শনিবার, ২২ Jul ২০১৭ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৪ English Version

সারাদেশ - সিলেট বিভাগ - সিলেট

সিলেটে আ’লীগ নেতার পা কেটে দিল দুর্বৃত্তরা

ই-কণ্ঠ ডেস্ক:: সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার জকিগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালিকের বাম পা কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার রাত ২টার দিকে দুর্বৃত্তরা বেড়া কেটে ঘরে ঢুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আবদুল মালিকের পা কেটে দেয়। গুরুতর আহত আবদুল মালিককে প্রথমে জকিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আবদুল মালিক জকিগঞ্জ ইউনিয়নের উত্তর বাখরশাল গ্রামের মোশাহিদ আলীর ছেলে। জকিগঞ্জ থানার এসআই শরীফুল ইসলাম ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বুধবার রাত ২টার দিকে আবদুল মালিকের ঘরের পেছন দিকের বেড়া কেটে ভেতরে ঢুকে দুর্বৃত্তরা। তারা আবদুল মালিকের স্ত্রীর হাত-পা বেঁধে রেখে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আবদুল মালিকের বাম পায়ে জখম করে। এতে তার পা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় আবদুল মালিককে প্রথমে জকিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে দ্রুত তাকে ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। জকিগঞ্জ থানার এসআই শরীফুল ইসলাম জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সিলেটে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীর লাশ উদ্ধার

ই-কণ্ঠ ডেস্ক:: সিলেট গণজাগরণ মঞ্চের সক্রিয় কর্মী ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মো. শাহরিয়ার জুমদাররের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি সম্প্রতি স্থাপত্য বিষয়ে অনার্স সম্পন্ন করেন। তাঁর বাড়ি চট্টগ্রামে। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সিলেট শহরের সুরমা আবাসিক এলাকার একটি মেস থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কল্যাণ উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক প্রফেসর ড. রাশেদ তালুকদার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, "আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। তবে এটা আত্মহত্যা না খুন তা বলতে পারছি না।" নিহতের লাশ সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলে কোতয়ালী থানা সূত্রে জানা গেছে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত নিহত অধিকাংশ ব্লগার গণজাগরণ মঞ্চের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। মাঠ পর্যায় থেকে শুরু করে অনলাইনেও তারা ছিলেন সক্রিয়।

সিলেটে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার

অনলাইন ডেস্ক :< সিলেটে পাঁচটি ইলেকট্রো ডেটোনেটর বোমা, আটটি পেট্রলবোমা, পাঁচটি পাওয়ার জেলসহ বেশ কিছু বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার করেছে র‍্যাব। আজ রোববার সিলেটের লালদিঘীর পাড়ের পরিত্যক্ত একটি মার্কেটের সামনে থেকে এসব বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়। র‌্যাব ৯-এর সহকারী পরিচালক মাঈন উদ্দিন চৌধুরী জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাঁরা বিকেল ৩টার দিকে বিশেষ একটি দল নিয়ে লালদিঘীর পাড়ের পরিত্যক্ত মার্কেটে অভিযান চালান। এ সময় তাঁদের উপস্থিতি টের পেয়ে বোমা বহনকারীরা পালিয়ে যায়। এ সময় সেখান থেকে ইলেকট্রো ডেটোনেটর নামে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন পাঁচটি বোমা, আটটি পেট্রলবোমা, দুটি হাতবোমা, পাঁচটি পাওয়ার জেলসহ বেশ কিছু বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার করে। র‌্যাব কর্মকর্তা মাঈন উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ইলেকট্রো ডেটোনেটর ব্যবহার করে খুব দ্রুত ও ধ্বংসাত্মক বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। তাঁদের ধারণা, বড় কোনো নাশকতার জন্য এইগুলো ব্যবহার করতে চেয়েছিল দুর্বৃত্তরা।

