন্তান। মেয়ে বড় ও আহসান হাবীব ছোট। আহসান হাবীব রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিভাগে পড়ালেখা করতো। আহসান হাবীব গত ২০১৩ সালে যখন সম্মান তৃতীয় বর্ষের ছাত্র তখন সে অস্ত্রসহ রাজশাহী শহরের জিরো পয়েন্টে গ্রেফতার হয়। তাকে জামিনে মুক্ত করার পর থেকে নিরুদ্দেশ হয়ে যায়। আমাদের সঙ্গে দীর্ঘ প্রায় ৩বছর কোন প্রকার যোগাযোগ ছিল না। এব্যাপারে আমি রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেছিলাম। গত মঙ্গলবার আমি র‌্যাব সূত্রের মাধ্যমে জানতে পারি যে গত শনিবার (৮ অক্টোবর) আহসান হাবীবসহ টাঙ্গাইলের কাগমারা শহরের মির্জামাঠ এলাকায় সকালে জঙ্গী সংগঠনের গোপন বৈঠক চলাকালীন সময়ে র‌্যাবের অভিযানে নিহত হয়েছে। রাণীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো: শরীফ হোসেন জানান, আমার বড় ভাই বীরমুক্তিযোদ্ধা আলতাফ হোসেন নওগাঁ কোর্টের মুহরী। আমার ভাতিজা আহসান হাবীব খুব মেধাবী ছাত্র ছিল। আমরা কখনো জানতে পারিনি যে আহসান হাবীব নিষিদ্ধ এই জঙ্গী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েছে। রাণীনগর থানার ওসি মো: মোস্তাফিজুর রহমান আহসান হাবীবের নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্য করায় যুবক আটক

নওগাঁ প্রতিনিধি:: নওগাঁর সাপাহারে আজ শনিবার গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্য করায় মফিজুল ইসলাম (২৮) নামের এক যুবককে আটক করেছে থানা পুলিশ। আটককৃত যুবক মফিজুল ইসলাম উপজেলার হাপানিয়া (শিয়ালমারি) গ্রামের নজরুল ইসলামের পুত্র। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রেজাউল ইসলাম জানান, প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ওই যুবক ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্য করে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল হান্নান ফোর্সসহ আন্ধারদিঘী বাজারে অবস্থিত তাঁর মুদিখানা থেকে যুবক কে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ওই যুবকের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিলো।

