রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:২৬ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশ গেজেট অনুযায়ী যারা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হবেন

আশরাফুল আবেদীন, ঈশ্বরদী॥ বাংলাদেশ গেজেট প্রকাশের ভারতে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা যারা হবেন তাদের বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রনালয় থেকে পরিস্কার ধারনা দেওয়া হয়েছে।
গত ২০১৬ সালের ১০ নবেম্বর বৃহস্পতিবার কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বাংলাদেশ গেজেটের অতিরিক্ত সংখ্যায় প্রকাশিত এবং গত ২০১৬ সালের ৬ নবেম্বর তারিখে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের জারিকৃত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধা এর সজ্ঞা ও বয়স নির্ধারণকরা হয়েছে। নং ৪৮.০০.০০০০.০০৪.৪৯.২৩৩.০৯-১৮৩২ জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের সুপারিশের আলোকে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাগণের একটি নির্ভরযোগ্য ও গ্রহণ যোগ্য তালিকা প্রণয়নের লক্ষে মুক্তিযোদ্ধা এর সজ্ঞা ও বয়স নিম্নরুপ নির্ধারণ করা হয়েছে। সজ্ঞাতে বলা হয়েছে জাতীর পিতা শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক স্বাধীনতার ঘোষনায় সারা দিয়ে ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ হতে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে যে সকল ব্যক্তি বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন তাঁরাই মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে গণ্য হবেন।
যেমন ক)  যে সমস্ত ব্যক্তি মুক্তিযুদ্ধের মধ্যে বাংলাদেশের সীমানা অতিক্রম করে ভারতে বিভিন্ন ট্রেনিং/প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন।

খ)  যে সকল বাংলাদেশী পেশাজীবি বিদেশে অবস্থানকালে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বিশিষ অবদান রেখেছেন এবং যে সকল বাংলাদেশী বিশিষ্ট নাগরিক নিশ্বের জনমত গঠনে সক্রিয় ভুমিকা রেছেন।

গ) যারা মুক্তিযুদ্ধ কালীন সময়ে গঠিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের (মুজিবনগর সরকার) অধীনে কর্মকর্তা/কর্মচারী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

ঘ) সশস্ত্র বাহিনী, পুলিশ, ইপিআর, আনসার বাহিনী সদস্য যারা মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেছেন।

ঙ) মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের (মুজিবনগর সরকার) সাথে সম্পৃক্ত এমএনএ গণ (MNA) ও এমপিএগণ (MPA) (গণপরিষদ সদস্য)।

চ) পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের সহযোগী করতে নির্যাতিত নারীগণ (বিরাঙ্গনা)।

ছ) স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ও কলাকৌশলীবৃন্দ এবং দেশ ও দেশের বাহিরে দায়িত্বপালনকারী বাংলাদেশীগণ।

জ) স্বাধীন বাংলা ও ফুটবল দলের খেলোয়াড়বৃন্দ।

ঝ) মুক্তিযুদ্ধকালে আহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিতসা সেবা প্রদান কারী মেডিক্যাল টিমের ডাক্তার, নার্স ও সহকারীবৃন্দ। এবং ০২/ মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে নতুনভাবে অন্তর্ভুক্তর ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধার বয়স ২৬/০৩/১৯৭১ তারিখে নুন্যতম ১৩ বছর হতে হবে ও ০৩/ জনস্বার্থে প্রজ্ঞাপনটি জারি হল এবং উহা অবিলম্বে কার্যকর হবে। রাষ্ট্রপতি আদেশক্রমে উপসচিব মো: মাহাবুবুর রহমান ফারুকি । ভারতে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত পাকশীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার (পাকশীর বন্দ হওয়া কাগজ কলে কর্মরত) এর দেওয়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানাগেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020  E-Kantha24
Technical Helped by Nazmul Hasan