মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৫৬ অপরাহ্ন

কালিয়াকৈরে শিক্ষকদের টাকায় দামী শাড়ী, গহনা উপহার দিয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সংর্বধনা

কালিয়াকৈর(গাজীপুর)প্রতিনিধি::

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার ১৯টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৫৩জন শিক্ষকের টাকায় দামী শাড়ী, গহনা উপহার গ্রহন করলেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা।

শনিবার দুপুরে শ্রীফলতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সংর্বধনা অনুষ্ঠানে এ উপহার দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, গত ১৭ মার্চ থেকে সারা বাংলাদেশে মহামারি করোনায় সরকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষনা করলেও কালিয়াকৈর উপজেলার শিক্ষা কর্মকর্তা রমিতা ইসলাম জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক ২০১৯ জাতীয় শ্রেষ্ঠ উপজেলা শিক্ষা অফিসার নির্বাচিত হওয়ায় শনিবার দুপুরে সৈয়দপুর ক্লাস্টারের আয়োজনে তাকে সংর্বধনা দেওয়া হয়েছে। এসময় উপজেলার শিক্ষা অফিসার রমিতা ইসলামকে একটি দামী শাড়ী, গহনা, তার স্বামীর জন্য একটি স্যুটপ্যান্ট ও ছেলের জন্য শার্ট প্যান্ট ও ২জনের মাঝে ক্রেস্ট প্রদান করেন।

এর আগেও আরো চারটি ক্লাস্টারের মাধ্যমে তাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। সংর্বধনা অনুষ্ঠানের আর্থিক যোগানের জন্য সৈয়দপুর ক্লাস্টারের ১৯টি বিদ্যালয়ের ১৫৩জন শিক্ষকদের কাছ থেকে এক হাজার টাকা করে মোট এক লাখ তেপ্পান্ন হাজার টাকা তুলে এ সংর্বধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। ইতিমধ্যে নিম্নবিত্ত শিক্ষক করোনার সময় আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। সংর্বধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রমিতা ইসলাম। আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার জাহিদুল আলম, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার ফারহান বেগম, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার আলমগীর হোসেন, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার দিলারা রহমান, শিক্ষা অফিসের উত্তম কুমার দাস সহ বিভিন্ন শিক্ষকবৃন্দ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শিক্ষক জানান, কি করবো শিক্ষা কর্মকর্তাকে খুশি করার জন্য আমরা এক হাজার টাকা চাদাঁ দিয়ে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান করেছি।

সৈয়দপুর ক্লাস্টারের দায়িত্বরত উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার ফারহান বেগম জানান, খুশির আবেগ আপ্লুত হয়ে কেউ যদি টাকা দেয় সেটা চাদাঁ দেওয়া বলে না।

কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী হাফিজুল আমীন জানান, সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের বিষয়টি আমার জানা নাই। তবে বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখছি।

এবিষয়ে কালিয়াকৈর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রমিতা ইসলামকে বারবার মোবাইল যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি।

গাজীপুর জেলা শিক্ষা অফিসার মোফাজ্জল হোসেন জানান, শিক্ষা বিভাগের চাঁদা উঠিয়ে সংর্বধনা দেওয়া সরকারীভাবে কোন নিয়ম নাই।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Titans It Solution