রাণীনগরের ৩টি স্থগিত কেন্দ্রে ফের নির্বাচন

নাজমুল হক নাহিদ, নওগাঁ প্রতিনিধি:: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ১নং খট্টেশ্বর রাণীনগর ইউনিয়নের ৩টি স্থগিত ভোট কেন্দ্রে চলছে পুনরায় ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি। ভোট কেন্দ্র ৩টি হলো আল-আমিন দাখিল মাদ্রাসা, সিম্বা ইউনাইটেড উচ্চ বিদ্যালয় ও লোহাচড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। গত ২৫ সেপ্টেম্বরে নির্বাচন কমিশন তফশিল ঘোষনা করার পর থেকে আবার এই ৩টি কেন্দ্রে নতুন করে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনের হাওয়া। আবারও চেয়ারম্যান প্রার্থী থেকে শুরু করে সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের মহিলা প্রার্থীরা নেমেছেন নির্বাচনের মাঠে। নতুন করে এই এলাকার ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন ভোটের জন্য। ১নং কেন্দ্র আল-আমিন দাখিল মাদ্রাসায় ভোট প্রদান করবে উপজেলার উত্তর ও দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের ২ হাজার ৮শত ৯১ জন ভোটার। ৭নং কেন্দ্র সিম্বা ইউনাইটেড উচ্চ বিদ্যালয়ে ভোট প্রদান করবেন সোনাকানিয়া (সিংড়াডাঙ্গা) ও সিম্বা গ্রামের ১ হাজার ৫শত ৪৪জন ভোটার এবং ৯নং লোহাচ’ড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট প্রদান করবেন ১হাজার ৭শত ৭৯ জন ভোটার। গত ২৮ মে অনুষ্ঠিত এই ইউপি নির্বাচনে এই ইউনিয়নে চেয়াম্যান পদে ৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এরা হলেন ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে বিএনপি’র মো: ফরহাদ হোসেন মন্ডল, নৌকা প্রতিক নিয়ে আ’লীগের মো: আসাদুজ্জামান পিন্টু, আনারস প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা: মো: আনজীর হোসেন, মটরসাইকেল প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: গোলাম মোস্তফা ও ঘোড়া প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলহাজ্ব এসএম মাসুদ রানা বিষু। এই ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ৬টি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষনা করা হয়েছে। এতে ৩ হাজার ২শত ৮৪ ভোট পেয়ে মটরসাইকেল প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: গোলাম মোস্তফা এগিয়ে আছেন। তার নিকটতম প্রার্থী আ’লীগের আসাদুজ্জামান পিন্টু নৌকা প্রতিকে ভোট পেয়েছেন ২ হাজার ২শত ৪২। তবে দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে ৩টি কেন্দ্রে পুনরায় ভোটের মাঠে একাধিক চেয়ারম্যান প্রার্থীরা থাকছেন না এবং ভোটে অংশগ্রহণও করছেন না বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে। দেশে প্রথম দলীয় প্রতিকে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের ৫ম ধাপে গত ২৮ মে রাণীনগর উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত জেলার অন্য কোন উপজেলার কোন কেন্দ্রে কোন প্রকার সহিংসতা ছাড়াই সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু রাণীনগর উপজেলার ৮টি ইউপিতে নির্বাচন চলাকালীন সময়ে এই ৩টি ভোট কেন্দ্রে কতিপয় দুর্বৃত্তরা জোরপূর্বক ভোট প্রদান ও ভোট কেন্দ্র দখল করার চেষ্টা করলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এই কেন্দ্রগুলোতে ভোট গ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করেন। আমাগী ৩১ অক্টোবর বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন দেশের সকল স্থগিত ভোট কেন্দ্রে পুনরায় ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারণ করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় রাণীনগর উপজেলার ১নং খট্টেশ্বর রাণীনগর ইউনিয়নের আল-আমিন দাখিল মাদ্রাসা, সিম্বা ইউনাইটেড উচ্চ বিদ্যালয় ও লোহাচ’ড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পুনরায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচনে সাধারণ সদস্য পদে নির্বাচন কারী প্রার্থী এস এম সাইফুল ইসলাম জানান, আল-আমিন দাখিল মাদ্রাসা এই ইউনিয়নের মধ্যে সবচেয়ে বড় কেন্দ্র। এখানে ভোটগ্রহণ স্থগিত হওয়ায় আমাদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পুনরায় আমাদের নির্বাচনের জন্য সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হচ্ছে। এতে আর্থিক ভাবে যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হতে হয়েছে তেমনি ভোটের ক্ষেত্রেও একই অবস্থা। তবে ভোটের প্রতি সাধারণ মানুষরা তেমন আর আগ্রহী নন। তবুও নির্বাচন যদি সুষ্ঠু ও সুন্দর হয় তবে জনগনের দোয়ায় ও আর্শীবাদে আমি আবারও বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবো ইনশাল্লাহ। স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: গোলাম মোস্তফা অভিযোগ করে বলেন, জানি না এবারও এই ৩টি কেন্দ্রে নির্বাচন সুষ্ঠু ভাবে অনুষ্ঠিত হবে কিনা। এখনো সরকার দলের পক্ষ থেকে আমার কর্মীসহ আমার উপড় বিভিন্ন রকমের হুমকি-ধামকি প্রদান করা হচ্ছে। সরকারের কাছে আমার অনুরোধ দলবল নির্বিশেষে ও এলাকায় শান্তি বজায় রাখার স্বার্থে এই ৩টি কেন্দ্রে যেন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। সরকার দলীয় প্রার্থী মো: আসাদুজ্জামান পিন্টু জানান, অবশ্যই নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ন ভাবে অনুষ্ঠিত হবে। কোন প্রকার অরাজকতা মেনে নেওয়া হবে না। ভোটাররা যাকে যোগ্য মনে করবে তাকেই ভোট প্রদান করবে। সরকার দলের পক্ষ থেকে কখনো কোন প্রার্থীকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করার কোন প্রশ্নই আসে না। উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাচন কর্মকর্তা মো: রুহুল আমীন জানান, আগামী ৩১ অক্টোবর এই ৩টি কেন্দ্রে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য সকল প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