সিলেটে ফের শিশু নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ

ই-কণ্ঠ ডেস্ক:: সিলেটে শিশু রাজন হত্যার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার আরেক শিশুকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদর উপজেলার ঘোপালে একটি বিস্কুট কারখানায় পাওনা টাকা চাওয়ায় মো. আকমল হোসেন (১১) নামের শিশু শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। নিহত শিশু শ্রমিকের নাম আকমল হোসেন (১১)। সে সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার থানার পাহাড়পুর (পূর্ব রাজনপুর) গ্রামের এখলাছ মিয়ার ছেলে। আকমল চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তৃতীয়। শহরতলীর টুকেরবাজার ঘোপাল এলাকার ফুড মার্ক ব্রেড অ্যান্ড বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে কাজ করত সে। আকমলের বাবা এখলাছ মিয়া ফ্যাক্টরির মালিকসহ দু’জনের নাম দিয়ে ও অজ্ঞাত ৬-৭ জনকে আসামি করে মামলা করেন। আসামিরা হচ্ছেন- টুকেরবাজারের লন্ডনী বাড়ি ও ফুড মার্ক ব্রেড অ্যান্ড বিস্কুট ফ্যাক্টরির মালিক ওহাব আলী ও গোলাপগঞ্জ থানার ফুলসাঈন গ্রামের মৃত হাসিবের ছেলে বর্তমানে ওই বিস্কুট ফ্যাক্টরির মিস্ত্রি আবদুর রহমান। তবে পুলিশ বলছে, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, দেয়াল চাপা পড়ে আকমল মারা গেছে। এখলাছ মিয়া শনিবার বলেন, আমার স্ত্রীর বোনের ছেলে কামরুল ইসলামের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার দেয়াল চাপা পড়ে আকমল আহত হওয়ার খবর পাই। পরে ফ্যাক্টরিতে গিয়ে জানতে পারি সে ওসমানী হাসপাতালে রয়েছে। হাসপাতালে গিয়ে দেখি আমার ছেলের মৃতদেহ পড়ে আছে। পরদিন মামলা করি। এজাহারে বলা হয়েছে, আকমলের বকেয়া বেতন নিয়ে সপ্তাহখানেক আগে ফ্যাক্টরি মালিক ওহাব আলীর সঙ্গে এখলাছ মিয়ার কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরেই বৃহস্পতিবার বিকালে আকমলকে শৌচাগারে নিয়ে বেদম মারধর করে ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করা হলে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। পরে আকমলকে ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়। খবর পেয়ে রাতেই তিনি এসে লাশ শনাক্ত করেন। ময়নাতদন্ত শেষে পরদিন শুক্রবার লাশ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সন্ধ্যার পর জানাজা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে আকমলকে দাফন করা হয়। জালালাবাদ থানার ওসি আখতার হোসেন জানান, আকমলের বাবার অভিযোগ আমলে নিয়ে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। বিষয়টি স্পর্শকাতর হওয়ায় গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত চলছে। নির্যাতনে মারা গেছে নাকি দেয়াল চাপা পড়ে মারা গেছে তা তদন্তের আগে বলা সম্ভব নয়। ফ্যাক্টরির মালিক ওহাব আলী জানান, ঘটনার সময় প্রস্রাবখানার দেয়ালের ওপর লাফালাফি করে উঠতে গেলে দেয়াল ধসে পড়ে আকমল মারাত্মক আহত হয়। পরে তার মৃত্যু হয়েছে।

রাজন হত্যাকাণ্ড : ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগ পত্র

ডেস্ক রিপোর্ট :> সিলেটের শিশু সামিউল আলম রাজন হত্যাকাণ্ডের মামলায় ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে পুলিশ। রোববার বিকেলে সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ অভিযোগপত্র জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সুরঞ্জিত তালুকদার। গত ৮ জুলাই সিলেটের জালালাবাদ থানা এলাকার বাদেয়ালি গ্রামের সবজি বিক্রেতা শিশু সামিউলকে চোর সন্দেহে আটক করে কুমারগাঁও বাসস্টেশনে দোকান ঘরের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়। এক পর্যায়ে সামিউল মারা গেলে লাশ গুম করার চেষ্টা হয়। এ ঘটনার পর নির্যাতনের ওই দৃশ্য ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে। দেশে-বিদেশে এ নিয়ে নানা প্রতিক্রিয়া হয়। পরে এ ঘটনায় মামলা করা হয়।

রাজন হত্যাকাণ্ড ॥ দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে দুই এসআই সাময়িক বরখাস্ত

সিলেটে শিশু রাজন হত্যাকাণ্ডের পর দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে জালালাবাদ থানার দুই এসআইকে সাময়িক বরখাস্ত ও এর পরিদর্শককে প্রত্যাহার করা হয়েছে। শাস্তি প্রাপ্তরা হলেন- এস আই আমিনুল ইসলাম ও এসআই জাকির হোসেন এবং পরিদর্শক আলমগীর হোসেন। সিলেটের পুলিশ কমিশনার জানান, তাদের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার প্রমাণ পাওয়ায় এসআই দু'জনকে সাময়িক বরখাস্ত ও ওসি আলমগীর হোসেনকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে নিয়ে আসা হয়েছে। আলমগীরের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থার জন্য পুলিশ হেডকোয়ার্টারে আবেদন করা হয়েছে বলেও জানান এসএমপি কমিশনার কামরুল আহসান।

রাজন হত্যার মূল হোতা কামরুল জেদ্দায় আটক

ই-কণ্ঠ ডেস্ক:: সিলেটের সামিউল ‍আলম রাজন হত্যার মূল হোতা কামরুল ইসলামকে সৌদি আরবের জেদ্দা থেকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। সোমবার বাংলাদেশ সময় রাত আটটার দিকে তাকে সৌদি পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয় বলে দূতাবাস সূত্রে নিশ্চিত করা হয়েছে। দূতাবাস সূত্রে জানা যায়, যেহেতু কামরুলের নামে সৌদি আরবে কোনো মামলা নেই, তাই তাকে বাংলাদেশেই ফেরত পাঠাবে সৌদি পুলিশ। আর বাংলাদেশে নামামাত্র তাকে গ্রেফতার দেখানো হবে। প্রসঙ্গত, গত বুধবার সিলেট নগরীর কুমারগাঁওয়ে শিশু সামিউল আলম রাজনকে (১৩) চুরির অপবাদ দিয়ে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে পৈশাচিক নির্যাতন চালানো হয়। একপর্যায়ে রাজন মারা গেলে তার লাশ গুম করার চেষ্টাকালে পুলিশের হাতে আটক হয় মুহিত আলম। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে এসএমপি’র জালালাবাদ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে। মামলায় আটক মুহিত আলম (৩২) ও তার ভাই সৌদি প্রবাসী কামরুল ইসলাম (২৪), তাদের সহযোগী আলী হায়দার ওরফে আলী (৩৪) ও চৌকিদার ময়না মিয়া ওরফে ময়নাকে (৪৫) আসামি করা হয়েছে। সৌদি প্রবাসী কামরুল ইসলাম যাতে দেশ ছেড়ে পালাতে না পারে সে জন্য পুলিশ ইমিগ্রেশনে চিঠি দিয়েছে। নিহত শিশু রাজনের বাড়ি সিলেট নগরীর কুমারগাঁও বাসস্ট্যান্ডের পাশে সিলেট সদর উপজেলার কান্দিগাঁও ইউনিয়নের বাদেআলী গ্রামে। রাজনের বাবা শেখ আজিজুর রহমান মাইক্রোচালক। দুই ভাইয়ের মধ্যে সামিউল আলম রাজন বড়। অনন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করা রাজন সবজি বিক্রি করত। শিশু শেখ সামিউল আলম রাজন হত্যাকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার কামরুল আহসান। রোববার রাত ১০টায় ঘটনাস্থল কুমারগাঁও বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গিয়ে তিনি স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন। এসময় তিনি রাজন হত্যাকারীদের কঠোর শাস্তি প্রদানে সব রকম আইনি সহায়তা দেয়া হবে বলে এলাকাবাসীদের আশ্বস্ত করেন। এছাড়া এসএমপি’র জালালাবাদ থানার ওসিকে অপরাধীদের গ্রেফতার করতে নির্দেশ দেন তিনি।

