শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:৪০ অপরাহ্ন

দুর্দান্ত সিরিজ জয় বাংলাদেশ দলের॥ দ্বিতীয় ম্যাচ ড্র

মুজিবুর রহমান বাবু॥

মুজিববর্ষ ফিফা আন্তর্জাতিক ফুটবল সিরিজে প্রথম ম্যাচটি বাংলাদেশ ২-০ তে দুদান্তভাবে হারিয়েছিল নেপালকে। দ্বিতীয় ম্যাচে ড্র করেও সিরিজ বাংলাদেশের ঝুলিতে। প্রথম ম্যাচের মতো, দ্বিতীয় ম্যাচটিতে শেষ হাসি হাসতে পারলো না। বাংলাদেশ ও নেপাল মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) মুখোমুখি হয়। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয় বিকেল ৫টায়। খেলার প্রথমার্ধে বাংলাদেশ সুযোগ পেয়েও ব্যর্থ। বাংলাদেশ ও নেপাল উভয় দলই কোন গোল দিতে পারে নাই। তাই ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছে বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে দ্বিতীয় ও শেষ মুজিববর্ষ ফিফা আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচটি।

২৭ মিনিটের মাথায় একটি সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারলেন না একে বারে গোল পোস্টের উপর দিয়ে চলে যায়। এছাড়া আরো সুযোগ পায় বাংলাদেশ দল। খেলার শুরু থেকেই বাংলাদেশ নেপালের উপর কিছুটা আদিপত্য বিস্তার করে বাংলাদেশের জাতীয় দল।

বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের পায়ে যদি একটু চম্বুক থাকতো তাহলে গোল হয়ে যেত দ্বিতীয় ম্যাচে প্রথমার্ধে।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্ট্রেডিয়ামে গ্যালারিতে প্রায় ১২ হাজার দর্শকের মধ্যে খুব উৎফুল্ল ছিল। কিন্তু দর্শকেরা আনন্দ নিয়ে বাসায় ফিরতে পারলেন না। বহুদিন পর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে দর্শকদের আনন্দই ছিল অন্যরকম কারণ বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা প্রথম থেকে চাপে রেখেছি কিন্তু কাজে লাগাতে পারলো না। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের গ্যালারি আজও ছিল দর্শকে ঠাসা। মাইকে বারবার সবাইকে সামাজিক দূরত্ব মেনে বসার আহ্বান জানানো হলেও তা কেউ মানেননি। এভাবেই শুরু হয় খেলা। একাদশে দুটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। রিয়াদুল হাসানের জায়গায় ইয়াসিন খান ও গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকোর জায়গায় আশরাফুল ইসলাম রানা। অন্যদিকে প্রতিশোধ নিতে উন্মুখ হয়ে থাকা নেপাল দলে ছিল পাঁচটি পরিবর্তন।

দ্বিতীয়ার্ধে পর নেপালকে আরও চেপে ধরে বাংলাদেশ জাতীয় দল। একের পর এক আক্রমণে নেপালের রক্ষণভাগকে ব্যস্ত রাখেন জামাল ভুঁইয়া। প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত খেলা বাংলাদেশ দলকে দ্বিতীয় ম্যাচে আদিপত্য বিস্তার করতে পারলো না। নাবীব নেওয়াজ জীবন ও মাহবুবুর রহমান সুফিলদের আক্রমণের প্রথম ম্যাচের মতো দ্বিতীয় ম্যাচে কোথায় যেন হারিয়ে গেল। দুই দলই নিজেদের রক্ষণভাগ দূর্ভেদ্য কওে রেখেছিল। বারবার আক্রমণ উঠলেও গোলকিপারকে বড় কোনো পরীক্ষা দিতে হয়নি। দ্বিতীয় মিনিটে সাদ উদ্দিনের ক্রস নেপাল গোলরক্ষকের দারুণভাবে গ্লাভসে জমা হয়। ২৩তম মিনিটে জীবনের ছোট পাস ধরে ডি-বক্সের বাইওে থেকে সুমন রেজার শট ক্রসবারের একটু ওপর দিয়ে যায়।

দ্বিতীয়ার্ধ্বের খেলার ২৮ মিনিটের মাথায় এক দর্শক মাঠের মধ্যে ঢুকে পড়েই জামাল ভূঁইয়ার সঙ্গে সেলফি তোলার জন্য মুঠোফোন বের করে সেই মুহূর্তে তাকে পাকড়াও করেন নিরাপত্তাকর্মীরা ও পুলিশেরা। এরপর তাকে টেনেহিঁচড়ে মাঠের বাইরে নেওয়া হয়। তারপর সেই দর্শককে মিডিয়া সেন্টারের নিচে মেডিকেল কক্ষে নিয়ে আটকে রাখে বাফুফের নিরাপত্তা কর্মীরা। তারপর আবার খেলা শুরু হয়। ৬১ মিনিটে মানিক ও ইব্রাহিমকে তুলে বিপলু আহমেদ ও সোহেল রানাকে নামায় বাংলাদেশ। ৬৭তম মিনিটে বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ঢুকেও পোষ্টে দারুণ শট নিতে পারেননি জীবন। শত চেষ্ঠা করেও বাংলাদেশ দ্বিতীয় ম্যাচে গোল করতে পারলো না।

বাংলাদেশ দল ॥ গোলরক্ষক : শহীদুল আলম সোহেল, আনিসুর রহমান জিকো; ডিফেন্ডার : তপু বর্মণ, ইয়াসিন খান, বিশ্বনাথ ঘোষ, সুশান্ত ত্রিপুরা, রিয়াদুল হাসান, রহমত মিয়া, ইয়াসিন আরাফাত; মিডফিল্ডার : আতিকুর রহমান ফাহাদ, রবিউল হাসান, বিপলু আহমেদ, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, সোহেল রানা, জামাল ভুঁইয়া (অধিনায়ক), মানিক হোসেন মোল্লা, রাকিব হোসেন; ফরোয়ার্ড : মাহবুবুর রহমান সুফিল, তৌহিদুল আলম সবুজ, সাদ উদ্দিন, নাবিব নেওয়াজ জীবন, এমএস বাবলু ও সুমন রেজা।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Nazmul Hasan