প্রকৃতির অনিন্দ্য নিকেতন আত্রাইয়ের ভবানীপুর জমিদার বাড়ি

নাজমুল হক নাহিদ, নওগাঁ থেকে:: প্রকৃতির অনিন্দ্য নিকেতন ভবানীপুর জমিদার বাড়ি অপরুপ সৌন্দর্যে নয়নাভিরাম। তার রুপশোভা বিস্তার করে কালের নিদর্শন হয়ে দাঁড়িয়ে আছে এক উজ্জ্বল ভাস্কর্য্য। সৃষ্টি আর ধ্বংসে এগিয়ে চলছে পৃথিবী। কেউ সৃষ্টিতে আবার কেউ ধ্বংসের খেলায় মত্ত; আবার কারোর দায়িত্ব হীনতায় কালের গহব্বরে সমাহিত হচ্ছে ঐতিহাসিক অতীত। বর্তমান যেমন গুরুত্ববহ সোনালী অতীতও তেমনি অনুপ্রেরণা যোগায়। আমরা বাঙালী, আমাদের রয়েছে ঐতিহাসিক অতীত। বাংলার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে ইতিহাসের স্মৃতি চিহ্ন। এসব ছড়িয়ে থাকা ঐতিহাসিক স্মৃতি বিজড়িত স্থানসমূহ আমাদের স্বত্তাতে আলোড়ন জাগায়। তেমনি আলোড়ন জাগানো ঐতিহাসিক অতীত বহুল স্থান নওগাঁ জেলাধীন আত্রাই ছোট যমুনা নদীর তীরবর্তী মনোরম পরিবেশের ভবানীপুর জমিদার বাড়িটি এলাকার মানুষের কাছে ভবানীপুর রাজবাড়ি বলেই বেশি পরিচিত। এ জমিদার বাড়িটি নওগাঁ শহর হতে মাত্র ২৪ কিলোমিটার দক্ষিণে আত্রাই উপজেলার ১নং শাহাগোলা ইউনিয়নের ভবানীপুর বাজার সংলগ্নে অবস্থিত। অযত্ন ও অবহেলায় এ জমিদার বাড়িটি কালের সাক্ষী হয়ে আজও দাঁড়িয়ে আছে। জমিদার গির্জাশঙ্কর চৌধুরীর মৃত্যুর পর তার পূত্র প্রিয়শঙ্কর চৌধুরী জমিদারির দায়িত্ব গ্রহণ করে জমিদারিত্ব পরিচালনা করতে থাকে। জমিদার প্রিয়শঙ্কর চৌধুরীর স্ত্রীর নাম ছিল লাবন্য প্রভা চৌধুরানী। তাদের ছিল ৬ ছেলে ও ৬ মেয়ে। জমিদার প্রিয়শঙ্কর চৌধুরীর আমলে জমিদারির ব্যাপক বিস্তার ও ঘটে। তিনি ভবানীপুর জমিদার বাড়ির সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি, নাট্যশালা নির্মাণ ও প্রজা সাধারণের সুপেয় পানীয় জলের কষ্ট দূরীকরণের জন্য রাজ প্রাসাদের পার্শ্ববর্তী এলাকায় অনেক পুকুর খনন করেন। ১৯১০ সালে জমিদার পরিবারের উদ্যোগে একটি স্কুল স্থাপন করা হয়। পরবর্তীতে স্কুলটির নাম জমিদার প্রিয়শঙ্কর চৌধুরীর বাবা গির্জাশঙ্কর চৌধুরীর নামকরণে ভবানীপুর জিএস উচ্চ বিদ্যালয় নামকরণ করা হয়। ১৯৫০ সালে জমিদারি প্রথা বিলুপ্তি হওয়ার পর ১৯৬৮ সালের দিকে জমিদার প্রিয়শঙ্কর চৌধুরী স্ব-পরিবারে কলকাতা যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে জমিদারের চতুর্থ পূত্র প্রতাপশঙ্কর চৌধুরী কলকাতা যাওয়ার ব্যাপারে দ্বিমত পষোণ করে। পরে জমিদার প্রিয়শঙ্কর চৌধুরী পূত্রকে রেখেই কলকাতাতে পারি জমায়। পরবর্তীতে প্রিয়শঙ্কর চৌধুরী তার স্ত্রী ও এক ছেলে এক মেয়েকে নিয়ে হাতিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতার মধ্য দিয়ে ২০০৫ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী মৃত্যুবরণ করেন। বর্তমানে তার পুত্র অভিজিৎ চৌধুরী এই জমিদার বাড়ির এক প্রসাদের জরাজীর্ণ ভবনে বসবাস করে আসছে। কালের সাক্ষী হয়ে রয়ে গেছে জমিদারের সুবিশাল অট্টালিকা। জমিদারির আমলে এ রাজবাড়ির মূল ফটকের গেটে ছিল দুই জন নেপালী প্রহরী। আজও প্রাসাদগুলীর দেয়াল দেখে বোঝা যায় রোমান স্টাইলের স্তম্ভগুলো জমিদারদের রুচির পরিচয় বহন করে। জমিদার বাড়িতে সবমিলিয়ে কয়েকটি আঙিনা এবং অসংখ্য ঘর ছিল। প্রাসাদে ছিল জমিদার বাড়ির তিনটি নিজস্ব মন্দির দূর্গা মন্দির, গুপিনাথ মন্দির, বাসন্তি মন্দির। যেখানে পুরো বছরের জন্য একজন স্থায়ী পুরোহিত নিয়োজিত ছিল। সন্ধ্যা প্রদীপ জ্বালানো হতো প্রতি সন্ধ্যায়; শোনা যেতো শঙ্খের ধ্বনি যা কালের বির্বতনে আজ জনমানবহীন শ্বশ্বানে পরিণত হয়েছে। জমিদার বাড়িটিতে এখনো সান বাধানো একটি কুয়ার অস্তিত্ব রয়েছে। জমিদার বাড়ির সামনে সান বাধানো বড় একটি পুকুর যার পাশে ছিল এলাকায় প্রচলিত “গান বাড়ি” নামক ভবন যেখানে গান বাজনাসহ বিভিন্ন মনোরঞ্জনের কাজ চলতো। গান বাড়ি’র সন্নিকটে ছিল একটি বৈঠকখানা যেখানে প্রতিনিয়তো চলতো বিচার-শালিশ। বৈঠকখানার সামনে ছিল বড় ফুলের বাগান। যা ছিল পল্লীতে ছায়াঘেরা, পাখি ডাকা নির্মল নির্ঝর শান্ত পরিবেশ আকুল করতো এলাকাবাসীকে। বাগান বাড়ির চারপাশে রকমারি দেশী-বিদেশী ফুলের সমারোহ ও সুশোভন বাহারী পাতাবাহার দ্বারা পরিবেষ্টিত ফুলের বাগান। চারপাশ ছিল পাখির কলকাকলিতে মুখরিত, সৌম-শান্ত কোলাহলমুক্ত নানা বৈচিত্র্যের ফুলের বর্ণ ও গন্ধের সমারোহ। যেন নিবেদিত পুর্ষ্পাঘ্য। সেখানে আজ নির্মিত হয়েছে প্রতাপশঙ্কর চৌধুরীর নামকরণে ভবানীপুর পিএস ল্যাবরেটরী কিন্ডার গার্টেন এন্ড হাইস্কুল। বৈঠকখানার পশ্চিমে কিছু দূরে রয়েছে একটা স্থল পকুর। যা আজ পরিতাক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। এদিকে, দিনে দিনে জমিদার বাড়ির মূল্যবান সম্পদ চুরি ও লুট হয়ে যাচ্ছে বলে জানা যায়। প্রাসাদের মূল্যবান দরজা, জানালা, শাল কাঠের তীর লুট করে নিয়ে যাওয়ার পর এখন দালানের ইট খুলে নিয়ে এলাকায় অনেকেরই বাড়ি তৈরী হবার কথাও প্রচলিত রয়েছে। অবহেলা অযত্নে ধ্বংসের দারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে থাকা জমিদার বাড়িতে এখন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন দেখতে আসে কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা সুবিশাল অট্টালিকা। যেন কেউ দেখার নেই! কারোর মাথা ব্যাথাও নেই? যার ফল শ্রুতিতে বর্তমানে ধংসের দাড়প্রান্তে ভবানীপুর জমিদার বাড়ি। বাড়িটিতে সংস্কারের ছোঁয়া লাগেনি কখনো। দিন দিন বাড়িটি তার সৌন্দর্য্য হারাতে বসেছে। এ ঐতিহাসিক স্থাপনাটির সংস্কার করা হলে এই জমিদার বাড়িকে ঘিরে গড়ে উঠতে পারে আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র। জমিদার বড়িটি অতি শীঘ্রই সংস্কার প্রয়োজন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এই ঐতিহাসিক নিদর্শন, বাংলা গৌরব উজ্জ্বল ইতিহাসের সাক্ষী ঐতিহাসিক ভবানীপুর জমিদার বাড়ি সংস্কারে এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করছেন উপজেলার সচেতন মহল।