সিলেটে তাবলীগ জামাতের মুরব্বীকে জবাই করে হত্যা

ই-কণ্ঠ ডেস্ক:: সিলেট নগরীর চারাদিঘীর পাড় এলাকায় ইব্রাহিম আবু খলিল (৫৫) নামে তাবলীগ জামাতের এক মুরব্বীকে জবাই করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গত রবিবার দিবাগত রাতে কোনো এক সময় এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা করছে পুলিশ। নিহত ইব্রাহিম ওই এলাকার ১নং বাসার সাদ উদ্দিন আল হাবীবের ছেলে। নিহতের ছেলে সাজিদ উদ্দিন জানান, রবিবার দিবাগত রাতে খাওয়া-ধাওয়া সেরে নিজ কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন ইব্রাহিম। আজ সোমবার সকালে তার ঘরের দরজা খোলা পাওয়া যায়। এসময় ঘরের খাটের নীচে হাত বাঁধা ও গলা কাটা অবস্থায় তার লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। তার মুখের উপর একটি বালিশ চাপা দেয়াও ছিল। বিষয়টি পুলিশকে জানালে আজ সকাল ১০টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সাজিদ মিয়া আরো জানান, নিহত ইব্রাহিম তাবলীগ করতেন। গত দুই দিন আগে তিনি তাবলীগ শেষে ভারত থেকে দেশে ফিরেন। ঘাতকরা ঘরে থাকা ল্যাপটপ ও স্বর্ণ লুট করে নিয়ে গেছে বলে জানান সাজিদ। কোতোয়ালী থানার ওসি সোহেল আহমদ জানান, লাশ উদ্ধারের কাজ চলছে। লাশের হাত বাঁধা ও গলা কাটা অবস্থায় ছিল।

দেশে গৃহযুদ্ধের কোন সম্ভাবনা নেই

দেশে গৃহযুদ্ধ বাধার কোন সম্ভাবনা নেই উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন বিএনপিই দেশে গুপ্তহত্যা চালাচ্ছে। শুক্রবার দুপুরে সিলেটে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। অর্থমন্ত্রী বলেন, 'সোজা কথা, খালেদা জিয়া এসব করাচ্ছেন, তার কথায় এসব হচ্ছে। গৃহযুদ্ধ কোনও দিনই হবে না। কারণ তার কোনও সমর্থন নেই, তারা যা করছে এসব গুপ্তহত্যা। '

প্রধান সংবাদ


সর্বশেষ সংবাদ

ইউনিলিভারের লুট হওয়া ৭০ লাখ টাকা উদ্ধার, আটক ২

দুই সন্তানের মৃত্যু, বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন মা

খাদিজার ওপর হামলাকারী বদরুল শাবি থেকে বহিষ্কার

চাঁদাবাজির অভিযোগে সিলেটে তিন পুলিশ সদস্য প্রত্যাহার

ট্রাকের ধাক্কায় সিএনজি চালক নিহত

সিলেটে যৌতুকের দাবিতে নববধূর ওপর মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

বিয়ের ৪দিনের মাথায় এক যুবক খুন

মঙ্গলবার থেকে সিলেটে অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট শুরু

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে মর্টারশেল সহ যুবক আটক


আজকের সব সংবাদ

সম্পাদক : মো. আলম হোসেন
প্রকাশনায় : এ. লতিফ চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়:
সরদার নিকেতন
হাসনাবাদ, দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ, ঢাকা-১৩১১।

ফোন: ০২-৭৪৫১৯৬১
মুঠোফোন: ০১৭৭১৯৬২৩৯৬, ০১৭১৭০৩৪০৯৯
ইমেইল: ekantho24@gmail.com