আত্রাইয়ে দুর্ভোগের আরেক নাম রেলওয়ে বাইপাস-উপজেলা পরিষদ সড়ক

নওগাঁ প্রতিনিধি:: নওগাঁর আত্রাইয়ে দুর্ভোগের আরেক নাম আত্রাই রেলওয়ে বাইপাস-উপজেলা পরিষদ সড়ক। দীর্ঘদিন থেকে প্রয়োজনীয় সংস্কারের অভাবে এ সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। আত্রাই রেলওয়ে বাইপাস হতে উপজেলা পরিষদ পর্যন্ত মাত্র এক কিলোমিটার রাস্তা মেরামত না করায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করে বিভিন্ন ছোট বড় যানবাহন। রাস্তাটির বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি হলেই ওইসব গর্তে পানি জমে যায়। ফলে পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। অথচ উপজেলার পশ্চিম, দক্ষিণ ও উত্তরাঞ্চল এলাকার লোকজনের থানা হাসপাতাল এবং উপজেলা পরিষদের সাথে যোগাযোগের জন্য এ একটি মাত্র রাস্তা ব্যবহার করতে হয়। এত জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা হওয়ার পরও তা সংস্কারে কর্তৃপক্ষের নেই কোন উদ্যোগ। কলকাকলী মডেল কিন্ডারগার্টেন স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ মাজেদুর রহমান বলেন, এ রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন আমাদের বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী এবং উপজেলা পরিষদের সকল লোকজনসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ যাতায়াত করে থাকেন। বৃষ্টিতে রাস্তায় পানি জমে থাকার কারণে প্রায়ই যানবাহনের চাকার পানি ছিটকে শিক্ষার্থীসহ সকলের পোষাক পরিচ্ছদ নষ্ট হয়ে যায়। এতে করে চরম বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হতে হয়। ভ্যান চালক আব্দুল লতিফ বলেন, এ রাস্তায় ভ্যান চালানোতে একদিকে জীবনের ঝুঁকি অপরদিকে ভ্যানের যন্ত্রাংশও খুব দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। তার পরও পেটের দায়ে আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ রাস্তায় ভ্যান চালাই। উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম বলেন, এটি অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা। যদিও এটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের রাস্তা তার পরও উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে কিছুটা হলেও সংস্কার করা যায়। এ রাস্তাটি সংস্কারে আমি একাধিকবার উপজেলা পরিষদের সমন্বয় সভায় উত্থাপন করেছি। প্রতিনিয়ত ছোট বড় দুর্ঘটনা ঘটছে, রাস্তায় পানি জমে থাকছে। জনগণের চলাচল দুর্বিসহ হয়ে পড়েছে। তাই বৃহত্তর স্বার্থে অতিদ্রুত রাস্তাটি প্রয়োজনীয় সংস্কারে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

নওগাঁয় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত -৩, আহত -৩২

নওগাঁ প্রতিনিধি :> নওগাঁয় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত ও অন্তত ৩২ জন আহত হয়েছেন। বুধবার জেলার সাপাহার ও মহাদেবপুর উপজেলায় এ দুর্ঘটনা দুটি ঘটে। নিহতরা হলেন, নাজির উদ্দীন (৭০), লিটন মিয়া (২৭) ও এনামুল হক (২৫)। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকাল ১১টার দিকে সাপাহারের তাজপুর এলাকায় একটি বাস অটোরিকশাকে ধাক্কা দিয়ে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক নাজির উদ্দীন মারা যান। দুর্ঘটনায় প্রায় ৩০ জন আহত হন। এদের মধ্যে অটোরিকশার চালক মফিজ উদ্দিনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের সাপাহার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এছাড়া বেলা ১২টার দিকে মহাদেবপুরের খামারবাড়ি এলাকায় বাসচাপায় অটোরিকশার চালক লিটন মিয়া ও যাত্রী এনামুল হক নিহত হন। দুর্ঘটনায় দুইজন আহত হন। তাদের নওগাঁ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ দুর্ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয়রা নওগাঁ- রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে। প্রায় দুই ঘণ্টা পর পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে। সাপাহার থানার ওসি রেজাউল ইসলাম ও মহাদেবপুর থানার ওসি সাবের রেজা চৌধুরী বিষয় দুটি নিশ্চিত করেছেন।

নওগাঁয় চুনাপাথরের খনি আবিষ্কার

ই-কণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক:: রাজশাহীর নওগাঁ জেলার বদরগাছিতে চুনাপাথরের একটি বড় খনি আবিস্কারের খবর পাওয়া গেছে। সেখান ৫০ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে মাটির তলদেশে এই বিশাল খনিজ সম্পদের সন্ধান মিলেছে। বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু সাংবাদিকদের এ কথা জানিয়েছেন। বৃহস্পতিবার নিজ কার্যালয়ে ব্রিফিং করছিলেন নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, এই খনিজ সম্পদটি আর আমদানি করতে হবে না বাংলাদেশকে। সিমেন্টের কাঁচামাল হিসেবে যার ব্যাপক ব্যবহার রয়েছে। নসরুল হামিদ জানান, বাংলাদেশ ভু-তাত্ত্বিক জরিপ বিভাগের বিজ্ঞানীরা এই খনি আবিষ্কার করেছেন। ২২১৪ ফুট মাটির গভীরে এর সন্ধান মিলেছে। ওই স্তর থেকে শুরু হয়ে আরও গভীরে বিস্তৃত রয়েছে খনিটি। বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী জানান, এরই মধ্যে ৬১ ফুট পর্যন্ত খনন করে চুনাপাথর মিলছে। ড্রিলিং অব্যাহত রয়েছে আশা করা যাচ্ছে আরও অনেক পুরু হবে এই খনিটি।

নওগাঁয় সড়ক দূঘটনায় নিহত -৫

নওগাঁ প্রতিনিধি :> নওগাঁ সদর উপজেলার হাপানিয়া এলাকায় ট্রাকের সঙ্গে অটোরিকশার সংঘর্ষে ৫ জন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো তিনজন। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের পরিচয় সম্পর্কে জানা যায়নি। বুধবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নওগাঁ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জকিরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। বিস্তারিত........

প্রধান সংবাদ


সর্বশেষ সংবাদ

নওগাঁয় বিষাক্ত মদপানে তিনজনের মৃত্যু

নওগাঁ সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

নওগাঁয় মাদ্রাসায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তিন শিক্ষার্থীর মৃত্যু

নওগাঁ সীমান্তে বাংলাদেশিকে পিটিয়ে হত্যা করলো বিএসএফ

আত্রাইয়ে পল্লী বিদ্যুতের অবৈধ সংযোগের হিড়িক

আত্রাইয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের আইসিটি সক্ষমতা বৃদ্ধি প্রশিক্ষণ

আত্রাইয়ে বাল্যবিবাহ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধে ব্র্যাকের গণনাটক

আত্রাইয়ে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু

আত্রাইয়ে পাট চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক


আজকের সব সংবাদ

সম্পাদক : মো. আলম হোসেন
প্রকাশনায় : এ. লতিফ চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়:
সরদার নিকেতন
হাসনাবাদ, দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, ঢাকা-১৩১১।

ফোন: ০২-৭৪৫১৯৬১
মুঠোফোন: ০১৭৭১৯৬২৩৯৬, ০১৭১৭০৩৪০৯৯
ইমেইল: ekantho24@gmail.com